adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

‘সাংবাদিকরা চরিত্রহীন, বদমাশ, লম্পট ওরা আমার কিছুই ছিড়তে পারবে না’ (ভিডিও)

sssডেস্ক রিপোর্ট : সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী সাংবাদিকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছেন। তার আচরণ আর কথাবার্তা শুনলে মনে হবে সাংবাদিকরা তার সতীন। সতীনের সঙ্গেও বড় বউ এতোটা খারাপ আচরণ করে না। 
তিনি বলেন,‘সাংবাদিকরা চরিত্রহীন, বদমাশ, লম্পট পাঁচ টাকা দিলেই ওদের কেনা যায়। সাংবাদিকদের ঠিক করতেই নীতিমালা হয়েছে।
শনিবার সন্ধ্যায় আদিবাসী দিবস উপলক্ষে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে  শুরুতেই সাংবাদিকদের আক্রমণ করে এসব ভাষায় বক্তব্য শুরু করেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী।
মঞ্চে ওঠেই তিনি মাইক নিয়ে সাংবাদিকদের অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগের নির্দেশ দেন। কিন্তু পেশাগত দায়িত্ব পালনে সাংবাদিকরা সেখানে থেকে চলে গেলে বক্তৃতার সময় তিনি অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।
মন্ত্রী বলেন, সাংবাদিকদের এখন এমনভাবে ঠিক করা হবে যাতে নিজের স্ত্রীকে পাশে নিয়েও শান্তিতে ঘুমাতে পারবে না।
বক্তব্য চলাকালে সমাজকল্যাণমন্ত্রীর শিষ্টাচার বর্হিভূত এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন উপস্থিত কিছু সাংবাদিকরা। এসময় অনুষ্ঠানস্থলে হট্টগোল শুরু হলে মহিলা সাংসদ কেয়া চৌধুরী ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী সাংবাদিকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন।
কিন্তু সমাজকল্যাণমন্ত্রী তার অশ্লীল বক্তব্য চালিয়ে গেলে সাংবাদিকরা অনুষ্ঠান বয়কট করে চলে আসেন। বক্তব্যের শুরুতে সাংবাদিকদের ছবি তুলে অনুষ্ঠানস্থল থেকে চলে যেতে বলে সমাজকল্যাণমন্ত্রী।
একটি জাতীয় দৈনিকের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজ ওই পত্রিকা লিখেছে তারা আমাকে লাল পানি খাওয়াবে। ওই পত্রিকা আমাদের গর্ব অর্থমন্ত্রী সম্পর্কেও আজেবাজে লিখেছে।
মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা আমাকে ডেকে বলেছেন হাসানুল হক ইনু ১৪ দলের নেতা, আর তুমি আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা। সাংবাদিকরা যা ইচ্ছে লেখুক, তাতে কিছু যায় আসে না। তুমি চালিয়ে যাও।
সাংবাদিকরা অল্পশিক্ষিত উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমার মেয়ে সাংবাদিকতায় মাস্টার্স। আর যারা পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে লেখালেখি করে তারা দু’এক কলম পড়ালেখা করেছে। আমি বলি একটা, তারা লিখে আরেকটা। দুই টাকা খেয়ে তারা আমার .. (অকথ্য শব্দ) দিয়ে বাঁশ ঢুকাতে চায়। আমার শ্বশুর বাড়ি সিলেটে। সাংবাদিকদের পেছনে সিলেটের মানুষ লেলিয়ে দিতে আমার সময় লাগবে না। সাংবাদিকরা আমার .. (অকথ্য শব্দ) ছিঁড়তে পারবে না।
আদিবাসী নেতা গৌরাঙ্গ পাত্রের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন-  জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, নারী সাংসদ কেয়া চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, আদিবাসী নেতা একে শেরাম প্রমুখ।

https://www.youtube.com/watch?v=9Lk-Vdb3qo4

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া