adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এবার চালেও আর্সেনিক!

shamim 4ডেস্ক রিপোর্ট : খাদ্যশস্যে আর্সেনিক নিয়ে যখন অস্পষ্টতা, তখন জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের এক পরীক্ষায় চালে সহনশীল মাত্রার চেয়ে দেড় গুণ বেশি আর্সেনিক পাওয়া গেছে। যে চাল আবার ক্রয় করা হয়েছিল রাজধানীর তিনটি কাঁচা বাজার থেকে।
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলিত গবেষনা দাবি করছে, রাজশাহী, যশোর, ফরিদপুর ও সোনার গাঁ সহ ২০ টি জেলার ধানের মধ্যে রয়েছে আর্সেনিক। এর মাত্রা প্রতি কেজিতে ০.১ থেকে ০.৩ মিলিগ্রাম।
জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড: সুবিমল সিংহ চৌধুরী বলেন, ‘১৩ টি রাইস স্যাম্পল সংগ্রহ করার পর পাঁচটির মধ্যেই আর্সেনিক পাওয়া গেছে। কৃষি জমিতে এখনও নলকূপের পানি ব্যবহার করা হয়। এটি কিন্তু আর্সেনিকের কারণ হতে পারে।
ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট বলছে, তাদের অনুসন্ধান অনুযায়ী চালে আর্সেনিক এখন নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। তবে ভবিষ্যতেও এটি নিয়ন্ত্রনে থাকবে বলে বিজ্ঞানীরা মনে করছেন না। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.পার্থ এস বিশ্বাস বলেন, ‘আমরা আর্সেনিক যুক্ত পানি দিয়ে চাষাবাদ করছি। পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ বাড়লে ধান এটি বেশি শোষণ করবে। আজকে এর পরিমাণ কম থাকলেও ২৫ বছর পরে কম নাও থাকতে পারে।
সম্প্রতি ড. পারভেজ হ্যারিসের নেতৃত্বে যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানি নারায়ণগঞ্জের আড়াই হাজারের ১৮ হাজার মানুষের উপর গবেষণা করে দেখিয়েছেন, যারা ভাত বেশি খান তাদের শরীরে ইতোমধ্যে আর্সেনিক প্রবেশ করেছে। এবং অনেকের ত্বকে নানা অসুখ দেখা দিয়েছে। যা আর্সেনিক বিষক্রিয়ার প্রাথমিক লক্ষণ।
অন্যান্য জটিল অসুখ তো আছেই, ক্যান্সার সৃষ্টির ক্ষেত্রেও আর্সেনিককে বলা হয় এক নম্বর হেভি মেটার। আর্সেনিকের বৈশিষ্ট হলো, রান্নার তাপমাত্রায় এর কিছুই হয় না। তাই দুশ্চিন্তার বিষয় যে, ভূগর্ভস্থ’ পানির ভয়ঙ্কার মাত্রার আর্সেনিক কোন ভাবেই ধানে ঢুকে পড়ছে কিনা? কারণ বাংলাদেশের মানুষের প্রধান খাদ্য ভাত। তাই বিষয়টি এখন আর অবহেলার নয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া