adv
৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে অংশ নিবে বিএনপি

20130127-192317_12392নিজস্ব প্রতিবেদক : সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার দাবিতে দীর্ঘ দিন ধরে যে আন্দোলন করে আসছিলো তা থেকে সরে আসতে চাইছে দলটি। সংলাপ-সমঝোতার মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচনের নিশ্চয়তা পেলে তারা এই তত্ত্বাবধায়ক দাবি ‘ছাড়’ দেবে। সে ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেও নির্বাচনে যেতে আপত্তি করবে না দলটি। তবে এজন্য নির্বাচনকালীন সরকারে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন ও প্রশাসনে রদবদল চাইতে পারে তারা।
এদিকে বিএনপির এমন নরম মনোভাবে বিপাকে পড়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এতদিন ক্ষমতাসীনরা হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে আসতে হবে এমন বক্তব্য দিলেও এখন তারা সমঝোতার বিষয়টাকে পাত্তা দিচ্ছেন না।
এর কারণ হিসেবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের পর দেশে যেভাবে অপহরণ-গুম-খুন যেভাবে বেড়েছে তাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। এসব অপরাধের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের জড়িত থাকার অভিযোগ উঠছে প্রায়ই। এছাড়া বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিষয়টিও একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব কারণে, সরকার মনে করছে এই মুহূর্তে নির্বাচন হলে নিশ্চিত তাদের শোচনীয় পরাজয় হবে। তাই তারা সংলাপের বিষয়টিকে আর পাত্তা দিচ্ছে না।
জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে অনড় থাকলেও এখন সেই অবস্থান থেকে সরে আসতে চায় বিএনপি। কয়েক মাস ধরে দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্যেও তত্ত্বাবধায়ক দাবি তোলা হয়নি। তবে সবার অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচনের নিশ্চয়তা চেয়ে আসছে দলটি। এ জন্য দ্রুত সংলাপে বসতে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করার নীতিগত অবস্থান নেওয়া হয়েছে। সরকার যদি সংলাপে আগ্রহ না দেখায় তাহলে রমজানের পর পর্যায়ক্রমে আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায়ের চেষ্টা চালাবে। দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপে এ তথ্য জানা গেছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সংলাপের মাধ্যমে সমস্যা সমাধান করে নতুন নির্বাচন দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছেন। যদিও ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন। অবশ্য এর জবাবে সোমবার রাতে বেগম জিয়া বলেছেন, ‘সংকটের সমাধান চাইলে অবশ্যই আমার সঙ্গে আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী) কথা বলতে হবে। আমি বিরোধী দলের নেতা নই, জনগণের নেতা। দেশের ৯৫ ভাগ মানুষ আমার সঙ্গে আছে। যদি ৫ জানুয়ারি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হতো তাহলে আমি বিরোধীদলীয় নেতা নই, সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী হতাম।’
তত্ত্বাবধায়ক দাবি ছাড় প্রসঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার যদি সংলাপে আগ্রহ দেখায় তাহলেই কেবল ছাড়ের প্রশ্ন আসে। কিন্তু এখনো সরকার সংলাপ চায় বলে মনে হয় না। আমরা তো আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই। সরকারকেই সে পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই আগামীতে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পথ খুঁজে বের করা সম্ভব বলেও মনে করেন তিনি।
বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, আগামী জানুয়ারির মধ্যে আগাম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবি নিয়ে এগোচ্ছে দলটি। এ জন্য সংলাপের পথ খোলা রেখে আন্দোলনের প্রস্তুতিও রাখছে তারা। তবে সরকার আলোচনায় আগ্রহ না দেখালে যা যা করা দরকার তা-ই করা হবে।
একইভাবে কূটনৈতিক তৎপরতা চালানোর সঙ্গে সঙ্গে দলকে সাংগঠনিকভাবেও প্রস্তুত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
জানা গেছে, সম্প্রতি সংলাপের বিষয়ে দলের কয়েকজন ঘনিষ্ঠ নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। সেখানে তত্ত্বাবধায়ক দাবি ছাড় দেওয়ার বিষয়টি উঠে আসে। বেগম জিয়াও এতে সায় দেন। তবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের নিশ্চয়তা পেলেই কেবল বিএনপি এ ছাড় দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানান তিনি।
বেগম জিয়াকে নেতারা বলেন, সংলাপের জন্য সরকারকে চাপ দিতে হবে। আপাতত সভা-সেমিনারে এ ব্যাপারে চাপ সৃষ্টি করতে হবে। তাতেও কাজ না হলে আন্দোলনের মাধ্যমেই দাবি আদায়ে একমত পোষণ করেন বিএনপি নেতারা।
জানা গেছে, রমজানের পর ঢাকায় একটি বড় সমাবেশ করে বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচন এবং সংলাপের আয়োজন করতে সরকারকে আবারও আলটিমেটাম দিতে পারেন। সেখানে তত্ত্বাবধায়ক দাবি ছাড় দেওয়ার বিষয়টিও উঠে আসতে পারে। এতে সাড়া না দিলে আন্দোলনে নামবে দলটি। ইতোমধ্যে সংলাপের জন্য চাপ সৃষ্টি শুরু করেছে বিএনপি। দলটি মনে করে, অব্যাহত চাপ সৃষ্টি করলে এ বিষয়ে একটি জনমতও তৈরি হবে। এক পর্যায়ে সরকার সংলাপের আয়োজন করতে বাধ্য হবে।
জানা গেছে, রমজানের মধ্যেই দল গোছানোর কাজটি সারতে চায় দলের হাইকমান্ড। বেগম জিয়ার বরাত দিয়ে বিএনপি নেতারা বলেন, আগামী বছরের শুরুতেই জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে বিষয়টি মাথায় রেখেই দল গুছিয়ে আন্দোলনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘সংলাপে বসলে আমরাও যে আগের দাবিতে অনড় থাকব তা নয়। প্রয়োজনে আমরাও অনেক কিছু ছাড় দিতে প্রস্তুত। বর্তমান অবস্থায় সরকারেরই দায়িত্ব সংলাপের আয়োজন করা। তাহলেই সমস্যার সমাধান হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া