adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মুজিব অপহরণ : রহস্যের কেন্দ্রে গাড়িচালক

37640_f1ডেস্ক রিপোর্ট : যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব অপহরণের ঘটনায় এখন রহস্যের কেন্দ্রে ওঠে এসেছে গাড়িচালক রেজাউল হক সোহেলের নাম। সে অপহরণকারীদের সোর্স হিসেবে কাজ করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে মুজিবের ঘনিষ্ঠজনদের পক্ষ থেকে। অপহৃত অবস্থায় গাড়িচালক রেজাউল হক সোহেল কোথায় ছিল তা জানতেন না মুজিব। অপহরণকারীদের কাছ থেকে মুক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাকে দেখতে পান তিনি। মুক্ত হওয়ার পর বাড়িতে যাওয়ার কথা বলেও বাড়ি যায়নি সোহেল। গতকাল রাজধানীর গুলশান এলাকার একটি হোটেল থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
 অপহরণের শুরু থেকে এ পর্যন্ত রহস্যজনক আচরণ করেছে সে। তবে বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিবের দাবি, সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমেই যেন এই রহস্য উদঘাটন করা হয়। সূত্র জানায়, আজ বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব ও তার গাড়ি চালক সোহেলকে সুনামগঞ্জে আদালতে হাজির করা হবে। সেখানে তাদের জবানবন্দি গ্রহণ করা হবে। 
গতকাল বেলা ২টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতাল থেকে সুনামগঞ্জের উদ্দেশে যাত্রা করেন মুজিব। এ সময় সুনামগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেমায়েতুল ইসলাম ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশের কয়েকজন সদস্য তার সঙ্গে যান। ঢাকা থেকে সুনামগঞ্জ যাওয়ার পথে মুজিবের গাড়ির পেছনে নিরাপত্তার জন্য পুলিশের একটি গাড়ি ছিল বলে এএসপি হেমায়েত নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গুলশান থেকে সোহেলকে আটক করে পুলিশ। সূত্র জানায়, শুরু থেকেই সোহেলের আচরণ সন্দেহমূলক।
 উদ্ধার হওয়ার পর মুজিবের কাছ থেকে বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে ১০০০ টাকা নিয়ে গেলেও সে বাড়িতে যায়নি। জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকেও সে বিশ্বাসযোগ্য কোন তথ্য দেয়নি। এএসপি হেমায়েত জানিয়েছেন, বাড়িতে না যাওয়ার কারণ সম্পর্কে চালক সোহেল জানিয়েছে, ভয়ে সে বাড়িতে যায়নি। সিলেট থেকে সুনামগঞ্জের দুরত্ব ৬৮ কিলোমিটার। ঘটনার দিন সুনামগঞ্জ থেকে টয়োটা এলিয়ন গাড়িতে করে সিলেট যাচ্ছিলেন মুজিব। সোহেল গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছিল। এসময় পথে দু’বার সে গাড়ি থেকে নামে। প্রথমবার পাগলা ও দ্বিতীয়বার ঘটনা¯’লের কাছাকাছি লামাকাজী এলাকায়। লামাকাজী পার হয়ে টুকের বাজার এলাকায় পুলিশ গাড়ি তল্লাশি করছিল। সারাদিন রাজনৈতিক কর্মসূচি শেষে ক্লান্ত ছিলেন মুজিব। এসময় ঘুম ঘুম ভাব ছিল তার।
