adv
৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘যক্ষ্মা ভাল হয়’ : প্রশাসনের যক্ষ্মাও ভাল হবে

pic-04_105629একাত্তরের সেই দুনিয়া কাঁপানো জয়ের পরেই কী অবিশ্বাস্য দ্রুততায় সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় সব ক্ষেত্রে শুরু হয় অবক্ষয়। জয়, তার পরই ক্ষয়। চোর-ডাকাত-ছিনতাইকারীর পাশাপাশি কালোবাজারি-চোরাকারবারি-লুণ্ঠনকারী-দখলবাজ-চাঁদাবাজরা কতিপয় ক্ষমতাধরের সঙ্গে হাত মিলিয়ে দেশটাকে লুটেপুটে খেতে উঠেপড়ে লাগল।
এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানি আমলের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর দেশের প্রশাসনকে চালিয়ে নেওয়ার দায়িত্ব অর্পিত হল। একটি স্বাধীন দেশের কেন্দ্রীয় সরকারে কাজ করার অভিজ্ঞতা এদের মধ্যে মাত্র হাতে গোনা কিছুসংখ্যক কর্মকর্তার ছিল, যাঁরা পাকিস্তানের ইসলামাবাদ ও করাচিতে একাত্তরের আগে অতি সামান্য কটি গুরুত্বপূর্ণ পদে অল্প কিছুদিন চাকরি করেছিলেন। তবু তাঁরা তাঁদের যোগ্যতা, দক্ষতা ও মেধা, সর্বোপরি দেশপ্রেম ও আন্তরিকতাকে কাজে লাগিয়ে সদ্য স্বাধীন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের নানাবিধ সমস্যার সমাধান ও অর্থনৈতিক পুনর্গঠনের দায়িত্ব পালন করছিলেন নিষ্ঠার সঙ্গে। নতুন ‘বস্’ হিসেবে তাঁরা যাঁদের পেলেন সেইসব মন্ত্রী মহোদয়ের প্রশাসনিক অভিজ্ঞতার ঝুলি ছিল একেবারেই শূন্য, যদিও আন্তরিকতার অভাব ছিল না।
 
