adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘শেখ হাসিনা বিএনপির অ্যাসেট’

ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির ঢাকা মহানগরীর আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল বলেছেন, শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে রাখা আমাদেরই নৈতিক দায়িত্ব। কারণ শেখ হাসিনার একটি কথাতেই আমাদের অনেক ভোট বৃদ্ধি পায়। শেখ হাসিনা নিজেই বিএনপির ভোট ব্যাংক। তিনি বিএনপির জন্য অ্যাসেট। প্রয়োজনে আমরা শেখ হাসিনার নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত। আমাদের স্বার্থেই তাকে বাঁচিয়ে রাখা দরকার।
বিএনপি কখনো শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেনি দাবি করে সাপ্তাহিকের সঙ্গে সাক্ষাতকারে এক প্রশ্নের জবাবে সোহেল এসব কথা বলেন।
সোহেল বলেন, ‘২১ আগস্টের ঘটনা এ দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটি ঘৃণ্য অধ্যায়। আমি  কোনোভাবেই এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিতর্কে যেতে পারি না। কারণ শেখ হাসিনাকে হত্যা করে বিএনপি কোনোই রাজনৈতিক সুবিধা নিতে পারে না। এটি দলের তৃণমূল থেকে শীর্ষ নেতারাও মনে করেন। আমরা চাই এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক এবং জড়িতদের সঠিক বিচার হোক। 
ঢাকা মহানগর বিএনপি’র দায়িত্ব বিষয়ে অনুভূতি জানাতে গিয়ে সোহেল বলেন, দায়িত্বই মানুষকে দায়িত্ববান করে তোলে। আমি এর আগে ঢাকা মহানগর বিএনপির কোনো পদে ছিলাম না। এ কারণে নগরকেন্দ্রিক রাজনৈতিক নেতৃত্বের সঙ্গে আমার সম্পর্কটা সেইভাবে গড়ে ওঠার কথা নয়। ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের রাজনীতি থেকে আজকের দায়িত্বে আসা। যদিও গত নির্বাচনে আমি ঢাকার একটি আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলাম। সেই সুবাদে হয়তো নেতাদের সঙ্গে একটি সাংগঠনিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু একটি ইউনিটকেন্দ্রিক রাজনীতিতে নেতায় নেতায় যে সম্পর্ক বা নেতা-কর্মীদের মধ্যে যে সম্পর্ক, তা হয়তো পরিপূর্ণভাবে আমার ছিল না। দায়িত্ব নেয়ার পর গত এক মাসে আমি সেই সম্পর্কের দিকেই অধিক গুরুত্ব দিয়েছি। আমি ঢাকা মহানগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করার চেষ্টা করছি। আমি লক্ষ করছি, কর্মীরা আমাকে তাদের মাঝে পেয়ে বেশ উজ্জীবিত এবং সংগঠিত। কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে মনে হচ্ছে, তারা মন থেকে চেয়েছিল যে, আমি যেন এই দায়িত্বে আসি। 
