adv
২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আনন্দবাজার পত্রিকার রিপোর্ট – ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়তে ভারতীয় বিশেষজ্ঞ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশে তথ্য ও প্রযুক্তি উন্নয়নে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ কারণে তার ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়ার শ্লোগান এখন সাধারণ মানুষের মুখে মুখে। এ কাজে এবার বড় দায়িত্ব পালন করবেন কোলকাতার এক তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ। রোববার ভারতের প্রথম শ্রেণীর বাংলা পত্রিকা আনন্দবাজার এ খবর জানিয়েছে।‘ডিজিট্যাল বাংলাদেশ, ডাক কলকাতার বিশেষজ্ঞকে’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের উন্নতিতে বিশ্বব্যাংক যে ৭ কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে এবং এই কাজে তারা উপদেষ্টা হিসেবে বেছে নিয়েছে কলকাতার শিল্পোদ্যোগী বিক্রম দাশগুপ্তকে। এই বিশেষজ্ঞ সল্টলেকের সেক্টর ফাইভে গ্লোবসিন গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা বলে প্রতিবেদন থেকে জানা যায়। তাঁরই পরিকল্পনার ফসল সেক্টর ফাইভের তথ্যপ্রযুক্তি হাব ‘ইনফিনিটি’।
শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসেই তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর একটি আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার ডাক দেন যা ডিজিটাল বাংলাদেশ নামেই অধিক পরিচিত। তিনি এই কাজে নেতৃত্ব দেবার জন্য বেছে নেন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী পুত্র কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ সজীব ওয়াজেদ জয়কে । নিজের তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবেও জয়কে নিয়োগ করেন প্রধানমন্ত্রী হাসিনা। এরপর থেকে গত ছয় বছরে তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে লক্ষণীয় উন্নতি করেছে বাংলাদেশ। আনন্দবাজারের ভাষায়,‘ইন্টারনেট ব্যবহার এখন ও দেশের ঘরে ঘরে। খরচও আগের তুলনায় অনেকটাই কমে গিয়েছে। শহরে তো বটেই, গ্রামের স্কুলগুলিতেও কম্পিউটার প্রশিক্ষণের পরিকাঠামো গড়া হয়েছে। একের পর এক শহরকে আনা হচ্ছে ওয়াইফাইয়ের ছত্রচ্ছায়ায়।’
তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের এই উন্নতিকেই স্বীকৃতি দিয়েছে বিশ্বব্যাঙ্ক। একটি রিপোর্টে বিশ্বব্যাঙ্ক জানিয়েছে, এই ক্ষেত্রে বিপুল বিদেশি মুদ্রা আয়ের সুযোগ রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার এই উন্নয়নশীল দেশটির। এই মুহূর্তে বাংলাদেশে তৈরি পোশাক বিশ্বের সব উন্নত দেশে পরিচিত। তৈরি পোশাক রপ্তানি করেই সব চেয়ে বেশি ডলার আয় করে বাংলাদেশে। এরই পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ভাল বাজার পেতে পারে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যও। তার জন্য সবার আগে প্রয়োজন উপযুক্ত প্রশিক্ষণ পাওয়া এক ঝাঁক কর্মীর, যারা আন্তর্জাতিক বাজারের চাহিদা অনুযায়ী সফ্টওয়্যার ও অন্য পণ্য উতপাদন করতে পারবে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যের একটি ব্র্যান্ডিংও প্রযোজন। ঋণ দেওয়ার পাশাপাশি এই দুই কাজ করার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট প্রকল্পের রূপরেখাও তৈরি করে দিয়েছে বিশ্বব্যাঙ্ক। আর সেই প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব এখন তুলে দেওয়া হয়েছে কোলকাতার বিক্রমবাবুর হাতে।
বাংলাদেশ সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, ‘বিশ্বব্যাঙ্কের এই প্রকল্প এ দেশে তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের বুনিয়াদ গড়ে দিতে পারে। বিদেশি মুদ্রা আয় তো একটা দিক, সব চেয়ে বড় কথা বাংলাদেশে এই শিল্পের বিকাশ হলে হাজার হাজার শিক্ষিত তরুণ-তরুণী হাতে কাজ পাবে।’ ওই কর্মকর্তা আরো জানান,বিদেশি তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা যেমন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আসবে, তেমন বাংলাদেশের দক্ষ কর্মীরাও অন্য দেশে কদর পাবে।  এই প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকার খুবই আন্তরিক। বাংলাদেশের শিল্প সূত্রের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি আরো বলছে,বিভিন্ন দেশের বহু দক্ষ ও পরিচিত তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ এই প্রকল্পের দায়িত্ব নিতে বিশ্বব্যাঙ্কের কাছে আবেদন করেছিলেন। তবে অনেক যাচাই বাছাইয়ের পরে বিক্রম দাশগুপ্তকে বেছে নিয়েছে বিশ্বব্যাঙ্ক।
বিশ্বব্যাঙ্কের এই প্রকল্পের আওতায় আগামী আড়াই বছরে বাংলাদেশের প্রায় ৩৮ হাজার ছেলেমেয়েকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। আন্তর্জাতিক মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে সেই প্রশিক্ষক সংস্থা বাছাই করবেন স্বয়ং বিক্রম দাশগুপ্ত। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের প্রচার ও বিপণনের নীতি নির্ধারণেও পরামর্শ দেবেন তিনি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ঢাকা চায় মাইক্রোসফট, গুগলের মতো নামী বহুজাতিক তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাগুলি সে দেশে অফিস খুলুক। এই প্রকল্পে সেই কাজের দায়িত্বও আমাকেই দেওয়া হয়েছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া