adv
২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রী মহসিন আলীর মেয়ের বিয়েতে একজন মন্ত্রীও যাননি

MOHSIN-ALI-MAYA-PIC {focus_keyword} এলাহিকাণ্ডে নেই মন্ত্রীরা, হতবাক সাংবাদিকরা  MOHSIN ALI MAYA PIC e1409920308812ডেস্ক রিপোর্ট : সপ্তাহ খানেক ধরে বিয়ে মঞ্চের বিশাল আয়োজন দেখে অনেকেই মনে করেছিলেন মন্ত্রীর মেয়ের বিয়েতে মন্ত্রী-এমপিদের বুঝি ঢল নামবে। কিন্তু ঘটনা উল্টো। কোনো মন্ত্রীকেই বিয়ে অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।
আবার গণমাধ্যম কর্মীরাও ভেবেছিলেন মন্ত্রী যখন নিজের তাদের ডেকে সহযোগিতা চেয়েছেন তাতে আর কোনো ঝামেলা নেই। কিন্তু বিয়ের ছবি তুলতে গিয়েই দেখা গেলে বিপত্তি। তোপের মুখে শেষ অবধি বিয়ে অনুষ্ঠান থেকে গোমড়া মুখে ফিরেছেন তারা।
এর পরেও যা ঘটেছে তা ইলাহিকাণ্ডই বটে। মন্ত্রীর মেয়ের বিয়ে বলে কথা। সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর দ্বিতীয় মেয়ে সৈয়দা সানজিদার বিয়ে উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মৌলভীবাজার স্টেডিয়ামপাড়ায় ছিল উতসবমুখর পরিবেশ। জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা থেকে শুরু করে প্রশাসনিক কর্মকর্তা সবাই ছিলেন দারুণ ব্যস্ত। বিয়েতে আপ্যায়ন করা হয় বিভিন্ন শ্রেণীপেশার অন্তত ১৫ হাজার অতিথিকে। নিমন্ত্রণের বাইরেও অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন আরো ৫ হাজার অতিথি।
জেলার প্রতিটি উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের শত শত নেতাকর্মী ছাড়াও প্রতিটি দপ্তরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, কর্মচারী, চিকিৎসক, আইনজীবী পরিষদের নেতারা উপস্থিত হন।

MOHSIN-ALI-pic-bor-kone-000 {focus_keyword} এলাহিকাণ্ডে নেই মন্ত্রীরা, হতবাক সাংবাদিকরা  MOHSIN ALI pic bor kone 000তবে অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে মন্ত্রীর মেয়ের বিয়ে উপলক্ষে এ এলাহিকাণ্ডে দেখা যায়নি মন্ত্রিপরিষদের কোনো সদস্যকে। এমনকি নিজ দলীয় বর্তমান কোনো সংসদ সদস্যকে চোখে পড়েনি। শুধু কি তাই, সিলেট বিভাগের মন্ত্রীরা অনুষ্ঠানচলাকালে সিলেট সফরে থাকলেও কেউ আসেননি ওই বিয়ে অনুষ্ঠানে।
যারা বিয়ের বিশাল আয়োজন আর গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা দেখে ভেবেছিলেন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী-এমপিদের গাড়ির বিশাল বহর নামবে, তারা হতাশ হয়েছেন। এলাহিকাণ্ডে নেই মন্ত্রীরা, হতবাক সাংবাদিকরা । এমনকি নিজ দল আওয়ামী লীগের মৌলভীবাজার জেলা সভাপতি উপাধ্যক্ষ আব্দুস সহীদ এমপি ও একই জেলার পার্শ্ববর্তী বড়লেখা উপজেলার সরকার দলীয় হুইপ শাহাবুদ্দিন আহমদ বিয়েতে আসেননি। এ বিষয়টি অবাক করেছে মৌলভীবাজারবাসীকেও।
তবে মন্ত্রীরা না থাকলে কি হবে অনুষ্ঠানে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রেসসচিব, সিলেটের ইমরান আহমদ চৌধরী, হবিগঞ্জের মাহবুব আলী, বালাগঞ্জ-বিশ্বনাথের সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী আর বিএনপির কেন্দ্রীয় নেত্রী সাবেক সংসদ সদস্য বেগম খালেদা রব্বানী। তবে এসব অতিথিও মন্ত্রিদের দেখা না পেয়ে তারা বিস্মিত হয়েছেন।
