adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মির্জা আব্বাসের দুর্নীতির মামলা আবার সচল হচ্ছে – গ্রেফতার হতে পারেন

2_126691ডেস্ক রিপোর্ট : তেজগাঁও শিল্প এলাকার প্লট বরাদ্দে অনিয়ম ও রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত এলাকায় সরকারের ১৮টি বাড়ি পাতানো দরপত্রের মাধ্যমে বিক্রিসংক্রান্ত দুর্নীতির মামলা আবার চালুর উদ্যোগ নিচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলার কার্যক্রমের ওপর মির্জা আব্বাসের পক্ষে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ আপিল বিভাগ থেকে প্রত্যাহার হওয়ায় এর কার্যক্রম চলতে এখন আর বাধা নেই। বিশেষ জজ আদালত-৩-এ বিচারাধীন মামলাটির সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে আগস্টে।
এ ছাড়া সম্পদের তথ্য গোপন, প্লট বরাদ্দে অনিয়মসহ দুটি মামলার কার্যক্রমও শুরু করছে দুদক। দুদক সূত্র জানায়, সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী মির্জা আব্বাসের বিরুদ্ধে দুদক তিনটি মামলা দায়ের করে। এর মধ্যে আলোচিত হচ্ছে ১৮টি সরকারি বাড়ি বিক্রি করে দেয়ার মামলা। এ মামলায় মির্জা আব্বাস এবং ততকালীন গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব এসএম জাফর উল্লাহ ও শহীদুল ইসলাম খান ২০০৭ সালে গ্রেফতার হন এবং কারাভোগও করেন।
মির্জা আব্বাসসহ সংশ্লিষ্ট ২৪ জনকে আসামি করে দেয়া অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা পরস্পর যোগসাজশে পাতানো দরপত্রের মাধ্যমে রাজধানীর অভিজাত এলাকায় পরিত্যক্ত ১৮টি সরকারি বাড়ি পানির দরে বিক্রি করে দেন। এতে রাষ্ট্রের প্রায় ১২৮ কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। এর মাধ্যমে তারা দুদকের তফসিলভুক্ত দ-বিধির ৪০৯/১০৯ এবং ১৯৪৭ সনের ২নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ৫(২) ধারায় অপরাধ করেছেন।
২০০৭ সালের ২৯ মার্চ দুদকের সহকারী পরিচালক শফিউল আলম বাদী হয়ে রমনা থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ১২ জনকে আসামি করা হলেও অনুসন্ধানে আরও ১২ জনের সংশ্লিষ্টতা বেরিয়ে আসে। ফলে মোট আসামির সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪ জনে। দুদকের উপসহকারী পরিচালক রেজাউল হাসান তরফদার চার্জশিট দাখিল করেন।
দুদক সূত্র জানায়, চারদলীয় জোট সরকার আমলে ঢাকা মহানগর বিএনপির নবগঠিত কমিটির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসের দুর্নীতি ছিল প্রকাশ্যে ও বেপরোয়া মাত্রার। ওয়ান-ইলেভেন-পরবর্তী সরকারের করা দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনীতিকদের তালিকায় এক নম্বরে উঠে আসে মির্জা আব্বাসের নাম। গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী থাকাকালে সরকারি মালিকানাধীন প্লট নামমাত্র মূল্যে বরাদ্দ, অর্পিত সম্পত্তি (অ্যাবান্ডেন্ড প্রপার্টি) বিক্রি, রাজউকের প্লট বরাদ্দে অনিয়ম, বিধিবহির্ভূত নকশা অনুমোদন, বিক্রয় অনুমোদন প্রদানসহ বিভিন্নভাবে হাতিয়ে নেন কোটি কোটি টাকা। সে সময় গণমাধ্যমে তার হরিলুটের বহু কাহিনী প্রকাশিত হয়। যে ক’জন মন্ত্রীর কারণে চারদলীয় জোট সরকার দুর্নীতির অভিযোগে কলংকিত হয় মির্জা আব্বাস অন্যতম। জনমনে তখন সরকার সম্পর্কে দুর্নীতির নতুন ধারণার সূচক সঞ্চার করেন মির্জা আব্বাস। এ ধারণা থেকে ওয়ান-ইলেভেন-পরবর্তী সরকার দুর্নীতিবাজ রাজনীতিকদের সম্পদবিবরণী চেয়ে তালিকা প্রকাশ করে। এ তালিকার প্রথম নামটি ছিল মির্জা আব্বাসের।