মুজিবকে পুলিশের তল্লাশির বিষয়টি চালক সোহেলই জানায়। মুজিব তখন বলেন, সমস্যা কিসের? তুমি চালিয়ে যাও। এর মধ্যেই চালক সোহেল আবার জানায়, পুলিশ গাড়ি থামাতে সঙ্কেত দিয়েছে। মুজিব বলেন, ঠিক আছে গাড়ি থামাও। এরপরেই ড্রাইভিং লাইসেন্স সংক্রান্ত ভুয়া দাবি করে চালক সোহেলকে নিয়ে যায় পুলিশ। অপহৃত হন মুজিব। তারপর প্রায় দীর্ঘ সাড়ে তিন মাস অপহৃত অবস্থায় থাকলেও চালকের কোন খোঁজখবর জানতেন না তিনি। গত সোমবার মুজিবকে গাজীপুর এলাকায় ফেলে যাওয়ার পর চোখ খুলেই সোহেলকে দেখতে পান মুজিব। দু’জনের পরনেই তখন অপহরণকারীদের পরানো বোরকা। তাৎক্ষণিকভাবে সিএনজি অটোরিকশা ভাড়া করে তারা টঙ্গিতে যান। পরে টঙ্গি থেকে গুলশান যান মুজিব। পথিমধ্যে মুজিবের কাছ থেকে ১০০০ টাকা নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে চলে যায় সোহেল। কিš‘ রহস্যজনকভাবে সে বাড়িতে না গিয়ে ঢাকাতেই আত্মগোপনে ছিল। অন্যদিকে তাকে আটক করতেও তেমন কোন বেগ পেতে হয়নি পুলিশকে।
গতকাল সকাল ১১টায় তাকে আটক করা হয়েছে। অপহরণের এই ঘটনার শুরু থেকেই সোহেলের আচরণ রহস্যজনক বলে মনে করছেন মুজিবের স্বজনরা। তবে পুলিশ মনে করছে জিজ্ঞাসাবাদেই সত্য বের হয়ে আসবে। চালক সোহেল সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারের মান্নারগাঁও ইউনিয়নের সাউদেরগাঁও গ্রামের আবদুল ওয়াহিদের ছেলে। তার পরিবার সুনামগঞ্জ শহরের উকিলপাড়া এলাকায় বসবাস করে। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে মুজিবুর রহমান মুজিবের চালক হিসেবে কর্মরত।
* তারেক রহমানের পরিকল্পনা জানতে চায় অপহরণকারীরা
যুক্তরাজ্যে অবস্থানকারী বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান সম্পর্কে নানা তথ্য চেয়ে মুজিবকে বেদম প্রহার করেছে অপহরণকারীরা। কিন্তু প্রতিবারই প্রবাসী বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব জানিয়েছেন তিনি তার সম্পর্কে কিছুই জানেন না। গতকাল দুপুরে ইউনাইটেড হাসপাতালে কথা হয় মুজিবের সঙ্গে। তিনি তার পোশাক খুলে পিঠ দেখান। শরীর জুড়ে লাঠির আঘাতের চিহ্ন। পিঠে অনেক কালো দাগ। একই ভাবে হাড়ের জোড়ায় জোড়ায়ও রয়েছে কালো দাগ। মুজিব জানান, তারা জানতে চাইতো বিএনপিকে নিয়ে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পরিকল্পনা কি, তিনি কি করতে চান। লন্ডনে কাদেরকে নিয়ে তিনি দলীয় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেন। তারেক রহমানের অর্থের উৎস সম্পর্কে জানার জন্য বেদম প্রহার করতো তারা।
অপহরণকারীরা বলতো, সত্য কথা না বললে তোকে মেরে ফেলা হবে। তারা তারেক রহমানের টাকার উতস সম্পর্কে জানতে চাইতো। তাকে দুর্নীতিবাজ বলে এ সংক্রান্ত তথ্য চাইতো। মুজিব একবার তাদের বলেছেন, আমাকে মেরে ফেললেও মিথ্যা বলবো না। অপহরণকারীদের সম্পর্কে তিনি বলেন, তারা প্রশিক্ষিত। অপহৃত অব¯’ায় মুজিবকে খাবার দেয়ার মধ্যেও ছিলো শৃঙ্খলা। দুই পিস মাংস দেয়া হতো। সেখানে কখনও তিন বা এক পিস হতো না। তারা প্রায়ই তাদের একজনকে স্যার বলে সম্বোধন করতো। এমনকি মাঝে মাঝে শোনা যেতো তারা একে অন্যকে বলছে, এই প্রস্তুত হও সিও স্যার আসছেন। এসময় বুট জুতার হাঁটার শব্দ পেতেন তিনি। মাঝে মাঝে মুজিবের চুল, দাড়ি কেটে দিতো তারা। মুজিবকে ছেড়ে দেয়ার আগেও তার চুল কেটে দিয়েছে অপহরণকারীরা। গতকাল মুজিবকে দেখতে হাসপাতালে যান ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি সানাউল হক নিরু, যুবদলের যুক্তরাজ্যের সাবেক সভাপতি মুকাদ্দেস নিয়াজ। এর আগে রাতে মুজিবকে দেখতে হাসপাতালে যান বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু। মা-জ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া