কিন্তু দুঃখের বিষয়, শুরুতেই প্রশাসনের ভেতর এক ধরনের সম্পূর্ণ অনভিপ্রেত বিভাজন সৃষ্টি হল একটি অতীব স্পর্শকাতর ইস্যুতে। তখন যাঁরা মুক্তিযুদ্ধের সময় সীমান্ত পার হয়ে ভারতে চলে গিয়েছিলেন এবং যাঁরা যাননি বা যেতে পারেননি, তাঁদের মধ্যে একটা অদৃশ্য দেয়াল দাঁড়িয়ে গেল। পাকিস্তান ফেরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পড়লেন আরও বিপাকে। প্রকাশ্যে না হলেও যাঁরা ভারতে যাননি এবং যাঁরা পাকিস্তান প্রত্যাগত তাঁদের মনে করা হতো পাকিস্তানের কোলাবোরেটর বা দালাল। চাকরিতে পদায়ন-পদোন্নতিসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার বেলায়ও কে ‘মুজিবনগরী’, কে ভারতে যাননি, কে পাকিস্তান ফেরত ইত্যাদি প্রশ্ন বড় হয়ে দেখা দিল। মুজিবনগরীদের চাকরির ক্ষেত্রে দুই বছরের ‘এন্টিডেটেড সিনিয়রিটি’ দিয়ে অমুজিবনগরী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে ব্যাপক হতাশা, ক্ষোভ ও চাপা অসন্তোষ সৃষ্টি করা হল। জুনিয়ররা আকসারই সিনিয়রদের ‘বস্’ হয়ে গেলেন। এখন যেমন কে আওয়ামী লীগপন্থী, কে বিএনপির সমর্থক, কে ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ করত বা ছাত্রদল করত, শিবির করত এসব খোঁজাখুঁজি করে নামের পাশে সিল-ছাপ্পর মারা হয় তেমনি। 
বলা যেতে পারে, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে সম্পূর্ণ অহেতুক, অযৌক্তিক, অনভিপ্রেত ও প্রশাসনকে ধ্বংসকারী দলীয়করণ নামক ভাইরাস সৃষ্টি করা হয় স্বাধীনতার পরেই। যে বিষবৃক্ষের বীজ তখন বপিত হয়েছিল তা পত্র-পল্লবে, শাখা-প্রশাখায় বিস্তার লাভ করে আজ প্রশাসনের সব ক্ষেত্রে ছড়িয়ে পড়েছে।
তবে একটি কথা জোর দিয়ে বলা যায়, এখন যেমন কে প্রতিপক্ষ দলের সরকারের আমলে জেলায় ডিসির চাকরি করেছিল, কে কোন মন্ত্রীর পিএস ছিল, কে কোন করপোরেশনে চেয়ারম্যান ছিল, অথবা অন্য কোনোভাবে ফায়দা লাভ করেছিল ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে প্রমোশন আটকে দেওয়া হয়, ওএসডি বানিয়ে বছরের পর বছর ‘ওই শালা দালাল’ বা ‘অফিসার ইন সিরিয়াস ডিফিকালটি’ অথবা ‘অফিসার ইন সার্চ অব ডিউটি’ নামক অলিখিত কারাদণ্ড দেওয়া হয়, তখন অবশ্য সেটা ছিল না। অন্তত দলীয় পরিচয়ের কারণে কাউকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে এমনটা বড় একটা শোনা যেত না। (অবশ্য দল তো তখন একটাই : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ফলে অন্য কোনো দলের সঙ্গে মাখামাখি-ঘষাঘষির প্রশ্ন আসেনি)। পদায়ন-পদোন্নতি হতো জ্যেষ্ঠতা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে; ব্যতিক্রম করা হতো শুধু মুজিবনগরীদের ক্ষেত্রে। তবুও সাধারণভাবে বলা যায়, প্রশাসনে অস্থিরতা-বিশৃঙ্খলা ছিল না বললেই চলে। আর বোধগম্য কারণেই শাসকদের এলার্জি ছিল শুধু পাকিস্তানের ব্যাপারে।
 
স্বাধীনতার পর পরই ‘রাষ্ট্রপতির আদেশ নম্বর ৯ (‘প্রেসিডেন্ট’স অর্ডার নম্বর নাইন’, সংক্ষেপে পিও নাইন) বলে একটা ন্যায়নীতিবর্জিত ও ব্যাপকভাবে সমালোচিত আদেশ জারি করে ততকালীন সরকার নিজেকে বিতর্কিত করে তোলে। এই আদেশের বলে সরকার প্রজাতন্ত্রের যে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কোনো কারণ না দর্শিয়ে, কোনো কিছু না জানিয়ে চাকরিচ্যুত করতে পারত। এ যেন অন্ধকার রাস্তায় পথচলা পথিকের পিঠে আচমকা ছুরি বসিয়ে দেওয়া। বছর দুই-তিনেক এই আইনের খ—গব্যবহৃত হওয়ার পর সুপ্রিম কোর্টে আদেশটি চ্যালেঞ্জ করে রিট হওয়ার প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে এই কুখ্যাত আইনটি বাতিল হয়ে যায়। কিছুটা হলেও জনপ্রশাসন তখন রাহুমুক্ত হয়।
স্বাধীনতার পর প্রথম দুই দশক দেশের প্রশাসনব্যবস্থা এখনকার মতো রাজনৈতিক প্রভাবাচ্ছন্ন ছিল না। ওই সময়কে মোটামুটি তিন ভাগে ভাগ করা যায় : মুজিব আমল, জিয়া আমল ও এরশাদ আমল। সব আমলেই কমবেশি ব্যক্তিগত চেষ্টা-তদবির-তোষামোদ ছিল, মামার জোর ছিল, অসদুপায়ে অর্থোপার্জন ছিল, কোনো কোনো অসাধু কর্মকর্তা রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে লাইন করে নিজেদের আখের গোছাতে সচেষ্ট ছিলেন। তবে এসব অপকর্ম কোনো সর্বগ্রাসী আকার ধারণ করেনি। কিংবা বলা যায়, এখনকার দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন বা দলীয়করণের মত প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করেনি। সবই ছিল বিচ্ছিন্ন ঘটনা। বড় কথা, রাজনৈতিক বিবেচনায় প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ভাগ্য নির্ধারিত হতো না।
 
