adv
৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হাসিনা খালেদার তথ্য মিলবে জেনারেল মঈনের বইয়ে

নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী : বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় দুই নেত্রী একে অপরকে সন্দেহ করছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া হাসিনাকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ করেছেন। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও প্রধানমন্ত্রীর দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে ওই ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জড়িত ছিলেন। এই জন্য সেনানিবাসের বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছিলেন। তারেক রহমানকেও বাদ দেননি। বলেছেন, বিদ্রোহের দিন লন্ডন থেকে তারেক রহমানের প্রায় অর্ধশতাধিক টেলিফোন করেন। এই কারণে তিনি তার ভূমিকা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন। তারেকের ফোনের বিষয়ে অনুসন্ধান করার কথাও বলেন। 
বিশ্বস্ত একটি সূত্র জানায়, এই ঘটনায় দুই নেত্রী একে অপরকে যখন দোষারোপ করছেন ঠিক সেই সময়ে নতুন আরো একটি তথ্য বের হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে। সেটা করবেন ওই সময়ের সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) মঈন উ আহমেদ। বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনার পুরো ইতিহাস লিপিবদ্ধ করছেন সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল মঈন উ আহমেদ। তিনি সেখানে তুলে ধরার চেষ্টা করবেন বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনার বিভিন্ন দিক। সূত্র জানায়, ঘটনার পর বিডিআর বিদ্রোহের সময়ে সেনাবাহিনীর সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত একটি তদন্ত হয়েছিল ওই তদন্ত রিপোর্টেও ওই ঘটনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়েছিল। তবে ওই তদন্ত কমিটির কাজ করার অনেক সীমাবদ্ধতা ছিল।
তাদের তদন্তের গন্ডি এমনভাবে বেঁেধ দেয়া হয়েছিল যে এর বাইরে তারা অধিকতরও তদন্ত করতে পারেননি। তবে তারা যে রিপোর্ট দিয়েছিলেন ওই রিপোর্টের বাইরেও আরো অনেক তথ্য ছিল। ওই সব তথ্যের ভিত্তিতে অধিকতর তদন্ত করার কথাও বলা হয়েছিল। কিন্তু পরে আর সেটি হয়নি। 
এদিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি কমিটিও এই ঘটনায় তদন্ত করে। ওই তদন্ত রিপোর্টের প্রধান রিপোর্ট দেয়ার কিছু দিন পর বিদেশে চলে যান। ওই সময়ে ওই তদন্ত কমিটির রিপোর্ট স্বাক্ষর করতে চাননি কমিটির সদস্য একজন সেনা কর্মকর্তা। ওই সেনা কর্মকর্তা তদন্ত পূর্ণাঙ্গ না হওয়ার কারণে আরো তদন্ত হওয়ার প্রয়োজনের কথা তুলে ধরে রিপোর্টে স্বাক্ষর করতে আপত্তি করেন। পরে তাকে স্বাক্ষর করার জন্য বাধ্য করা হয়। কিন্তু ওই কর্মকর্তা অত সহজে বিষয়টি মেনে নেননি। তিনি তা মেনে নিতে না পারায় পরে রিপোর্টের উপরে নোট অব ডিসেন্ট লিখে স্বাক্ষর করেন। তারপরও তিনি বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি। তা নিতে না পেরে সেনাবাহিনীর চাকরি থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেন। তিনি বর্তমানে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে