adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপির একাংশ নিয়ে আগাম নির্বাচন!

download (1)নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী : ২০১৯ সালের আগেই আন্তর্জাতিক চাপের কারণে শেষ পর্যন্ত একটি আগাম নির্বাচন হতে পারে। ওই নির্বাচন হতে পারে মাইনাস বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। নির্বাচনে বিএনপির একাংশ অংশ নিতে পারে। তবে এই নির্বাচন ঠিক কবে হবে এটা এখনও ঠিক হয়নি। নির্বাচনের দিনক্ষণ নির্ধারণে আন্তর্জাতিক মহল একটি বড় ভূমিকা রাখতে পারে।  আগামি সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘ সফরের সময়ে তারা সরকারের উপর চাপ তৈরি করবে।
ওই সময়ে তাকে জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল বান কি মুন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক হোসেন ওবামা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ অন্যান্য দেশের সরকার প্রধান যারা  বাংলাদেশের নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য মনে করেন না তারা চাপ তৈরি করবেন। বিষয় হবে সংলাপ ও আগাম নির্বাচনের জন্য। ওই সময়ে তাকে একটি প্রতিশ্র“তি দিতে হতে পারে।
সরকারের একটি সূত্র জানায়, সরকারের মনোভাব হচ্ছে ২০১৯ সাল পর্যন্ত কোন আগাম নির্বাচন না করা। সরকারের মেয়াদ পূরণের পর শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী রেখেই আবার একাদশ নির্বাচন করা।  কোন কারণে এই পরিকল্পনা সফল না হলে আন্তর্জাতিক মহল সহযোগিতার হাত সংকুচিত করলে বা নানা ভাবে চাপ দিলে বিকল্প চিন্তা করতে হতে পারে। সেটা কেমন করে হবে সেই পরিকল্পনাও সরকারের রয়েছে।
বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, আন্তর্জাতিক মহল সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের ব্যাপারে নতুন করে দিক নির্দেশনা দিবে। এরই অংশ হিসাবে তারা সরকারকে সব দলের সঙ্গে সংলাপ করে সমঝোতা করার জন্য বলবে। এই ব্যাপারে তারা কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে পারে এমন আভাসও দিতে পারে। এই ব্যাপারে সরকারকে এমন অব¯’ায় নিয়ে যেতে পারে যাতে করে সরকার একটা আগাম নির্বাচনের চিন্তা করে। সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন ভাবেই আগাম নির্বাচন করলেও কোন ঝুঁিক নিতে চাইছেন না। তিনি চাইছেন আগাম নির্বাচন না করতে। আর করতে হলে সেটা আরো পরে। এই জন্য সময়ও নিতে চান।
এই ব্যাপারে সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়রপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে খবর রয়েছে সরকার সেপ্টেম্বরে মধ্যে নমনীয় মনোভাব প্রকাশ করবে না। নির্বাচনতো দূরের কথা, সংলাপও করতে চাইবে না।
বেগম খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ট একজন জানান, আমরা জানতে পেরেছি সরকারের ইচ্ছে হচ্ছে দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপরসনের শাস্তি দেয়া। সেটা দিয়ে তাকে কারাগারে বন্দী রাখা। সেটা বিশেষ কারাগারে হতে পারে। এমনকি তার বাড়িটাকে কারাগার হিসাবে ঘোষণা করে এটাকে সাবজেল ঘোষণা করা হতে পারে। সেই হিসাবে তাকে তার বাড়িতেই বন্দী রাখা হতে পারে। কারণ কোন মামলায় তার শাস্তি হলে এরপর তাকে কারাগারে নিয়ে যেতে হলে ও কারাগারে রাখতে হলে এনিয়ে অনেক সমস্যা তৈরি হবে। জটিলতা তৈরি হতে পারে। সরকারও ঝামেলায় পড়তে পারে।