এখন তো বিভিন্ন সংগঠন ময়দানে নেমে নিয়োগ-বদলি-পদোন্নতি সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করছে রাজনৈতিক দলের ছত্র”ছায়ায়। অমুক বিভাগে অমুক পদে লোক নেওয়া হবে বা পদোন্নতি দেওয়া হবে, ভালো কথা, মাননীয় মন্ত্রী, এই নিন আমাদের তালিকা, এরা ‘আমাদের’ (অর্থাত দলগতভাবে আপনাদের) লোক, এদের বাদ দেবেন না নিয়োগ/পদোন্নতি থেকে। আর তালিকা চূড়ান্ত করে আমাদের দেখিয়ে নেবেন, আমরা দেখে দেব ‘ওদের’ লোক কেউ ঢুকে পড়েছে কি না। মন্ত্রী বা সচিব হয়তো ওই সংগঠনের নেতাদের বললেন; কিš‘ আপনাদের তালিকার অমুক-অমুকের রেকর্ড তো খুবই খারাপ, অমুক অমুক তো সিনিয়রিটিতে অনেক নিচে। সঙ্গে সঙ্গে জবাব : ওইসব রেকর্ড-ফেকর্ড আর সিনিয়রিটি কি ধুয়ে খাবেন? ওসব দেখলে সংগঠন চালানো যাবে না। ৃমুজিব আমল, জিয়া আমল বা এরশাদ আমল অন্তত এই বালাইমুক্ত ছিল। ফলে ওইসব আমলে কোনো সহকারী সচিব, উপসচিব বা যুগ্ম সচিবকে তার ২/৩ ব্যাচ জুনিয়রের অধীনে একই দপ্তরে বা প্রতিষ্ঠানে বিনা দোষে দিনের পর দিন চাকরি করতে হতো না, কিংবা মাসের পর মাস, এমনকি বছরের পর, ওএসডি নামক লজ্জাজনক খেতাব গলায় ঝুলিয়ে বেড়াতে হতো না।
 
এখন জনপ্রশাসনের প্রত্যেক ক্যাডার সার্ভিসের শক্তিশালী অ্যাসোসিয়েশন আছে। সাধারণ প্রশাসন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, প্রাণিসম্পদ, প্রকৌশল, পুলিশ, আনসার ইত্যাদি কোনো ক্যাডার বাদ নেই- সবার এক বা একাধিক অ্যাসোসিয়েশন আছে। এরা প্রকাশ্যে সবাই ওয়েলফেয়ার বা কল্যাণধর্মী সংগঠন। কিš‘ এদের আসল কাজ হচ্ছে নিজেদের রাজনৈতিক দলের লেজুড়বৃত্তিকরণ ও সব স্তরে নিজেদের লোক বসিয়ে নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিতকরণ। আর এসব কাজে স্বচ্ছতার তো প্রশ্নই আসে না; বরং বাজারে এসব সংগঠনের অনেক নেতার সম্বন্ধে এন্তার অকথা-কুকথা চাউর আছে। আর এদের কাঁধে ভর দিয়ে শীর্ষ পর্যায়ের অনেকেই ‘তু অর্দ্ধং মু অর্দ্ধং’ বাণিজ্যে লিপ্ত থাকেন বলেও শোনা যায়। যখন যে রাজনৈতিক দলই ক্ষমতায় থাকুক না কেন, তাদের সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এসব সংগঠন ও তাদের নেতাদের হাতে অনেক সময় জিম্মি হয়ে পড়ে। 
মন্ত্রণালয়ের নানা ব্যর্থতা সত্ত্বেও এদের দিয়ে গুণকীর্তন করানো, বির“দ্ধমতের কণ্ঠরোধকরণ, হরতাল-ধর্মঘট প্রতিরোধকরণের জন্য এদের কাজে লাগান মন্ত্রীরা। আর এসব সংগঠনও তাদের নিজেদের ‘নুইসেন্স ভ্যালুকে’ কাজে লাগিয়ে মন্ত্রী তথা সরকারকে ব্ল্যাকমেইল করে।
 
