adv
১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মকবুল- কালো পোশাকে ৪০ বছর

ffffffffffffffffffffffffdsfaডেস্ক রিপোর্ট : দাড়ি-গোঁফ পেকে সাদা হয়ে গেছে। কপালে-চোয়ালে বয়সের ভাঁজ। ভাঁজে ভাঁজে লুকিয়ে আছে কালের ইতিহাস। নাম মকবুল হোসেন। জাতীয় পরিচয়পত্রে জšে§র সাল লেখা ২ জানুয়ারি, ১৯১৮। সেই হিসাবে বয়স হয়েছে ৯৬। তবে পরিবারের সদস্যদের দাবি, তা ইতিমধ্যে শতক পেরিয়েছে।
প্রথম দেখায় একই বয়সী আর দশজন থেকে তাঁকে আলাদা করে চেনা মুশকিল। তবে দৃষ্টি আটকে যায় পোশাকের দিকে তাকালে। গায়ে কালো রঙের পাঞ্জাবি, সঙ্গে একই রঙের পায়জামা। এ বয়সের একজন মানুষের পরনে কেন শোকের রং? কৌতূহল জাগে। এলাকার লোকজনকে জিজ্ঞেস করে জানা গেল, মকবুল হোসেন সব সময় কালো কাপড় পরেন। কিন্তু কেন? উত্তর শুনে বিস্ময়ের ঘোর কাটতে সময় লাগল। লোকজন জানাল, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর থেকেই কালো রঙের পোশাক পরছেন মকবুল। একটিবারের জন্যও তাঁর গায়ে অন্য কোনো রঙের কাপড় দেখা যায়নি। বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর ভালোবাসা থেকেই ৪০ বছর ধরে শোক পালন করছেন তিনি।
মকবুল থাকেন রাজধানীর শ্যামলী এলাকার একটি বস্তিতে। গত বুধবার তাঁকে পাওয়া গেল পশ্চিম আগারগাঁও এলাকার গোপাল চন্দ্রের সেলুন দোকানে। কথা হয় সেখানেই। আর কত দিন কালো পোশাক পরে থাকবেন- জানতে চাই। বললেন, ‘যত দিন বাঁইচ্যা থাকুম তত দিনই কালা পোশাক পরমু। জীবনে যে কষ্ট পাইছি সেইডা মরার আগে দূর হইবো না। তয় খুনিদের কয়েকজনের বিচার হওয়ার পর কষ্ট একটু কমছে। বাকি খুনিদের বিচার দেইখ্যা যাইতে পারলে মইরাও শান্তি পামু।’
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রসঙ্গ উঠতেই চোখ ছলছল করে ওঠে মকবুলের। অশ্র“ মুছতে মুছতে বলেন, ‘পকিস্তানিরা ৯ মাস বন্দি করে রাখলো, মারধর করলো, কিš‘ দুনিয়া থাইক্যা সরাইয়া দেওয়ার সাহস পায় নাই। অথচ আমাগো দেশের মানুষেই আমার নেতারে মারলো।’ ঘাতকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘তোরা কি নেতারে মাইরা পারছোস আমাগো মন থাইক্যা তারে মুইছ্যা দিতে? পারবি না, বঙ্গবন্ধু সারা বাংলাদেশের প্রাণ। এই প্রাণ যত দিন থাকবো তত দিন বঙ্গবন্ধু বাইচ্যা থাকবো। বঙ্গবন্ধুর সব কিছুই পাইছে শেখ হাসিনা। সে-ই পারবো এই দেশ থাইক্যা রাজাকারগো গুষ্টি তাড়াইতে।’
ততক্ষণে সেখানে স্থানীয় আরো কয়েকজন জড়ো হয়েছেন। তারা জানালেন, প্রতিবছর ১৫ আগস্ট এলেই বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে অঝোরে কাঁদেন মকবুল। মিলাদ পড়ে দোয়া করান। সময় হলেই ছুটে যান ধানম­ির ৩২ নম্বর বাড়িতে। শ্যামলীর বস্তিতে নিজের ঘরেও বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার সারি সারি ছবি সাঁটানো।
মকবুল প্রসঙ্গে গোপাল চন্দ্র শীল বলেন, ‘এক দিনের জন্যও তারে অন্য কোনো রঙের পোশাক পরতে দেখি নাই। বঙ্গবন্ধুর কথা উঠলেই কাঁদেন।’ ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার ঘটনার পরও রাস্তায় গড়াগড়ি দিয়ে কান্নাকাটি করেছেন জানিয়ে গোপাল বলেন, ‘২১ আগস্ট বিকেলে টেলিভিশনে আমরা খবর পাই, শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলা হইছে, হাসিনাসহ অনেক নেতা-কর্মী হাসপাতালে। মকবুল হোসেন আমার সেলুনেই বসা ছিলেন।
খবরটা শুনেই চিৎকার দিয়া ওঠেন। কাঁদতে থাকেন। ছুটতে ছুটতে চলে যান ধানম­ির আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে।’ স্থানীয় বাসিন্দা মোবারক হোসেন বললেন, ‘বঙ্গবন্ধু বলতে তিনি (মকবুল) পাগল। টেলিভিশনে পুরনো ছবি দেখলেই কাঁদেন।’ শেরে বাংলানগর থানা যুবলীগের নেতা শহিদুল আলম খান কাজল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর কঠিন ভক্ত তিনি (মকবুল)। শোকের পোশাকেই কাটিয়ে দিয়েছেন ৪০ বছর। আমাদের সঙ্গে দেখা হলেই বলেন, নেত্রীরে কও আমার নেতার খুনিদের বিদেশ থেকে ধইরা আইনা ফাঁসি দিতে। রাজাকারদেরও তারাতারি ফাঁসি দেও।’
মকবুলের আসল বাড়ি শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রামচন্দ্রকুড়া ইউনিয়নে। বঙ্গবন্ধুর প্রতি অগাধ ভালোবাসার কারণে সেই বাড়ি ছাড়তে হয়েছে। মকবুলের ভাষ্য মতে, ‘বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায় আওয়ার পর ২০০২ সালে সন্ত্রাসীরা বাড়িঘর আগুনে পুড়ায়া দেয়। পরিবারের সদস্যদের ওপর নির্যাতন চালায়। তারপর পালায়া ঢাকায় চইলা আসি। এহন বস্তিতে থাকি। ছেলে নিজাম বস্তির সামনে চায়ের দোকান করে। দুইডা মেয়ে আছে। বিয়া দিছি। ওরা খোজ-খবর রাহে। এলাকার লোকজনেও খোজ নেয়। কাপড়চোপড়ও দেয়। তয় সব কালো রঙের।’
পাশেই বসে ছিলেন স্থানীয় যুবক সাইদুল ইসলাম। বললেন, ‘নানা, তুমি না সামনে থেকে এক নজর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখতে চাও, এটা সাংবাদিকরে কও।’ সাইদুলের কথা শুনে ঘোলাটে চোখ দুটি উজ্জ্বল হয়ে ওঠে মকুবলের। বলেন, ‘মরার আগে কি মায়ের (শেখ হাসিনা) সঙ্গে একটু দেখা মিলবো আমার? সেই সুযোগ পাইলে কিছুই বলতাম না, খালি মন ভইরা এক নজর দেখতাম, আর প্রাণ ভইরা দোয়া করতাম। আল্লায় তারে বাচাইয়া না রাখলে এই দুখি বাংলার মানুষের জন্য কে কথা বলতো?’ কা/ক

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া