এদিকে, বিয়ের আগের দিন গত বুধবার মন্ত্রী নিজ থেকে মৌলভীবাজার সার্কিট হাউজে গণমাধ্যমকর্মীদের আহ্বান করেন। তিনি অনুষ্ঠানে তাদের সহযোগিতা চেয়ে বিয়েতে উপস্থিত হতে বলেন। কিন্তু মেয়ের বিয়ের ছবি তুলতে গেলে মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠজনদের তোপের মুখে পড়েন গণমাধ্যমকর্মীরা। এ বিষয়ে মন্ত্রী কোনো হস্তক্ষেপ করেননি। এতে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় সাংবাদিকদের। সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর ছোট ভাই সৈয়দ সলমান আলী জানান, সংসদ অধিবেশন চলায় সরকারের কোনো মন্ত্রী বা এমপিরা উপস্থিত হতে পারেননি। তবে আগামী ৮ সেপ্টেম্বের ঢাকার অনুষ্ঠানে সরকারের মন্ত্রী এমপি ও উচ্চপদস্থরা উপস্থিত থাকবেন।
বিয়ে উপলক্ষে অনুষ্ঠানস্থলের আশপাশ এলাকায় ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়। ভিআইপি অতিথিরা প্রবেশ করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার অফিসের গেট দিয়ে। সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রবেশ করেন তিন নম্বর গেট দিয়ে। পুরো বিয়ের অনুষ্ঠানে আইন-শৃঙ্খলা ও অতিথিদের যাতায়াতের সুবিধায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থার লোক, স্কাউট ও দলীয় নেতাকর্মীরা স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করেন।
বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে অতিথিরা স্টেডিয়ামের তিনটি গেট দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন। ভিআইপি প্যান্ডেল ছাড়াও তিনটি প্যান্ডেলে একসঙ্গে পাঁচ শতাধিক লোকের খাবারের আয়োজন করা হয়। মেন্যুতে ছিল- ভিআইপিদের জন্য কাচ্চি বিরিয়ানি। সাধারণ খাবার মেন্যুর মধ্যে ছিল মাছ, গরুর ভুনা, খাসির কোরমা, মুরগির রোস্ট ও জর্দা।
বিকেল সাড়ে ৩টায় একটি সাদা রঙের নিশান প্রাডো গাড়িতে চড়ে বর মো. মোশাররফ পাটোয়ারী আনিক স্টেডিয়ামে স্থাপন করা বিয়ের মঞ্চে উপস্থিত হন। তার সঙ্গে ছিল শতাধিক গাড়ির বহর। তাকে স্বাগত জানান সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী। আনিক লক্ষ্মীপুরের দত্তপাড়ার শ্রীরামপুর গ্রামের ইব্রাহীম পাটোয়ারীর ছেলে। তিনি ঢাকার শ্যামলীতে বসবাস করেন। বিয়েতে ২০ লাখ টাকা দেনমোহর নির্ধারণ করা হয়। কাজি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মৌলভীবাজার জেলা ওলামালীগ আহ্বায়ক কতুব উদ্দিন।
উল্লেখ্য, সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর মেয়ের বিয়ে নিয়ে সপ্তাহখানেক ধরে আবারো ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। বিয়ে উপলক্ষ্য সরকারি স্টেডিয়াম ব্যবহার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউজের দেয়াল ভেঙে ও স্টেডিয়ামের ভেতরে অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ নিয়ে অনুষ্ঠানযজ্ঞের আয়োজন করে ফের বিতর্কিত হয়ে ওঠেন মন্ত্রী।
এর আগে শিশুদের অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে ধূমপান, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হয়ে মঞ্চে ঘুমিয়ে পড়া আর সাংবাদিকদের খবিশ বলে এমনিতেই মন্ত্রী মহসিন আলী দেশজুড়ে তুমুল বিতর্কের জš§ দিয়েছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া