adv
৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পার্বত্যবাসীর পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে : সন্তু লারমা

নিজস্ব প্রতিবেদক :  : পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির নেতা জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন ,শান্তি চুক্তি বাস্তাবায়ন না হওয়ায় পার্বত্যবাসীর পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। মি লারমা, যিনি সন্তু লারমা নামেই বেশি পরিচিত, বলেছেন, একারণে যেকোনো পরিণতির জন্য সরকারকে দায়ী থাকতে হবে।
সন্তু লারমা অভিযোগ করেন, পার্বত্য চুক্তির মূল যে শর্ত, ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি, তা হয়নি। তিনি মন্তব্য করেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে এখনও এক ধরণের সামরিক শাসন বজায় রয়েছে। ১৯৯৭ সালে সরকার এবং জন সংহতি সমিতির মধ্যে ওই শান্তি চুক্তিটি হয়েছিল। সরকার বলেছে, চুক্তির বেশিরভাগ বিষয়ই বাস্তবায়ন করা হয়েছে।
প্রায় ১৭ বছরে আগে স্বাক্ষরিত পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির বাস্তবায়নের জন্য জন সংহতি সমিতির নেতা সন্তু লারমা এবার ১৭ দফা দাবি তুলে ধরে আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন। তিনি মুল দাবি হিসেবে উল্লেখ করেছেন ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির ইস্যুকে।
এর সাথে তিনি অভিযোগ করেছেন, চুক্তি অনুযায়ী পার্বত্য তিন জেলা থেকে অস্থায়ী সেনা ক্যাম্পগুলো প্রত্যাহার না করায় তারা এখনো এক ধরণের সেনাশাসনের মধ্যে রয়েছেন। পার্বত্য চুক্তি অনুযায়ী সেখানে গঠিত আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমা বলেছেন, জেলা পরিষদ আইন সংশোধন করাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে সরকার একতরফা ভাবে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।
তাদেরকে চরম একটা পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে কোনো অনাকাংখিত পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে, তার দায় সরকারকে নিতে হবে। মানুষ তার মৌলিক অধিকারের জন্য সবকিছু করতে পারে। আত্মবলিদানও দিতে পারে। পার্বত্য চট্টগ্রামে জুম্ম জনগণের ১৯৭২-৭৩ সালে যেভাবে দেয়ালে তাদের পিঠ ঠেকে গিয়েছিল, আজ একই পর্যায়ে আমরা পৌঁছে গেছি। পার্বত্য অঞ্চলে এখনও অঘোষিতভাবে সেনা শাসন চলছে। বিগত ৪৩ বছর ধরে এই সেনাশাসনের কারণে এই অঞ্চলের মানুষের জীবন সীমাবদ্ধ এক পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে। সুতরাং জন সংহতি সমিতি এই চুক্তি বাস্তবায়নে যা প্রয়োজন, সেটাই করবে। বলেন তিনি।
বাংলাদেশ সরকার অবশ্য এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা বলছেন, চুক্তির বেশিরভাগ বিষয়ই বাস্তবায়ন হয়েছে।
তিনি বলেছেন, চুক্তিতে ৭২ টি শর্ত আছে, তার মধ্যে ৪৮টি সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়ন হয়েছে। আর ১৫টি আংশিকভাবে হয়েছে এবং ৯টি বাস্তবায়নের প্রক্রিয়ায় রয়েছে। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বিরোধকেই মূল সমস্যা হিসেবে বলা হচ্ছে।
আর ভূমি কমিশন আইনের সংশোধনী প্রস্তাব ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগও মানতে রাজি নন সচিব মি: ত্রিপুরা।
তিনি বলেন, সংশোধনী প্রস্তাব নবম সংসদে উত্থাপিত হয়েছিল। কিন্তু সেই সংসদের মেয়াদ না থাকায় তা পাস হয়নি। এখন নতুন সংসদে সেই প্রস্তাব আবার উত্থাপিত হবে। তিনি এটাও উল্লেখ করেছেন যে, ভূমি বিরোধ নিস্পত্তির ইস্যূ জটিল বিষয়। ফলে এজন্য সময় প্রয়োজন।
পার্বত্য চট্টগ্রামের দীঘিনালায় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির স্থানীয় কার্যালয়ের স্থাপনা তৈরির জন্য ভূমি অধিগ্রহণের একটা পরিকল্পনা সরকার নিয়েছে।
এ বিষয়টিও সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেছেন সন্তু লারমা। তিনি বলেছেন, ভূমি বিরোধ যেখানে নিস্পত্তি হয়নি। সেখানে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বিধি ভঙ্গ করে জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে।
তবে সরকার বলেছে, বিজিবির জন্য ভূমি অধিগ্রহণের ব্যপারে যেসব বক্তব্য এসেছে ,তা খতিয়ে দেখতে সরকারের পক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি দীঘিনালা পরিদর্শনে গেছেন। সেখানে তিনি সব পক্ষের সাথে কথা বলে সমাধানের চেষ্টা করবেন। 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া