adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

স্ত্রী হত্যার অভিযোগে সাংবাদিক পান্না বালা কারাগারে

ডেস্ক রিপোর্ট : যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে দৈনিক প্রথম আলোর ফরিদপুর অফিস প্রধান পান্না বালাকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
শুক্রবার রাত ১০টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ওসি সৈয়দ মোহসিনুল হক জানান। শনিবার দুপুরে তাকে ফরিদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মৃত্যুঞ্জয় মিস্ত্রির নির্দেশে জেলহাজতে পাঠানো হয়।
পান্না বালার আইনজীবী আলী আশরাফ নান্নু বলেন, আমরা আদালতে জামিনের জন্য আবেদন জানিয়েছি, রোববার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে এ বিষয়ে শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন আদালত।
শুক্রবার সকালে শহরের ঝিলটুলী এলাকার গৌরাঞ্জলি বালা ভবন থেকে পান্না বালার স্ত্রী জয়ন্তী সরকারের (৩৭) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই দিন সন্ধ্যায় নিহতের বড় ভাই মনোজ সরকার থানায় একটি হত্যা মামলা  করেন। মামলায় তার বোনকে হত্যার জন্য পান্না বালা, তার মা অঞ্জলি বালা ও বোন তৃপ্তি বালাকে আসামি করা হয়েছে বলে ওসি জানান।
মামলায় বলা হয়েছে, জয়ন্তীর সঙ্গে ১১ বছর আগে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার খাসিয়া ইউনিয়নের ব্রাহ্মণপাটনা গ্রামের সুরেন্দ্রনাথ সরকারের মেয়ে জয়ন্তীর সঙ্গে পান্না বালার বিয়ে হয়। সংসারে কস্তুরী বালা (১০) নামে তাদের একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে শ্বশুর বাড়ির লোকজন যৌতুকের দাবিসহ নানা অজুহাতে জয়ন্তীর ওপর অত্যাচার করে আসছিল। স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে হত্যা করে মৃতদেহ ঝুলিয়ে রেখেছিল বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।
পান্না বালা বলেন, যৌতুক চাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। বিয়ের সময়ও আমি এ নিয়ে কোনো কথা বলিনি। আমার পরিবার সব সময় যৌতুকের বিরুদ্ধে।
তিনি বলেন, শুক্রবার সকাল সাতটার দিকে ঘুম থেকে জেগে স্ত্রীকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেই পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে বিষয়টি জানিয়েছি। পরে পুলিশ এসে মরদেহ নামিয়েছে। তারা সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেছে। এরপর ময়নাতদন্ত হয়েছে। সুতরাং পুলিশই সব বলতে পারবে।
স্ত্রীর আত্মহত্যার কারণ প্রসঙ্গে পান্না বালা বলেন, আমাদের মধ্যে কোনো দাম্পত্য কলহ ছিল না। তবে সে (জয়ন্তী) একটু জেদি প্রকৃতির ছিল। মেয়ে ঠিকমতো লেখাপড়া না করায় সে হতাশ ছিল। এ ছাড়া আর কিছুই জানি না।
মামলার তদন্ত কর্মকতা ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার এস আই মাসুদ রানা বলেন, সুরতহাল প্রতিবেদন অনুযায়ী মৃতদেহের থুতনির নিচে অর্ধচন্দ্রাকৃতির হালকা দাগ রয়েছে। এর নিচে গলায় গভীর বৃত্তাকার দাগ রয়েছে। এছাড়া হাতের আঙুলগুলো সামান্য নীল ছিল। ঝুলন্ত অবস্থায় মৃতদেহের নিচে একটি চেয়ার উল্টানো অবস্থায় পাওয়া গেছে।
তিনি বলেন, মৃতদেহের ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর আমরা এ মৃত্যুর রহস্য বের করতে পারব।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া