কমিটির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসের সঙ্গে দ্বন্দ্বের বিষয়ে তিনি বলেন, দেখুন, মির্জা আব্বাস দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতা। তার রাজনৈতিক জীবনটাই আন্দোলন-সংগ্রামের। দলের জন্য তার অবদানের কথা আমার বলার অপেক্ষা রাখে না। আপনারা সবই জানেন হামলা, মামলা, জেল, জুলুম সহ্য করেই তার পথ চলা। অন্যদিকে আমার ক্ষুদ্র এই রাজনৈতিক জীবনটাও আন্দোলন-সংগ্রামের প্রাচীরে ঘেরা। দলের মঙ্গলই জাতির মঙ্গল, আমাদের মঙ্গল। এই কমিটমেন্ট থেকেই আমরা রাজনীতি করি। নতুন এই আহ্বায়ক কমিটি করার পর দ্বন্দ্বের বিষয়টি মিডিয়া ফলাও প্রকাশ করলেও আমি মনে করি আমাদের মধ্যে কোনো প্রকার দ্বন্দ্ব বা দূরত্ব নেই। মনে হয়েছে, কতিপয় গণমাধ্যম একটু অতিরিক্তই লিখেছে, যার কোনো ভিত্তি আছে বলে আমি মনে করি না।
বিএনপির মতো একটি বড় দলে কমিটি দিয়ে সবার মন জয় করা যায় না। কেউ মনক্ষুণœ হতেই পারেন। কিন্তু দেখতে হবে সময়, বাস্তব পরিস্থিতি। সামান্য দ্বন্দ্বে দল বা জাতির বৃহৎ স্বার্থ বিসর্জন দেয়ার সুযোগ নেই। আমরা মনেপ্রাণে এটিই বিশ্বাস করি। এই কমিটি হওয়ার পর যে সমালোচনা হয়েছে বা হচ্ছে, তা যেকোনো সময়ের চেয়ে ন্যূনতম বলে আমার মনে হয়েছে। আশা করি, কোনো প্রকার ভুল বোঝাবুঝি থাকলে তা নিজ দায়িত্ব বলেই দূর করতে পারব।
নতুন কমিটির কর্মপরিকল্পনা সম্পর্ক সোহেল বলেন, আওয়ামী লীগ পুরো রাজনীতিকেই ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলেছে। গণতন্ত্র হচ্ছে একটি প্রবহমান নদীর মতো। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার নাম করে এই গণতন্ত্র নামের নদীতে বাঁধ দিয়েছে। কিন্তু প্রবহমান নদীতে কোনো বাঁধই যে টিকতে পারে না, আওয়ামী লীগ তা ভুলে গেছে। এই বাঁধ ভাঙা কঠিন হতেই পারে। কিন্তু কোনো এক সময় ভাঙবেই। আমি মনে করি, জনগণ আওয়ামী লীগের দেয়া বাঁধ ভাঙার জন্য অপেক্ষমাণ। আমরা যদি চলমান আন্দোলনের সঙ্গে জনগণের সেই আবেগ-অনুভূতিকে সম্পৃক্ত করতে পারি, তাহলে বাঁধ ভাঙা সময়ের ব্যাপার মাত্র। তখন আর বিশেষ কোনো পরিকল্পনারও প্রয়োজন পড়বে না। জনগণের শক্তিই মূল পরিকল্পনা। এটি উপলব্ধি করার সময় এসেছে।
তিনি বলেন, অন্যায়ভাবে টিকে থাকা যায় না। আওয়ামী লীগ হয়তো ক্ষমতার স্বাদ নিতে গিয়ে অতীত অভিজ্ঞতার ভুলে ঘুমিয়ে আছে। জনগণই সেই ঘুম ভাঙাবে। কোনো স্বৈরশাসকই স্থায়ীভাবে টিকে থাকতে পারেনি। আওয়ামী লীগও টিকতে পারবে না। ভোটারবিহীন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রায় আট মাস হলো ক্ষমতায় আছে। কী তাদের অর্জন। দেশ-বিদেশ থেকে ধিক্কার আর ঘৃণা ছাড়া নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কিছুই পায়নি। আওয়ামী লীগের ভাষায়, বিএনপি নির্বাচনে না গিয়ে অনেক বড় ভুল করেছে বুঝলাম। কিন্তু আওয়ামী লীগ কী লাভ করল। আমি তো মনে করি, ভোটারভীতি এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিজেই নিজের সর্বনাশ করেছে। আওয়ামী লীগের হিসাব জনগণই মিটিয়ে দেবে। 
