adv
১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়া বললেন- ঈদের পর সরকারের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ানিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদের পর অন্যায়, অত্যাচার ও জালিম সরকারের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল পূর্বানীতে জাগপা চেয়ারম্যান শফিউল আলম প্রধানের  আয়োজনে এক ইফতার পার্টিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন। 
দেশের রাজনীতিবিদ ও বিশিষ্ট নাগরিকদের সম্মানে ইফতার পার্টির আয়োজন করেন জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) চেয়ারম্যান শফিউল আলম প্রধান। সরকার সংবাদপত্রের বিরুদ্ধে কালো কানন করতে যাচ্ছে অভিযোগ তুলে ধরে খালেদা জিয়া বলেন, এ সরকারে আমলে দেশে অনেক সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। আমারদেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমান জেলে রয়েছেন। সরকারের দাগি গুণ্ডারা জেল থেকে ছাড়া পেলেও মাহমুদুর রহমানকে জেলে রেখেছে সরকার। 
খালদা জিয়া বলেন, জালিম অনির্বাচিত সরকারের অধীনে মানুষ নিরাপদ নয়। হেফাজত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা, হিন্দু সম্প্রদায়ের জমি দখল, রামু বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। কোনো ধর্মের লোকই  এ সরকারের কবল থেকে রেহাই পায়নি। তাদের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনগণের সহযোগিতা চান। 
তিনি বলেন, দেশে আজ কোনো নির্বাচিত সরকার নেই। তারা অন্যায় ভাবে ক্ষমতা আঁকড়ে ধরে আছে। এই সরকার জুলুমবাজ জোর করে ক্ষমতায় আছে। তাদের এ অন্যায় ভাবে ক্ষমতায় থাকায় দেশের যুবকরা চাকরি পচ্ছে না। তাদের দলের গুণ্ডারা সব জায়গায় আক্রমণ চালিয়ে তাদের মনের মতো লোকজনকে চাকরি দিচ্ছেন। দ্রব্যমূল ঊর্ধ্বগতি। দিন দিন ভেড়ে চলছে জিনিসপত্রের দাম। 
খালেদা জিয়া বলেন, এদেশের মানুষ চায় শান্তি। আর তারা একের পর এক খুন, গুমসহ নানা হত্যাকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। আজ দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোনো ভালো মানুষের ঠাই নেই। এতে রয়েছে আওয়ামী লীগের গুণ্ডা বাহিনী। 
তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক দেশেই জোর করে সরকার প্রধানরা ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করেছেন কিন্তু  কেউই পারেননি। তারাও থাকতে পারবে না। খালেদা জিয়া বলেন, আপনাদের বড় বড় কথা বন্ধ করুন। এদেশের মানুষ ভোট দিতে চায়। মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিন। সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করুন।   
নারায়ণগঞ্জের সেভের মার্ডারের বিষয়ে খালেদা জিয়া বলেন, এ ঘটনার মূল ক্রিমিনালদের ধরা হয়নি। তাদের ধরা হলে আসল তথ্য বেরিয়ে আসবে। আর যাদের ধরা হয়েছে তাদেরকে রাখা হয়েছে জামাই আদরে। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, এ ঘটনার আসল ক্রিমিনালদের ধরুন তাহলে তথ্য বেরিয়ে আসবে।   
ইফতার পার্টিতে  বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, নজরুল ইসলাম খান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, হান্নান শাহ, এম কে আনোয়ার, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 
 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া