adv
১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরেজমিন প্রতিবেদন- দেখুন পড়ুন ফরমালিন মেশানোর পদ্ধতি

ছবি: সংগৃহীতডেস্ক রিপোর্ট : ভাই ধর-পাকড় চলছে, আড়তে মেডিসিন না দেওয়াই ভালো’ কি বলেন?… ঠিক আছে ভাই, তাইলে ওই ভাবেই দিচ্ছি।
রোববার দুপুরে আমের রাজধানী খ্যাত কানসাট বাজারের দক্ষিণ পাশ্বে ঢুকতেই মোবাইল ফোনালাপের এই কথাগুলো কানে আসলো। 
বুঝতে বাকি থাকলো না কীভাবে আমে বিষাক্ত ফরমালিন ও কার্বাইড মেশাবেন তার অনুমতি ও পদ্ধতি নিয়েই এই কথপোকথন। 
তাইলে ওই ভাবেই দিচ্ছি’ শব্দগুলো কানে বাজছে। কীভাবে? কৌতুহল নিয়ে  ধরনা দিলাম ওই আড়তদারের পেছনে। চতুর এই আড়তদারের সঙ্গে তার একাধিক সহকর্মী।
তাদেরই এক জনের মাধ্যমে ঘনিষ্ট হওয়ার চেষ্টা। অবশেষে তাদের নাম, পরিচয় গোপন রাখার শর্তে, কীভাবে ফরমালিন ও কার্বাইডের মতো বিষ আমে মেশানো হচ্ছে সেই পদ্ধতি দেখার সুযোগ মিললো। 
কথা বলতে বলতে আমগুলো সারিবদ্ধ করে মেঝেতে সাজিয়ে রাখছিলেন কর্মচারীরা। সাজানো শেষ হলেই দুই জনকে পাঠিয়ে দেওয়া হলো আড়তের বাইরে। এরা নজর রাখবে কেউ এসে পড়ে কি না তা দেখার জন্য। দুই জন বেরিয়ে গেলেই আড়তের দরজা লাগানো হলো। বিশ্বস্ত কর্মীদের একজন আড়তের টিনের চালের ওপর থেকে নিয়ে এলেন ওষুধ ও সরঞ্জাম। একটি ৫০০ গ্রামের কার্বাইডের বোতল, ফরমালিনের প্যাকেট সঙ্গে দুই লিটার পানির বোতল ও একটি স্প্রে মেশিন। 
নিজের চোখের সামনেই ঘটে যাচ্ছে সব ঘটনা। স্প্রে মেশিনের মধ্যে কার্বাইডের মুখ থেকে দুই মুখ কার্বাইড ঢেলে নিয়ে কিছুক্ষণ ঝাকিয়ে নিলেন।
গামছা দিয়ে মুখ ঢেকে মেঝেতে সাজানো আমের ওপর শুরু করলেন বিষ ছড়িয়ে দেয়ার কাজ। মিনিট বিশেকের মধ্যে দেড়’শ মণ কাঁচা আমে মিশে গেলো কার্বাইড। 
লম্বা আড়তের অনুচ্চ সিলিংয়ের ওপরের ফুল স্পিডে ঘুরছে ডজনখানেক ফ্যান। শুরু করলো ফ্যানের পাখাগুলো। এরপর কিছুক্ষণ শুধু বাতাসের শব্দ। 
কার্বাইডের পার্ট শেষ। জানালেন একজন কর্মচারী। এরপর ফরমালিন মেশানোর পালা। একই পদ্ধতিতে ফরমালিন স্প্রে করা হলো আমে। মহুর্তে মিশে যায় বিষ। মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতিকারক এই বিষ আমের সঙ্গে মিশতে খুব বেশি সময় নেয় না। প্রায় ঘণ্টাখানেক পর সবকিছু শুকিয়ে যায়।
খুব বেশি নজর না দিলে বোঝার উপায় নেই কিছুক্ষণ আগে এই আমগুলোর সঙ্গে মেশানো হয়েছে মরণঘাতক বিষ। 
এরপর তড়িঘড়ি শুরু করলেন কর্মচারীরা। প্যাকেটে ঢোকাতে হবে আম। কার্বাইড আর ফরমালিন মেশানোর পর বেশিক্ষণ বাতাসে না রাখাই ভালো। এতে ক্রিয়া নষ্ট হয়, মত ওই কর্মচারীর। 