এরই অংশ হিসাবে সরকার খালেদা জিয়ার ব্যাপারে কোন ঝুঁিক নিতে চাইছে না। চাইছে দুর্নীতির মামলায় তার দ্রুত শাস্তি দিতে। ওই শাস্তি হওয়ার পর আমরা আপীল করলেও লাভ হবে না। কারণ আমরা এখন সুবিচার পাবো না। ওয়ান ইলেভেনের সময়ে ম্যাডামের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা প্রমাণ করা সম্ভব নয় মনে করে জেনারেলদের মধ্যে মামলা দায়ের করা নিয়ে বিরোধ দেখা দিলেও এই সরকার যে কোন ভাবেই অপরাধ প্রমাণ করবে। ম্যাডামের শাস্তিও হতে পারে। সেটা করে তাকে কারাবন্দী করে রাখা হবে।
এরপর সরকার নির্বাচনের চিন্তা করবে। কেবল বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দী হলে সরকারের সামনে তেমন কোন বড় সমস্যা থাকবে না। দ্বিতীয় পরিকল্পনা হিসাবে সরকার ২১ আগষ্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা  তারেক রহমানের শাস্তি হবে সেই জন্য অপেক্ষা করবে। ওই মামলায় তার কঠোর শাস্তি দেয়ারও চেষ্টা করবে। এখনই তাদের ভাষায় তিনি পলাতক রয়েছে। ফেরার হিসাবে তিনি যে কোন সময়ে দেশে ফিরলে তাকে তারা গ্রেফতার করবে। এই কারণে দেশে ফিরতে পারছে না।
সূত্র জানায়, পরিস্থিতি অনুকূলে না গেলে সেটা যেমন হবে না, তেমনি এমন পরি¯ি’তি তৈরি করা হবে যাতে করে তারেক রহমানের পক্ষে কোন ভাবেই দেশে ফেরা সম্ভব না হয়। এই জন্য তারেক রহমানের ২১ আগষ্টের গ্রেনেড হামলার মামলা ছাড়াও দুর্নীতির মামলায় শাস্তি হতে পারে। ওই মামলায় শাস্তি দিয়ে এরপর তারা তারেক রহমানেরও দেশে ফেরার পথ বন্ধ করে দিতে পারে। যখন সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের দুর্নীতির মামলায় শাস্তি হলে ওই অবস্থায় তারা নির্বাচনে অযোগ্য হতে পারেন। নির্বাচনের অযোগ্য হলে তারা নির্বাচন করতে পারবেন না। এই অবস্থায় তাদের দুই জনের অনপু¯ি’তির কারণে নিবার্চন হলে বিএনপির মধ্যে দুটি গ্র“প সক্রিয় হয়ে উঠবে। একটি গ্র“প চাইবে নির্বাচনে যেতে আর একটি গ্র“প চাইবে খালেদা- তারেক ছাড়া নির্বাচনে না যেতে। যারা নির্বাচনে যাবে না তাদের কথা হবে দলের চেয়ারপারসন ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ছাড়া তারা নির্বাচনে যাবেন না। কারণ ওই নির্বাচনে বিএনপি গেলেই ওই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিয়েছে ও আন্তর্জাতিক মহলের কাছে তা গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।
সূত্র জানায়, সরকার মনে করছে, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের আদালতের রায়ের শাস্তি প্রাপ্ত হলে এনিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের ও কিছুই বলার থাকবে না। কারণ আদালতের মাধ্যমে তাদের শাস্তি হলে সেখানে সরকারের কিছুই করণীয় নেই এটাই মনে করবে। তখন আন্তর্জাতিক মহলও এনিয়ে কোন প্রশ্ন তুলবে না। দুর্নীতির মামলায় শাস্তি প্রাপ্ত আসামির পক্ষে কোন কথাও বলবে না। সরকারও তখন তাদেরকে বলতে পারবে। সরকার সেই সুযোগটাই নিতে চাইছে।