ঢাকাকেন্দ্রিক আন্দোলনের ব্যর্থতা সম্পর্কে সাবেক তুখোড় এই ছাত্র নেতা বলেন, এটি অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু আপনাকে বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে হবে। ঢাকার আন্দোলনকে ঠেকানোর জন্য সরকার এমন ন্যক্কারজনক শক্তি প্রয়োগ করেছিল, সা একটি ফ্যাসিস্ট, স্বৈরাচারী রাষ্ট্রেও হয় না। আন্দোলনে পুলিশ হিংস্র হয়ে গুলি চালিয়েছে। এতে করে সরকার আন্দোলন দমিয়ে সাময়িকভাবে টিকে থাকতে পারছে বটে, কিন্তু এ টিকে থাকা শুভবুদ্ধির পরিচয় নয়। আবারও আন্দোলন হবে এবং আওয়ামী লীগকেই তার খেসারত দিতে হবে। গত আন্দোলনে ঢাকায় আমাদের দুর্বলতা ছিল এবং সরকার অতিমাত্রায় নিপীড়ন চালিয়েছে বলে দৃশ্যত সফল হওয়া যায়নি।
ঈদের আগে সরকার পতনের এক দফা দাবিতে আন্দোলনের ঘোষণা দিলেন। বিক্ষোভ মিছিল করলেন গাজা ইস্যু নিয়ে। কেন এই দৈন্য? এমন প্রশ্নের জবাবে সোহেল বলেন, “নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মাধ্যমে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে আমাদের আন্দোলন চলমান। আমরা আন্দোলনের মধ্যেই আছি। চলমান আন্দোলনে যদি আরও প্রসঙ্গ এসে যায়, যেকোনো গণতান্ত্রিক দলের উচিত সে ব্যাপারে কথা বলা। ইসরায়েলি বর্বরতায় ফিলিস্তিনের শত শত মানুষ নিহত হচ্ছে। ইসরায়েলের এই বর্বরতার বিরুদ্ধে একটি মুসলিম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান পরিষ্কার নয়। আমরা তীব্র ঘৃণার সঙ্গে ইসরায়েলি হামলার নিন্দা জানাচ্ছি। এ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল খুবই যুক্তিসঙ্গত। একইভাবে সরকারের সম্প্রচার নীতিমালার প্রতিবাদ করছি। দেখুন, আজকের গণমাধ্যমের যে বিকাশ তা একদিনে হয়নি। গণমাধ্যমকর্মীদের নিরলস প্রচেষ্টার ফলে এই অবস্থায় দাঁড়িয়েছে। কিন্তু একটি অবৈধ সরকার জোর করে ক্ষমতায় থাকার জন্য গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চাইছে, আর আমরা চুপ করে বসে থাকব, তা হতে পারে না। ’৭২-এর পর আওয়ামী লীগ বাকশাল গঠনের নামে যেমন একদলীয়, স্বৈরশাসন জারি করেছিল, এখনও তা-ই করা হচ্ছে। বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে, আর সরকার বাংলাদেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এটি কোনোভাবেই বরদাস্ত করা যায় না।
আন্দোলন সম্পর্কে তিনি বলেন, আন্দোলন টাইম লাইন (সময়সীমা) ধরে হয় না। সময়ই সব বলে দেবে। সময় ধরে কথা বললেও সমস্যা, আবার না বললেও সমস্যা। আমরা চাই সরকারের শুভবুদ্ধির উদায় হোক। তা না হলে একটি গণমানুষের সরকার প্রতিষ্ঠায় যা করবার তার জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি।
