adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মিলন হত্যা ৩ বছর পূর্তি আজ – ভাবমূর্তি রক্ষায় ‘আপস’ চায় পুলিশ!

ছবি: সংগৃহীতডেস্ক রিপোর্ট : নোয়াখালীতে পুলিশের সহায়তা ও উপস্থিতিতে ডাকাত সাজিয়ে কিশোর সামছুদ্দিন মিলন (১৬) হত্যার তিনবছর পূর্তি আজ রোববার।
২০১১ সালের ২৭ জুলাই কোম্পানীগঞ্জের চর কাঁকড়া ইউনিয়নের রহিমারটেক এলাকায় ডাকাত সাজিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয় মিলনকে।
অপরদিকে, মিলন হত্যায় পুলিশের ভাবমূর্তি রক্ষায় মিলনের পরিবারের সঙ্গে আপস করতে চায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আদালত তিন বছরে মোট ৫৫ বার পুলিশকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বললেও ‘রহস্যজনক’ কারণে জমা দেয়নি বলে অভিযোগ করেছে মিলনের পরিবার। তবে পুলিশের বিরুদ্ধে পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদন বলে কালক্ষেপণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
একই সঙ্গে মামলায় অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তারা সপদে বহাল থেকে মামলা তুলে নিতে নানাভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। হত্যার বিচারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে মিলনের বাবা মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘আজ তিনটা বছর পার হয়েছে, ছেলে হত্যার বিচার পাইনি। দোষী যেই হোক, আমি তার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাই।’ সাংবাদিক শুনেই মিলনের মা কোহিনুর বেগম হাউমাউ করে কাঁদতে থাকেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘আদালত এ পর্যন্ত ৫৫ বার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে। কিন্তু কে শোনে কার কথা!
তিনি আরো বলেন, ‘কয়েকশবার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জেরা করেছে। আদালত আর পুলিশের কাছে যেতে যেতে পা ক্ষয় হয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে বলে আমাকে হয়রানি করছে। মামলা চালাতে গিয়ে আমি নিঃস্ব হয়ে গেছি। তিনি ও বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
ক্ষোভ প্রকাশ করে কোহিনুর বেগম বলেন,‘মিলন মারা যাওয়ার পর মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বাড়িতে এসে ছেলে হত্যার বিচার ও আমার তিন ছেলের লেখাপড়ার দায়িত্ব নেবে বলেন আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু মন্ত্রী একবারও খবর নেন না। 
তিনি বলেন, এ মামলার পেছনে আমার সহায় সম্পত্তি সব হারিয়ে ফেলেছি। সাহায্য না করুক অন্তত প্রধানমন্ত্রীকে বলি, যেন আমার ছেলে হত্যার বিচারের ব্যবস্থা করে দেন।
মামলার আইনজীবী গিয়াস উদ্দিন বাবুল হতাশা প্রকাশ করে বাংলানিউজকে বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে টালবাহানা করছে পুলিশ। আসামিরা জামিনে এসে বাদীকে হুমকি দিচ্ছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ঘটনায় পুলিশ জড়িত বলে প্রতিবেদন দিতে বিলম্ব করছে পুলিশ। আদালতের নির্দেশ পর্যন্ত মানছে না। 
ন্যায় বিচারের স্বার্থে মামলার প্রতিবেদন দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।
এ বিষয়ে নোয়াখালী পুলিশ সুপার (এসপি) ইলিয়াস শরীফ বলেন, ‘এটি স্পর্শকাতর মামলা। তদন্ত বিষয়ে কিছুটা বিতর্ক থাকাতে প্রতিবেদন দিতে দেরি হচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘বাদী যাতে বিচার পান এবং হয়রানির শিকার না হন, সে জন্য প্রতিবেদন দিতে একটু দেরি হচ্ছে। পুরো মামলা গুছিয়ে নেওয়া হয়েছে। অল্পদিনের মধ্যেই মামলা শেষ হবে।’
২০১৩ সালের ২৭ জুলাই নোয়াখালীর তৎকালীন পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান তিন মাসের মধ্যে চার্জশির্ট দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মামলায় অভিযুক্ত কোম্পানীগঞ্জ থানার সে সময়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিক উল্লাহ বর্তমানে নোয়াখালী পুলিশ লাইনে কর্মরত। 
উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আকরাম শেষ খুলনা রেঞ্জ ও দুই কনস্টেবল আবদুর রহিম ও হেমারঞ্জন চাকমা নোয়াখালীর দুটি থানায় কর্মরত রয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালের ২৭ জুলাই সকালে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চর কাঁকড়া ইউনিয়নের রহিমার টেক এলাকায় ডাকাতি হয়।
পরে এলাকাবাসীর গণপিটুনিতে পাঁচ ডাকাত ও ডাকাতের গুলিতে এক ব্যবসায়ীসহ সাতজন মারা যান। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মিলন খালাতো বোন চুমকির সঙ্গে চর কাঁকড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা করতে যায়। 
পরে ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন, মহিলা ইউপি সদস্য ফেরদৌস আরা বেগম মায়ার স্বামী নিজাম উদ্দিন মানিকসহ স্থানীয়রা সন্দেহজনকভাবে মিলনকে বেদম মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশ মিলনকে পিকআপভ্যানে করে দুই কিলোমিটার দূরে নিয়ে ডাকাত সাজিয়ে উত্তেজিত জনতার হাতে ছেড়ে দেয়। পরে উত্তেজিত জনতা মিলনকে পিটিয়ে হত্যা করে। 
হত্যার পর পুলিশ মিলনকে ডাকাতি মামলায় আসামি করে। ২০১১ সালের ৩ আগস্ট মিলনের মা কোহিনুর বেগম নোয়াখালী ২ নম্বর আদালতে একটি হত্যা দায়ের করেন।  পরে হত্যাকাণ্ডের ভিডিওটি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে প্রচারিত হলে পুলিশ প্রশাসনের টনক নড়ে। 
একই সঙ্গে ঘটনার তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার আলী হোসেন ও ডিবি পুলিশ ওসি বিল্লাল হোসেনের সমন্বয়ে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।
৮ আগস্ট তদন্ত কমিটি হত্যাকাণ্ডের প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওসি, এসআই ও দুই কনস্টেবলকে বরখাস্ত এবং তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থার সুপারিশ করেন।
এরপর পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে ওসি, এসআই ও দুই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়। 
মামলার তদন্তে ডিবি পুলিশের তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেনকে দায়িত্ব দেওয়ার একবছর পরও তিনি এ মামলার চার্জশিট দেননি। ওসি নয় আসামিকে গ্রেফতার করার পরও ছেড়ে দেন। একই সঙ্গে হত্যার একবছর পর মামলা শেষ না হলেও চার পুলিশ কর্মকর্তাকে রহস্যজনক কারণে সপদে বহাল করে বদলি করা হয়। বা-নি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া