adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্রিসে রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

download (42)ডেস্ক রিপোর্ট : গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক গ্রিক নারী অভিযোগ করে বলেছেন, তিনি গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মোহাম্মদের দ্বারা একাধিকবার যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা গতকাল বলেছেন, গোলাম মোহাম্মদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আমাদের হাতে পৌঁছেছে এবং শিগগিরই এ ব্যাপারে একটি তদন্ত টিম গ্রিসে পাঠানো হবে। নৌ পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: খুরশেদ আলমের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত টিম চলতি মাসেই গ্রিস সফর করবে।
সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যাপক আর্থিক অনিয়ম ও যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগে কমপক্ষে ৪ জন রাষ্ট্রদূতকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সর্বশেষ গতমাসে লেবাননে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত এএফএম গাওসুল আযম সরকারকে দূতাবাসের কার্যক্রম যথাযথভাবে পরিচালনায় ব্যর্থতার অভিযোগে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রিসে অভিবাসন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থায় কর্মরত বাংলাদেশি বংশদ্ভূত এই মহিলার অভিযোগ, তার স্বামী যখন দেশের বাইরে অবস্থান করতো তখন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গোলাম মোহাম্মদ তাকে অশ্লীল প্রস্তাব করে। তিনি আরো অভিযোগ করেন, আমন্ত্রণ পেয়ে তিনি রাষ্ট্রদূতের বাসায় গেলে তাকে যৌন হয়রানির শিকার হতে হয়। ঐ সময় গোলাম মোহাম্মদের স্ত্রী গ্রিসে ছিলেন না। ঘটনার পর তিনি তার কর্মক্ষেত্র আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার প্রধানের কাছে এক চিঠিতে ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরেন। 
পরে সংস্থার পক্ষ থেকে এর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে ঐ চিঠি পাঠিয়ে দেয়া হয়। চিঠিতে যৌন হয়রানির শিকার ঐ মহিলা বলেন, তিনি যখন রাষ্ট্রদূতের এই অশ্লীল প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করছিলেন তখন তাকে বড় ধরনের বিপদে ফেলার হুমকি দেয়া হয়। তবে এই ঘটনার ব্যাপারে গোলাম মোহাম্মদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ বিষয়ে গঠিত তদন্ত টিম গ্রিস সফর করলেই প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে। তিনি বলেন, এরআগেও অমি একই ধরনের অভিযোগের সম্মুখিন হয়েছিলাম। কিন্তু পরে এই অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি।
এর আগে জাপানের টোকিওতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে কর্মরত এক জাপানি মহিলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত একেএম মুজিবুর রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। তার আগে, উজবেকিস্তানে নিযুক্ত সাবেক রাষ্ট্রদূত হাসিব আজিজ প্রচলিত আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতিকে না জানিয়ে এক উজবেক মেয়েকে বিয়ে করার অভিযোগে তাকে বাধ্যতামূলক অবসরে যেতে হয়। ফিলিপাইনে নিযুক্ত সাবেক রাষ্ট্রদূত মাজেদা রফিকুন্নেসার বিরুদ্ধে ব্যাপক আর্থিক অনিয়মের অভিযোগে তাকে ওএসডি করা হয়। পরে দুর্নীতি দমন কমিশন তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।
নিউইয়র্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের কাউন্সিল জেনারেল মোহাম্মদ শামসুল হকের বিরুদ্ধেও ব্যাপক আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। বর্তমানে দুদকে তার বিরুদ্ধে মামলা চলছে। মন্ত্রণালয়ের এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে শত শত ভালো অফিসার থাকলেও গুটিকয়েকজন অসত কর্মকর্তার জন্য মন্ত্রণালয় ও দেশের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুণœ হচ্ছে। 
ঢাকা ট্রিবিউন

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া