এর পরে কী করে আশা করা যায় দেশে একটি মেধাভিত্তিক যোগ্য ও সত প্রশাসন গড়ে উঠবে? বিভিন্ন সার্ভিসের সদস্যরা হতাশামুক্ত হয়ে নিজেদের সবটুকু উজাড় করে দেশসেবা করবে? মেধা, দক্ষতা ও সততা বাদ দিয়ে প্রশাসনের কর্মীবাহিনী যদি গঠন করা হয় শুধু ‘আমাদের’ লোক দিয়ে- তারা যোগ্য হোক কি না হোক- তাহলে দেশের উন্নয়ন ও সুশাসন নিশ্চিত করবেন কী করে? ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ, অমুকের সুপারিশ, ডলারের তোড়া ইত্যাদির ভিত্তিতে দল গঠন করলে একজন স্কলারি বা হাতুরাসিংয়ের বাবারও সাধ্য নেই কোনো ফুটবল দল বা ক্রিকেট দলকে কাপ জেতায়। সেটা ব্রাজিলই হোক আর বাংলাদেশই হোক। আর স্কলারি ফুটবলের যত বড় স্কলারই হোক, আর হাতুরাসিংয়ে হাতুড়ি দিয়ে যতই সাকিব আল হাসানদের শিং ভাঙার চেষ্টা করুক না কেন, গোড়াতেই দল গঠনে দুর্নীতির আশ্রয় নিলে সব চেষ্টা বিফলে যেতে বাধ্য।
 
(৩)
১৯৯০ সালে স্বৈরাচার পতন আন্দোলন থেকেই প্রশাসনের ভেতর রাজনৈতিক মেরুকরণ শুরু হয়। এরশাদ সরকারের পতন যখন আসন্ন, তখন কতিপয় সুপার চালাক সরকারি কর্মকর্তা এই প্রথমবারের মত রাজনৈতিক ফায়দা লোটার লক্ষ্যে রোদ থাকতে থাকতে খড় শুকিয়ে নিতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। নিজেদের চিন্তাচেতনা, অতীত ভূমিকা, ব্যক্তিগত যোগাযোগ ইত্যাদির ভিত্তিতে কেউ গেলেন ‘এ’-দলে, কেউ ভিড়লেন ‘বি’-দলে। সঙ্গে নিয়ে গেলেন কিছু কিছু চোঙ্গা-ফোঁকা কনিষ্ঠ সহকর্মী। ছাত্রজীবনে বা পাকিস্তানি আমলে চাকরিজীবনের শুরুতে এসব স্বঘোষিত নেতার তেমন কোনো রাজনৈতিক পরিচিতি ছিল না। মুক্তিযোদ্ধাও ছিলেন না এদের কেউ। ছাত্রজীবনে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি ভদ্রসম্মত ডিগ্রি নিয়ে বের হয়ে যথাসময়ে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সুপিরিয়র সার্ভিস, নিদেনপক্ষে পূর্ব পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসের একটি চাকরিপ্রাপ্তিই ছিল এদের জীবনের লক্ষ্য ও মোক্ষ।
 
