adv
৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তারাবি পড়–ন ধীরে সুস্থে সোতসাহে ও আন্তরিকতার সঙ্গে

মুহাম্মদ নূরুল আবছার তৈয়বী (আবুধাবি থেকে) : মাহে রমজান মুমিন মুসলমানদের জন্য আল্লাহ জাল্লা শানুহু ও প্রিয়নবী হযরত রাসুলে করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পক্ষ থেকে বিশেষ নেয়ামত। এই মাসে মুসলমানদের এমন কতগুলো ইবাদত করতে হয়, যা অন্য ১১ মাসে করতে হয় না। মাহে রমজানে তারাবির নামাজ আদায় করা তেমনি একটি বিশেষ ইবাদত। রমজান মাস ছাড়া অন্য কোনো মাসে তারাবির নামাজ পড়ার নিয়ম নেই। আরবি ‘তারাবীহ্’ শব্দের অর্থ আরাম ও প্রশান্তি। তাই তারাবির নামাজ পড়তে হবে আরামের সঙ্গে, ধীরে-সুস্থে। তাড়াহুড়ো করে তারাবির নামাজ আদায় করলে এ নামাজ বিধিবদ্ধ করার উদ্দেশ্যই ব্যাহত হয়। সারা দিন রোজা রেখে ইফতারের পর রোজাদারের শরীর ও মনে শিথিলতা আসে। অনেক সময় পুরো শরীরটাই কাহিল হয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে ২০ রাকাত তারাবির নামাজ আদায় করলে রোজাদারের দেহ-মন আবার সজীব হয়ে ওঠে। রোজাদারের তনু-মন চাঙ্গা করার ক্ষেত্রে তারাবির নামাজ যেন ‘টনিক’ হিসেবে কাজ করে। এ-তো গেল কেবল দুনিয়াবি ফায়দা। কিš‘ উম্মতের দরদী নবী রাহমাতুল্লিল আলামীন (দ.) তারাবির নামাজের যে ফজিলত বর্ণনা করেছেন তা শুনলে তো প্রতিটি মুসলমান তারাবির নামাজ আদায় করার ক্ষেত্রে আরো বেশি উৎসাহিত হবে, হবে উদগ্রীব। যেমনÑ হযরত আবূ হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হযরত রাসুলে করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজান মাসের রাতে ঈমান ও নিবিড় সতর্কতাসহ (সওয়াবের উদ্দেশে তারাবির) নামাজ আদায় করবে, তার পূর্ববর্তী গুনাহসমূহ মাফ করে দেওয়া হবে’ (বুখারি, মুসলিম)। সুুনানে নাসায়ী ও মুসনাদে আহমদ হাদিস গ্রন্থদ্বয়ে বর্ণিত আছে, হুজুর নবী করিম রাউফুর রহীম (দ.) ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহপাক তোমাদের ওপর রমজান মাসের রোজা ফরজ করেছেন এবং আমি মাহে রমজানে মাসব্যাপী আল্লাহর ইবাদতে দাঁড়ানো তোমাদের জন্য সুন্নাত হিসেবে নির্ধারণ করেছি। সুতরাং যে ব্যক্তি এ মাসে রোজা পালন করবে এবং আল্লাহর সামনে ঈমান ও আন্তরিকতাসহ (তারাবির নামাজের জন্য) দাঁড়াবে, সে তার গুনাহ থেকে সেদিনের মতোই নিষ্কৃতি লাভ করবে, যেদিন তার মা তাকে প্রসব করেছিল।’ অর্থাত তারাবির নামাজ আদায়কারী সদ্যোজাত মানব শিশুর মতো পুতঃপবিত্র হয়ে যায়।

তারাবির নামাজ ধীরে ধীরে আরামের সঙ্গে আদায় করতে হবে। কিন্তু এতে কোনো প্রকার আলস্য প্রদর্শন করলে এর সাওয়াব পাওয়া যাবে না। যা উপরোল্লিখিত হাদিস শরিফ থেকে প্রতীয়মান হয়। রমজান মাস আসলে আবাল-বৃদ্ধ নির্বিশেষে মুমিন-মুসলমানদের পদভারে মসজিদ চত্বর প্রকম্পিত হয়, মুসল্লিদের আধিক্যে প্রতিটি মসজিদে তিল ধারণের জায়গা থাকে না আর।
আতর, গোলাপ আর নানারকম খোশবুর মনমাতানো গন্ধে মৌ মৌ করে ওঠে মসজিদের ভেতর বাহির। মসজিদের অলিন্দে দাঁড়িয়ে সে দৃশ্য দেখলে যে কেউই মোহিত হবে, হবে আকৃষ্ট। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হলেও সত্য যে, মাহে রমজান চলে গেলে সেই সব মুসল্লিদের আর দেখা মেলে না। মুসল্লি বিহনে সুরম্য মসজিদ তপ্ত মরুভূমির মতো খাঁ খাঁ করে ওঠে। অথচ আমরা একটু সচেতন হলেই আমাদের মসজিদগুলো আবাদ থাকতে পারে বারোমাস। ইমাম বায়হাকী ও তিরমিজী হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাদ্বি আল্লাহু তা’আলা আনহুমা) থেকে বর্ণনা করেছেন যে, ‘আমাদের প্রিয়নবী হযরত রাসুলে করিম (সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম) মাহে রমজানে ২০ রাকাআত তারাবির নামাজ আদায় করতেন।’ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত (হানাফী, শাফেয়ী, মালেকী ও হাম্বলী মাযহাব)-এর সর্বসম্মত মতানুযায়ী এবং ইজমায়ে উম্মত অনুসারে বিশ রাকাত তারাবীহর পূর্ণ নামাজ আদায় করা সুন্নাতে মুআক্কাদা। (ফাতওয়ায়ে শামী) রাফেজী (শিয়া), লা-মাযহাবী ও আহলে হাদীসপন্থিসহ বিভিন্ন বাতিল মতবাদের অনুসারীরা অন্যান্য বিষয়ের মতো এতেও ভিন্নমত পোষণ করেন। তারা তারাবির নামাজ পড়ে মাত্র ৮ রাকআত। অথচ বিশ্বের সব মুসলিম দেশে এমনকী খোদ হারামাইন শরীফাইনেও (পবিত্র মক্কা মুকাররমা ও মদিনা মুনাওওয়ারা) ২০ রাকাত তারাবির নামাজ অত্যন্ত গুরুত্ব ও যতœ সহকারে জামায়াতের সঙ্গে আদায় করা হয়। তারাবির নামাজে এক খতম কোরআন শরিফ পড়া সুন্নাতে সাহাবা। দুই খতম, তিন খতম পড়া উত্তম। সম্মানিত ইমাম সাহেবান ও হাফেজে কোরআন সাহেবানদের খেদমতে আরজ থাকবে, তারা যেন খতমে কোরআন আদায় করার ক্ষেত্রে এমনভাবে কিরাত পড়েন, যাতে পুরোপুরি মাখরাজ আদায় হয় এবং প্রতিটি বর্ণ ও শব্দ স্পষ্টভাবে বোঝা যায়। মনে রাখতে হবে, যদি এর ব্যতিক্রম হয়, তাহলে কিরাত শুদ্ধ হবে না। আর কিরাত শুদ্ধ না হলে নামাজও আদায় হবে না। তাই এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সবার সতর্কতা প্রয়োজন। 
মুহাম্মদ নূরুল আবছার তৈয়বী, প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি, প্রবাসী সাংবাদিক সমিতি- দুবাই,

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া