সবাই মিলে হাত লাগিয়ে প্যাকেট করা হলো আমগুলো। বেলা তিনটা নাগাদ পুরো প্রস্তুত। এখন শুধুই অপেক্ষা সন্ধ্যায় ট্রাকে আমগুলো তোলা হবে। এই আম ঢাকায় পৌঁছাতে পৌঁছাতে পেকে হলুদ হবে। যা বাজারে বাজারে ছড়িয়ে পড়বে।  
ব্যবসায়ী ও আড়তদারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কানসাটে আগে এমনভাবে কার্বাইড বা ফরমালিন মেশানো হতো না। কিন্তু ঢাকায় কড়াকড়ির কারণেই এখন বেশিরভাগ আমে ফরমালিন ও কার্বাইড দেওয়া হয় এখানেই। 
বলা হয়, যেখান থেকে আম বিক্রি হবে সেখানেই মিশবে। আমের ক্যারেটেই হালকা করে স্প্রে করে দিলেই তাদের উদ্দেশ্যে হাসিল হয়ে যায়।
কৌশলে এত কিছু দেখা হলেও কার্বাইড বা ফরমালিন কখনো চোখেই দেখেননি আমবাজার আড়তদার সমিতির নেতারা।   
কানসাট আম বাজার আড়তদার সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা কখনো ফরমালিন বা কার্বাইড চোখেই দেখিনি। আসলে কাঁচা আম পাকানোর জন্য এক ধরণের ওষুধ ব্যবহার করা হতো। এসব ওষুধ দোকান থেকেই কিনে নেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে। সরেজমিনের দৃশ্যের কথা তুলে ধরলে তিনি বলেন, নাম ও ঠিকানা বলেন আমরা প্রস্তুত এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কানসাট বাজারের প্রায় সব আড়তের আমে এভাবেই অবাধে মেশানো হয় ফরমালিন ও কার্বাইড। 
অনুসন্ধানে জানা যায়, কয়েকটি ধাপে আম আড়ত থেকে প্যাকেটজাতকরণ করে ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হয়। একেবারে শেষের দিকে গিয়ে আমে মেশানো হয় ফরমালিন ও কার্বাইড নামের বিষ। ভোর রাত থেকেই গাছ থেকে আম সংগ্রহ শুরু করেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও আমচাষীরা। এরপর কেউবা সাইকেলের দুই পাশে আবার কেউবা ভ্যানে করে আম নিয়ে হাজির হন কানসাট আম বাজারে। 
সকাল থেকেই বাজারে শুরু হয় ঢাকার বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও স্থানীয় আড়তদারদের আম কেনা-বেচা। দর-দামে ঠিক হলে আমের গায়েই আড়তদার তার নাম ও স্বাক্ষর পড়ে। এরপর চলে যায় আড়তে। 
সেখানে পৌঁছানোর পর ওজন দিয়ে মেঝেতে বিছিয়ে রাখা হয় আম। এরপর আমের প্রকার ভেদে ভাগ ভাগ হয়ে সাজতে থাকে মেঝেতে। এরপর শুরু হয় ফোনালাপ। ফোন করে জানা কেনো জরুরি? এই প্রশ্নের উত্তর জানালেন একজন আড়তদার। বললেন, যিনি আম কিনেছেন তিনিই জানেন কখন ট্রাকে তুলবেন। ট্রাকের তোলার সময় হিসাব করেই কার্বাইড ও ফরমালিন মেশানো জরুরি। সূত্র বা-নি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া