প্রথমে গোপনে ও পরে এরশাদবিরোধী আন্দোলন যতই জোরদার হতে লাগল ততই এরা প্রকাশ্যে রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীদের কাছে ভিড়তে শুরু করলেন। দৃশ্যতই এসব ভুঁইফোঁড় আমলা নেতাদের মূল লক্ষ্য ছিল নেতা-নেত্রীদের মনোরঞ্জনের মাধ্যমে পাদপ্রদীপের সামনে আসা ও নতুন সরকার ক্ষমতায় এলে নিজেদের আখের গোছানো। যেহেতু তখন দেয়াল লিখনে এটা স্পষ্ট ছিল যে স্বৈরাচারী সরকারের পতন হবেই এবং এও জনরব ছিল যে আওয়ামী লীগই নতুন সরকার গঠন করবে, অতএব কালবিলম্ব না করে যা আছে কপালে বলে এদের বেশির ভাগই ‘নৌকায়’ চড়ে মাল্লা সেজে আগেভাগে জায়গা দখল করতে তৎপর হয়ে উঠলেন। প্রশাসনকে হাতে রাখতে পারলে রাজনীতিকদের অনেক লাভ। সেই কারণে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দও দেশের প্রশাসনিক মঙ্গল-অমঙ্গল বিবেচনা না করেই এদের বুকে টেনে নেন।
 
পরবর্তী পর্যায়ে এদের কেউ কেউ সরকারি চাকরিকে কলা দেখিয়ে চাকরি ছেড়ে মুখোশ খুলে রাজনৈতিক অঙ্গনে নেমে পড়েন এবং দ্রুত ঈপ্সিত উন্নতির চেয়ে বহু গুণ বেশি মান-সম্মান-প্রতিপত্তি এবং অর্থবিত্তের মালিক হন। একসময় তাঁদের বছর চার-পাঁচেকে অর্জিত সয়সম্পত্তির নিজের দেওয়া হিসাব দেখে দেশবাসীর চোখ ঠিকরে বের হয়ে জাতীয় স্মৃতিসৌধের আগায় লটকে পড়ার উপক্রম হয়। তবে মাশাল্লাহ দুদক-মুদক-কুদকের মুখে ছাই দিয়ে যথারীতি এখনো এঁরা বহাল তবিয়তেই আছেন। আশা করা যায়, যেখানে যেখানে ঘি-মাখন-পুলটিশ ইত্যাদি লাগানোর দরকার, সেখানে সেখানে যথাসময়ে যথানিয়মে সেগুলো লাগিয়ে বাকি জিন্দেগি সহি-সালামতে পার করে দেবেন!
 
সেই যে রাজনৈতিক দল ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটা নজিরবিহীন অশুভ আঁতাত গড়ে তুললেন, এইসব সুযোগসন্ধানী শিকারি আমলারা- যেটাকে কোনোভাবেই বৈধ সম্মিলন বলা যায় না- এরই ধারাবাহিকতায় সরকারের সর্বো”চ পীঠস্থান বাংলাদেশ সচিবালয়ে সব নিয়মকানুন শৃঙ্খলাকে বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ দেখিয়ে সচিবালয়ের জীবনে প্রথম একটি রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ১৯৯৬ সালে সচিবালয়েরই অভ্যন্তরে লাগাতার সরকারবিরোধী মিটিং-মিছিল করে এক অভূতপূর্ব দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন ওইসব আমলা-কাম-হাফরাজনীতিবিদরা। এতেও তৃপ্ত না হয়ে সচিবালয়সংলগ্ন রাজপথে তারা ওই বছরই ততকালীন সরকার পতনের লক্ষ্যে ‘জনতার মঞ্চ’ নামক একটি রাজনৈতিক মঞ্চ নির্মাণ করে সেখানে লাগাতার কয়েক দিন অহর্নিশ সরকারবিরোধী বক্তৃতা-বিবৃতি-স্লোগান ও গান-বাজনার আসর বসান। (অনেকটা হাল আমলের গণজাগরণ মঞ্চের ঢংয়ে।) ‘জনতার মঞ্চ’ নামক প্রশাসন বিধ্বংসী এই কর্মসূচি ছিল প্রশাসনকে রাজনৈতিকীকরণের সর্ববৃহত ও সর্বপ্রথম প্রকাশ্য কর্মসূচি। সেই মঞ্চের স্থপতিরা অনেকে ওই কর্মসূচি ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে ওই সময় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণের যথার্থতা প্রমাণ করতে গিয়ে এর সঙ্গে ১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধে আপামর জনসাধারণের পাশে দাঁড়িয়ে সরকারি কর্মচারীদের অংশগ্রহণের উদাহরণ দিয়ে থাকেন। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে ১৯৯৬-এর একটি বিতর্কিত কর্মসূচির তুলনা করা, আর যাই হোক, সুর“চির পরিচায়ক বলে মনে করি না।
 
