adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কারাগারে ‘ভিআইপি’ মর্যাদায় শীর্ষ সন্ত্রাসীরা

বিপ্লব বিশ্বাস : ভিআইপি নন অথচ কারাগারে ভিআইপির মর্যাদা পাচ্ছেন আলোচিত বিভিন্ন কেলেঙ্কারি মামলার আসামি। এ কারণে কারাগারে হঠাত ভিআইপি বন্দির সংখ্যা বেড়ে গেছে। সরকারি কর্মকর্তারা কারাগারে ডিভিশন পাবেন, সম্প্রতি সরকারের এমন প্রজ্ঞাপনের সুযোগে ঢাকা ও কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে এখন ভিআইপি বন্দির ছড়াছড়ি। ভিআইপি বন্দির সুবিধা ভোগ করছে শীর্ষ সন্ত্রাসী, দুর্ধর্ষ অপরাধী, ভয়ঙ্কর খুনি, দাগি আসামি, সরকারি দলের নেতাকর্মী এবং দুর্নীতিবাজ বন্দিরা। 
মোটা অঙ্কের উতকোচের বিনিময়ে কারা কর্মকর্তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তুলে তারা আরাম আয়েশেই কাটাচ্ছেন বন্দি জীবন। ভোগ করছেন ডিজিটাল সব সুযোগ-সুবিধা। কারাগারের কিছু কর্মকর্তা, কারা হাসপাতাল ও বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিতসকরা এই সুবিধা ভোগ করার সুযোগ করে দিয়েছে। 

অনুসন্ধানে জানা যায়, কারাগারে থেকে ভিআইপি সুবিধা নিয়ে বহু বন্দি মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ব্যবহার করছে। এয়ারকন্ডিশনার কক্ষে থেকে ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে ফেসবুকে যোগাযোগ করছে। বাইরে রান্না করা পছন্দের খাবার খাচ্ছে। দেশে-বিদেশে মোবাইল ফোনে স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। এমনকি কারাগারে আয়েশি কক্ষে থেকে কেউ কেউ নিজেদের ব্যবসা পরিচালনাও করছে। শীর্ষ সন্ত্রাসীরা কারাগারে থেকেই কোটি কোটি টাকা চাঁদাবাজি করছে এমন অভিযোগ রয়েছে। অসুস্থ না হয়েও মাসের পর মাস কেউ কেউ রয়েছে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজের প্রিজন সেলে। সেখানে থেকে সহযোগী ও ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে নিয়মিত দেখা-সাক্ষাৎ করছে। খোদ কারা কর্তৃপক্ষের কাছেও রয়েছে এসব তথ্য। কতিপয় কারা কর্মকর্তা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এমন সব সুবিধা করে দিয়েছে বলে গোয়েন্দা সূত্রে জানা যায়।

সূত্র জানায়, দেশজুড়ে আলোচিত নারায়নগঞ্জে নৃশংস সাতখুন মামলার তিন আসামি চাকরিচ্যুত সেনা কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ, মেজর আরিফ হোসেন এবং লে. কমান্ডার এমএম রানা, আলোচিত হলমার্ক কেলেঙ্কারির হোতা তানভীর মাহমুদ, এমএলম কোম্পানি ইউনিপে টু ইউ এর কর্মকর্তা লে.কর্ণেল এহসান, শীর্ষ সন্ত্রাসী জোসেফ, শীর্ষ সন্ত্রাসী সুইডেন আসলামসহ বহু অপরাধী ও চিহ্নিত ব্যক্তিরা কারাগারে আয়েশি জীবন কাটাচ্ছেন। কারা সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আলোচিত হলমার্ক কেলেঙ্কারির হোতা তানভীর মাহমুদ কাশিমপুর কারাগারে বসেই রঙিন টিভি দেখেন, ল্যাপটপে ফেসবুক চ্যাটিং ও ইমেইল চালাচালি করেন। মিনি এয়ারকুলারের মধ্যে তার বসবাস। এর আগে মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে একটি কক্ষ নিয়ে থাকতেন তানভীর। কারাগারে ভিআইপি বন্দিদের চেয়েও তিনি বেশি সুযোগ-সুবিধা পেতেন। 
সম্প্রতি কারা কর্তৃপক্ষ তাকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠায়। সেখানে গিয়ে অসাধু কারা কর্মকর্তাদের ‘ম্যানেজ’ করে নিজের কক্ষে রঙিন টেলিভিশন (এলইডি), ল্যাপটপ ও তিনজন সেবক পেয়েছেন। সেবক তিনজন হলেন দুলাল, আজিম ও আলামিন। তার কক্ষে রাইস কুকার, মিনি এয়ারকন্ডিশনও ব্যবহার করেছেন তিনি। জানা গেছে, তানভীরের আসল নাম তফসির মাহমুদ। এ নামেই তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। নিয়মিত ফেসবুকে চ্যাটিং করেন।
গুরুতর অসুস্থ না হয়েও দশ মাস ধরে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন একটি এমএলএম কোম্পানির দুই শীর্ষ কর্মকর্তা। কারা কর্তৃপক্ষ ও চিকিতসকদের ‘ম্যানেজ’ করে তারা সেখানে রাজার হালে বসবাস করছেন। সামান্য ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একই হাসপাতালে ভর্তি আছেন একাধিক হত্যা মামলার আসামি শীর্ষ সন্ত্রাসী জোসেফ। আর কাশিমপুর-১ নং কারাগারে শীর্ষ সন্ত্রাসী ঈদুল ও ইব্রাহীম ইয়াবার রমরমা ব্যবসা করছেন। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ভিআইপি সুবিধা নিয়ে ইয়াবার ব্যবসা করছেন শীর্ষ সন্ত্রাসী আরমান আর কাশিমপুর কারাগারে বসেই অবৈধ ব্যবসা ও চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করছেন শীর্ষ সন্ত্রাসী সুইডেন আসলাম, সানজিদুল ইসলাম ইমন ও লম্বু সেলিম। ঢাকার কেন্দ্রীয় কারগার, বঙ্গবন্ধু হাসপাতাল এবং কাশিমপুর কারাগারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে উল্লেখিত সব তথ্য।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া