সামনের আন্দোলন আবারো সহিংসতার দিকে যাবে কি না?-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা জনগণের প্রাণের দাবি নিয়ে আন্দোলন করছি। আমরা জ্বালাও-পোড়ানোর আন্দোলনে বিশ্বাস করি না। শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে জনগণকে আমরা বিচ্ছিন্ন করতে পেরেছি, এটিই সফলতা। সকল অশান্তির পেছনে কাজ করেছে সরকার। জনগণই অশান্তি দূর করতে বদ্ধপরিকর।
 
বিএনপির সাংগঠনিক দুর্বলতা সম্পর্কে এই নেতা বলেন, সংগঠনের মধ্যে কিছু কিছু সমস্যা আছে, আমি তা অস্বীকার করছি না। একটি বড় দলে এমন টানাপড়েন থাকবে, এটিই স্বাভাবিক। সাংগঠনিক দুবর্লতা থাকার পরও সারা দেশে যে আন্দোলন গড়ে উঠেছিল এর জন্য গোটা দেশবাসীকে সাধুবাদ জানাই। মানুষ ছোটখাটো সমস্যা ভুলে গিয়ে আমাদের ডাকে সাড়া দিয়েছিল। 
একটি স্বৈরাচারী সরকার ক্ষমতায় থাকার জন্য বন্দুকের ওপর নির্ভর করলে তখন কিইবা করার থাকে। সরকারের নির্মমতা আমাদের হতবাক করেছে। একটি সভ্য সমাজের মানুষ কোনোভাবেই এমন আচরণ প্রত্যাশা করতে পারে না। ক্ষমতায় থাকার জন্য যদি সরকার সকল বিধিব্যবস্থাই গ্রহণ করে তাহলে ক্ষমতা থেকে নামানোর জন্য আমাদেরও সে পথে হাঁটতে হবে। সরকার পতনের আন্দোলনে এবার সর্বোচ্চ শক্তি ব্যয় করা হবে। 
সরকারের সঙ্গে জামায়াতের আঁতাতের যে গুঞ্জন রয়েছে এ সম্পর্কে সোহেল বলেন, সরকারের সঙ্গে জামায়াতের আঁতাতের বিষয়টি পত্রপত্রিকায় প্রকাশ পাচ্ছে। আমরা জামায়াতের রাজনীতি করি না এবং জামায়াতও আমাদের রাজনীতি করে না। রাজনীতির মাঠে উভয়েরই একটি কৌশলগত জোট রয়েছে। জামায়াতের কৌশল জামায়াতই ঠিক করে থাকে। তবে আমি মনে করি না যে, জামায়াত সরকারের পাতানো ফাঁদে পা দেবে। কারণ আওয়ামী লীগ কারোরই বন্ধু হতে পারে না। আমরা একটি ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে যে নৈতিক আন্দোলন গড়ে তুলছি, জামায়াতও তার অংশীদার। জামায়াত সেখান থেকে বিচ্ছিন্ন হবে, এটি মনে করার কোনো কারণ নেই।
আগামীর পথচলায় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে সোহেল বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের কথা বলে নাগরিকের মৌলিক অধিকার হরণ করছে। দেশ ক্রমশই পিছনের দিকে যাচ্ছে। সম্প্রচার নীতিমালা, বিচার বিভাগের ওপর হস্তক্ষেপ সাম্প্রতিক অশুভ ইঙ্গিত। যারা সত্যে বিশ্বাসী, যারা সত্য বলে আসছেন তাদের হাত-পা বেঁধে ফেলেছে সরকার। আওয়ামী লীগ হচ্ছে, ‘গণতান্ত্রিক মাঠে মেষ বেশে নেকড়ের মতো। গণতন্ত্রের মুখোশ পরে আওয়াম লীগ স্বৈরতন্ত্রের সবই প্রতিষ্ঠা করতে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, এটি মনে করা আর ‘বিষধর সাপের সঙ্গে অন্ধকারে রাত কাটানো সমান।’ আওয়ামী লীগের ছোবল থেকে গণতন্ত্রকে, দেশকে রক্ষা করতে না পারলে জাতিকে চরম মূল্য দিতে হবে। এই বিপর্যয়ের কথা নেতা-কর্মীরা ইতোমধ্যেই উপলব্ধি করতে পেরেছেন বলে বিশ্বাস করি। আর এই উপলব্ধি থেকেই তারা আন্দোলনের ডাকে জাগবেন, সাড়া দেবেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া