কর্মরত আছেন। তিনিও মনে করেছিলেন, ওই ঘটনায় অধিকতর তদন্ত করলে ওই ঘটনার পেছনের মূল ইন্ধনদাতারা সহ যারা পরিকল্পনা করেছেন তাদেরকে চিহ্নিত করা সম্ভব হতো। তিনি প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আরো অনেক তথ্য তুলে ধরার ও তদন্ত করার জন্য পরামর্শও দিয়েছিলেন কমিটিকে, তার সব কথা মেনে নিয়ে তা করা হয়নি। সংশ্লিস্ট সূত্র জানায়, দুটি তদন্ত কমিটিই আরো অধিকতর তদন্ত করলে আরো পেছনের কিছু বিষয় প্রকাশ হতো। মূল ইন্ধনদাতাদেরও বের করে বিচারের মুখোমুখি করা যেত।
তবে সরকার বিডিআরের ঘটনার তদন্ত রিপোর্টে সš‘ষ্ট। আর ওই রিপোর্টের ভিত্তিতেও মামলার তদন্ত কর্মকর্তার রিপোর্টের ভিত্তিতে ঘটনার বিচারও করেছে। তবে বিএনপি সন্তুষ্ট নয়। বেগম খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ এক উপদেষ্টা বলেন, বিডিআরের ঘটনা নিয়ে বিএনপি ভবিষ্যতে ক্ষমতাসীন হলে পুনরায় তদন্ত করে বিচারের ব্যবস্থা করবেন। ঘটনার পেছনের সবাইকে বের করে আনবেন। পুনরায় বিচারের কথা বেশ কয়েকবার খালেদা জিয়া তার ভাষনে ও বক্তৃতায় বলেছেন। 
সূত্র জানায়, বিডিআরের বিদ্রোহের ঘটনার সময়ে, ওই সময়ের আগের, বিদ্রোহ দমন, বিদ্রোহীদের সঙ্গে সমঝোতা, বিডিআরের বিদ্রোহ দমনে কেন সঙ্গে সঙ্গে অভিযান চালানো সম্ভব হয়নি, কেন সরকারের কাছ থেকে অভিযান পরিচালনার জন্য অনুমতি মিলছিল না, এরপর গেটে ও বিভিন্ন দিকে প্রস্তুতি নেয়ার পরও কেন অভিযান চালানো যায়নি সেই সম্পর্কে তার বইয়ে লিখেছেন জেনারেল মঈন। তখনকার সব ঘটনা লিপিবদ্ধ করেছেন জেনারেল মঈন ইউ আহমেদ। তিনি তুলে ধরেছেন আদ্যিপ্রান্ত। ওই সময়ে প্রায় সব ঘটনাই তিনি তুলে ধরছেন তার বইয়ে। তবে আদর্শ, শপথ ও নীতির কারণে সেনাবাহিনী কর্তৃক তদন্ত করা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক তদন্ত করা দুটি রিপোর্ট আনুষ্ঠানিকভাবে তার বইয়ে প্রকাশ করতে পারছেন না। চাকরি না থাকায় তা প্রকাশ করলে ও প্রকাশ করার নিয়ম না থাকায় তা প্রকাশ করলে এটা নিয়ে বিতর্ক উঠবে বলেই। তবে তা করতে না পারলেও বইয়ে বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন। 
জেনারেল মঈনের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, বেঁেচ থাকতেই জেনারেল মঈন বিডিআরের ঘটনার প্রকৃত ঘটনা, ওই সময়ে তার ভূমিকা, সীমাবদ্ধতা সহ বিভিন্ন বিষয় তার বাহিনীর সদস্যদের জানাতে চান। এই জন্য তিনি অসুস্থ’ থাকা সত্ত্বেও সব কিছু লেখার সিদ্ধান্ত নেন। পরিকল্পনা মোতাবেক কাজও শেষ করেছেন। 
এদিকে গতকাল প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিডিআরের ঘটনাটা শুরু হল, প্রায় সাড়ে নয়টার দিকে। তখন বিএনপির নেত্রী ক্যান্টনমেন্টের বাড়িতে থাকেন। উনার এত প্রিয় জায়গাটা ছেড়ে ঠিক সাড়ে সাতটা থেকে আটটার মধ্যে ওই বাড়িটা থেকে বের হয়ে তিনি আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে গিয়েছিলেন কেন? তিনি ওখান থেকে বের হয়ে কোথায় গেলেন, কোথায় ছিলেন? তার পুত্র লন্ডন থেকে মধ্যরাতে, লন্ডনের সময় মধ্যরাত, প্রায় একটা থেকে দুইটা এই সময় অনবরত ঢাকায় না হলেও ৪০ থেকে ৪৫ জনের কাছে টেলিফোন করেছেন, কথা বলেছেন। কেন? 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া