যা হোক, প্রশাসনের পুরোপুরি রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা, যদিও প্র”ছন্নভাবে, ও দলীয়করণ শুর“ হয় ওই বহুল সমালোচিত ‘জনতার মঞ্চ’ নামক রাজনৈতিক মঞ্চের আবির্ভাবের পরেই। এর পর পরই ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ সরকার। সঙ্গে সঙ্গে পুরস্কৃত হন মঞ্চের মঞ্চাভিনেতা আমলারা। সব গুরুত্বপূর্ণ পদে সমাসীন হলেন তাঁরা, কেউ কেউ ডাবল-ট্রেবল প্রমোশন পেলেন। নেতাদের নেতা (মরহুম সচিব আখতার আলী পরিহাসছলে যাঁর নাম দিয়েছিলেন নেতানিয়াহু) মন্ত্রী-মিনিস্টারও হলেন, হয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়ে এখন বোধ হয় ‘নিশ্চল নিশ্চুপ/আপনার মনে পুড়িব একাকী গন্ধবিধুর ধূপ’ (কাজী নজরুল ইসলাম) অবস্থায় বিশ্রামে আছেন!
 
সেই থেকে প্রশাসনে দলীয়করণের যে সূত্রপাত হলো, তা এখন একটি মারাত্মক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। মাঝখানে ওয়ান ইলেভেনের দুঃশাসনের সময় বছর দুয়েক চাপা পড়ে ছিল এই তৎপরতা। তারপর এখন তো এটা একটা স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত ‘স্পয়েল সিস্টেম’ (সরকার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে সরকারি সব গুর“ত্বপূর্ণ পদেও নিজেদের পছন্দমত লোক বসিয়ে পরিবর্তন আনা হয়। এটাই সে দেশের নিয়ম।) চালু না করেই প্রচলিত বিধিবিধান ভঙ্গ করে নিয়োগ ও পদোন্নতি দেওয়া হচ্ছে খেয়ালখুশিমত। এতে যারা ‘বেনিফিশিয়ারি’ তারা হয়ত বগল বাজাচ্ছে; কিন্তু বিনা কারণে যারা অন্যায়-অবিচারের শিকার হচ্ছে তাদের মানসিক ও সামাজিক অবস্থাটা একবার কল্পনা করুন। কর্তাব্যক্তিরা ভুলে যান, চিরকাল ক্ষমতার ঢাল-তলোয়ার ব্যবহার করে গদি আঁকড়ে বসে থাকা যায় না। ইতিহাস নিজেই তার পুনরাবৃত্তি যখন ঘটাবে তখন আপনাদের ‘আমাদের লোকদের’ ভাগ্যেও একই পরিণতি নেমে আসতে পারে। হয়ত আরও রূঢ় ও করুণভাবে। কারণ প্রতিযোগিতাকে হটিয়ে দিয়ে প্রতিহিংসাই যখন নিয়ামক হয়ে দাঁড়ায়, তখন এটাই তো স্বাভাবিক। এভাবে দেশে একটি সুন্দর প্রশাসন কোনো দিন কি গড়ে উঠতে পারে?
 