সূত্র জানায়, প্রথম ঘোষিত ৫০ দুর্নীতিবাজের তালিকা প্রকাশ করে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সম্পদবিবরণী দাখিলের নির্দেশ দিলে মির্জা আব্বাসও একটি বিবরণী দাখিল করেন দুদকে। তাতে তিনি ২৫ কোটি ৮ লাখ ৬৮ হাজার ৩৬৩ টাকার সম্পদ রয়েছে বলে জানান। ওই বিবরণীর ওপর ভিত্তি করে দুদকের প্রাথমিক অনুসন্ধানে ৩৩ লাখ ৪৮ হাজার ৫৮১ টাকার সম্পদের তথ্য বেরিয়ে আসে। ২০০৮ সালের ১৮ আগস্ট দুদকের সহকারী পরিচালক মোঃ শফিউল আলম বাদী হয়ে মির্জা আব্বাস ও তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাসের বিরুদ্ধে রাজধানীর রমনা থানায় মামলা করেন। মামলার চার্জশিট দাখিল, আমলে নেয়া, আদালত পরিবর্তনসহ বিভিন্ন পদক্ষেপের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে রিট করেন মির্জা আব্বাস। এর পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট দুদকের প্রতি রুল জারি করলেও সম্প্রতি এ রুল খারিজ হয়ে গেছে বলে জানায় দুদকের আইন শাখা। ফলে এ মামলার বিচার কার্যক্রম চলতে আর কোনো বাধা নেই।
২০০২ সালের ১৬ জুন থেকে ২০০৬ সালের ১০ অক্টোবর পর্যন্ত কেনো প্রকার আবেদন ছাড়াই সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিককর্মী ও শিল্পীদের জন্য আবাসিক এলাকা স্থাপনের লক্ষ্যে জমি বরাদ্দ দেয়া হয়। এ সময় গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ছিলেন মির্জা আব্বাস। অভিযোগ রয়েছে, ১৮ কোটি ৯১ লাখ ৩০ হাজার ৯০০ টাকা মূল্যের ৭ একর জমি মাত্র ৩ কোটি ৩৮ লাখ ৮০ হাজার টাকায় বরাদ্দ দেয়া হয়।
এতে সরকারের ১৫ কোটি ৫২ লাখ ৫০ হাজার ৯০০ টাকার ক্ষতি হয়। যা দণ্ডবিধির ৪০৯/১০৯ এবং ১৯৪৭ সনের ৫(২) ধারায় অপরাধ। এ ঘটনায় দুদক গত ৬ মার্চ শাহবাগ থানায় মামলা করে। এতে ততকালীন গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আলমগীর কবিরসহ চারজনকে আসামি করা হলেও মির্জা আব্বাসকে আসামি করা হয়নি। মামলাটির তদন্ত চলছে। তদন্তে মির্জা আব্বাসও আসামি হতে পারেন বলে জানা গেছে।
বিচারে বাধা নেই ১৮ বাড়ি দুর্নীতি মামলার : মির্জা আব্বাসসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দায়ের করা ১৮টি বাড়ি দুর্নীতি মামলার বিচার চলতে আইনগত কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান। তিনি বলেন, হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ ছিল। আপিল বিভাগ সেটি ভ্যাকেট করে দিয়েছেন। এখন ট্রায়াল চলতে কোনো বাধা নেই।
দুদক সূত্র জানায়, মামলাটি বিশেষ জজ আদালত-৩ আমলে নেয়ার পর এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন মির্জা আব্বাস। একই সঙ্গে হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ মামলার কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। তিন বছরের বেশি সময় মামলার কার্যক্রম স্থগিত থাকলে দুদকের আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে আপিল বিভাগ হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেন। 
ফলে বিচার আদালতে মামলার কার্যক্রম চলার আইনগত বাধা অপসারিত হয়। মামলার সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাইলে বিশেষ আদালতে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, মামলার কার্যক্রমের ওপর হাইকোর্টের ¯’গিতাদেশ ছিল। সম্প্রতি স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হয়েছে। মামলার কার্যক্রম চলতে কোনো বাধা নেই। আগস্টে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ রয়েছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া