সূত্র জানায়, তারেক রহমান ও খালেদা জিয়ার শাস্তি হয়ে গেলে পরে বিএনপির দুই অংশে বিরোধ দেখা দিলে এরপর বিএনপির একটি অংশকে নিয়ে নির্বাচন করবে। ওই ভাঙ্গনের অংশ বিএনপির একজন ¯’ায়ী কমিটির সদস্যকে রাখা হবে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য। সূত্র জানায়, আমরা ওই নেতার নামও জেনেছি। দলে ওই নেতার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এর আগেও তার ব্যাপারে অনেক কথা উঠেছে। দশম নির্বাচনেও তিনি বিএনপির একটি অংশ নিয়ে নির্বাচনে যেতে পারেন এমন কথাও শোনা গেছে। ওই পরিকল্পনা এখনও শেষ হয়ে যায়নি। বেগম খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ওই নেতাকে এখন হুমকির মুখে রাখা হয়েছে। 
তাকে নানা ভাবে ভয় দেখানো হচ্ছে। তার গুলশানের বাড়ি থেকেও উচ্ছেদ করা হতে পারে। ওই নেতা এখন হতাশ ও তার মন ভাল নেই। এ ব্যাপারে ওই নেতার  কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দেশে এখন কোন রাজনীতি নেই। আমি হতাশ ঠিক নই। তবে দেশের এই অব¯’ায় আমার মনটা ভীষন খারাপ। এই ভাবে চলতে পারে না। তিনি বলেন, আমি মানসিক চাপের মধ্যে আছি। এখন কোন রাজনীতি নেই। রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে হবে। আমরাতো অনেক করলাম। আর কত। এখন নতুনরা আসবে। তারাই পরিবর্তন করবে।
আগাম নির্বাচনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানকে মাইনাস করে বিএনপির একটি অংশকে নিয়ে আগাম নির্বাচনের একটি সম্ভাবনার কথা শোনা যাচ্ছে। বিএনপিকে এই ভাবে নির্বাচনে নিতে না পারলে ২০১৯ সালের আগে কোন নির্বাচনই হবে না। এই অবস্থায় বিএনপির পরিকল্পনা কি জানতে চাইলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আওয়ামী লীগ এখন দেশে এক নায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। তাদের যা মনে হচ্ছে তাই করছে। আগামিতেও করার চেষ্টা করবে।  আমরা যেটা করতে চাইছি সেখানেই বাঁধা দিচ্ছে। তারা মনে করে  তাদের সব পরিকল্পনা সফল হবে। এটা অতীতেও কেউ কেউ চিন্তা করেছে কিন্ত পারেনি। আগামী দিনেও তারা তাদের এই ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারবে না। দেশের মানুষ জেগে উঠবে।
তিনি বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় থাকার জন্য মেরে কেটে হোক বা যে কোন ভাবেই হোক ক্ষমতায় থাকার জন্য সব চেষ্টা করছে। আগামীতেও করবে আমরা জানি। এই অবস্থায় তারা চেষ্টা করলেও আমরা বসে থাকবো না। আমরাও আন্দোলনে নামবো। জনগনকে  সম্পৃক্ত করবো। এছাড়াও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য সংলাপের জন্য সব ব্যবস্থা নেব। তিনি বলেন, সরকার আবারও ক্ষমতায় আসার জন্য অনেক ধরনের ষড়যন্ত্র ও চেষ্টা করতে পারে সেগুলো আমাদেরকে ব্যর্থ করে দিতে হবে। কেউ ক্ষমতায় চিরদিন থাকে না। আওয়ামীলীগও পারবে না। পরিস্থিতি বদলে যাবে।
এদিকে বেগম খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ট একজন বলেন, আমরা সরকারের এই সব গোপন পরিকল্পনা সহ আরো অনেক খবরই জেনে গেছি। এই সব কথা বিবেচনা করেই আগামি দিনের জন্য পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এখন আমরা ন্যায় বিচার না পেলেও আগামিতে পাবো সেই ব্যাপারে আশাবাদি। আওয়ামী লীগকে শুধু একটা কথা মনে করিয়ে দিতে চাই যে তারা যে সব নিয়ম করছেন এই সব নিয়ম তাদের বেলায়ও বিএনপি ক্ষমতাসীন হলে ব্যবহার করতে পারে। সেটা হলে কি ভাল হবে? ক্ষমতায় থাকার জন্য যতই পথ বের করুক সেই পথ জনগণই একসময় নষ্ট করে দিবে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া