(৪)
এত দিন এই রাজনীতির বাতাবরণে প্রশাসন চালিয়ে তো দেখলেন ফলাফল শূন্য। এবার আসুন না, উন্নত বিশ্বের, এমনকি আমাদের চেনা উন্নয়নশীল বিশ্বের, ভাল উদাহরণগুলো নিয়ে সরকারি আমলা-কামলার জন্য প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করি? রাজনীতি একজন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য হোক নিষিদ্ধ বৃক্ষের ফল। (বিতাড়িত শয়তানের কুমন্ত্রণায় সৃষ্টিকর্তার নিষেধ অমান্য করে বাবা আদম ও বিবি হাওয়া যে কী নতিজা ভোগ করেছিলেন তা তো আমরা জানি।)
 
দেশ আপনার আমার সবার। দেশ যেমন সরকারি দলের, তেমনি বিরোধী দলেরও। আজ যারা সরকারি দল কাল তারাই হবেন বিরোধী দল। অ্যান্ড ভাইসি ভার্সা। তবে আমার দেশ আপনার দেশ, সরকারের দেশ, বিরোধীদের দেশ, এসবের চেয়ে বড় সত্য হল, দেশ আগামী প্রজন্মের। আপনার আমার ইনিংস তো শেষ হয়ে আসছে, না হয় আরও ১০/২০ রান, তারপর? তার পরই তো ‘ক্রিজ’ ছেড়ে চলে যেতে হবে, আসবে নতুন খেলোয়াড় সারা দলের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে। তার জন্য যে ‘পিচটা’ রেখে যাচ্ছি, সেটা কি আগাছায় ভরা? তার এখানে-সেখানে কি কোদাল দিয়ে কুপিয়ে কুপিয়ে আমরা নিজেরাই খানাখন্দ সৃষ্টি করে যা”িছ? আর এই আগামী প্রজন্ম কারা? তারা তো আপনার-আমারই ছেলেমেয়ে-নাতিপুতি। আমাদের লাগানো বিষবৃক্ষের ফল খেয়ে যদি তাদের বাঁচতে হয়, তবে মধ্য আয় আর উচ্চ আয়ের দেশ গড়ার স্বপ্ন কি স্বপ্নই থেকে যাবে না?
 
(৫)
হে আমাদের ভাগ্যনিয়ন্তাগণ, এখনো সময় আছে, উঠতে-বসতে একে অন্যের প্রতি বিষোদ্গার, গালাগালি, দোষাদুষি বাদ দিয়ে দেশটাকে সুশাসনের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য ঐক্যবদ্ধ হোন। কিছু মোটা দাগের বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছা কি খুবই কষ্টকর? দেখুন না চেষ্টা করে। দেখবেন, আর কেউ না হোক, দেশের ১৬ কোটি মানুষ আপনাদের পাশে দাঁড়াবে।
 
যে প্রশাসনের ক্ষয়রোগের কারণে জাতি আজ রক্তশূন্য, যার জন্য দেশটাকে তিলে তিলে গ্রাস করতে চলেছে মৃত্যু, সেই প্রশাসনের সুচিকিতসার ব্যবস্থা করে তাকে বাঁচান। ক্ষয়রোগ বা যক্ষ্মার উপযুক্ত চিকিতসা করলে রোগীকে বাঁচান যায়। ‘যক্ষ্মা ভাল হয়’- এটা তো আপনাদেরই স্লোগান। নিজে কলুষমুক্ত থেকে ইমানদারির সঙ্গে মনপ্রাণ দিয়ে চেষ্টা করুন, বিবেক পরিষ্কার রাখুন, দেখবেন প্রশাসনের যক্ষ্মাও ভাল হবে, রক্ষা পাবে দেশ।
লেখক : মোফাজ্জল করিম, সাবেক সচিব, কবি।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া