adv
২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রীপুত্র ধরা ছোঁয়ার বাইরে, ৭ হত্যা তারেকের নির্দেশে

123বিপ্লব বিশ্বাস: নুর হোসেনের টাকায় মন্ত্রী পুত্র ও র‌্যাবের সাবেক ওই তিন কর্মকর্তা যোগসাজসে পরিকল্পিত হত্যা করা হয় কাউন্সিলার নজরুলসহ সাতজনকে। র‌্যাবের একজন ঊধ্বতন কর্মকর্তা কাউন্সিলার নজরুল অপহরণের খবর জানতে পেরে তৎকালীন র‌্যাব-১১ এর সিও লে.কর্নেল তারেককে ফোন দিলে তিনি অপহরণের কথা পুরোপুরি অস্বীকার করেন।
সন্দেহঘনিভূত হলে ওই কর্মকর্তা মেজর আরিফকে ফোন দিলে প্রথমে তিনি ফোন ধরেনি। পরে সিও তারেককে বিষয়টি অবহিত করলে তখন তারেক আরিফের উদ্দেশে বলেন, ‘মোবাইলটি রেখে যেতে বলেছিলাম না’।
আরিফ তখন জানতে চান এখন কী করব। তারেক তাকে বুদ্ধি দেন মোবাইল ধরার জন্য। ধরে ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে যেন বলা হয় মেঘনায় একটি অপারেশনে আছেন তিনি। সে অনুযায়ী ফোন ধরেন আরিফ। অপারেশনের কথা বললে ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তাকে অপারেশন ক্লোজ করে সদর দফতরে যাওয়ার জন্য বলেন। এ সময় ট্রলারের শব্দ শোনা যা”িছল।
২৮ এপ্রিল রাতে র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদেই তিনি এসব স্বীকার করেন। প্রথমে বলতে না চাইলেও যখন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাকে আটকের ভয়ভীতি দেখান তখন তিনি এগুলো স্বীকার করতে বাধ্য হয়। আর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পরদিন তাদের প্রত্যাহার করা হয় এবং পরে অন্তরীণ করা হয়। এমনকি যে কর্মকর্তা ওই রাতে তারেক ও আরিফকে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং বিষয়টি ডিটেক্ট করেন সেই কর্মকর্তাকে দেখে নেয়ার হুমকিও দেন লে. কর্নেল তারেক।
এমনকি তাকে ফাঁসিয়ে দেয়ারও হুমকি দেন তারেক। এই তারেক পিজিআর এ (প্রেসিডেন্ট গার্ড রেজিম্যান্ট) থাকাঅবস্থায় র‌্যাবকে ব্যবহার করতো। তিনি মন্ত্রীর জামাই বলে র‌্যাব-৩ এ থেকে একজন কুখ্যাত সন্ত্রাসীকেও ছাড়িয়ে নেন। অভিযোগ রয়েছে, সেই থেকে শ্যালক মন্ত্রীপুত্র দিপু চৌধুরির প্রভাব আরো বেড়ে যায়। সারায়ণগঞ্জের সাত হত্যায় তার মাধ্যমেই টাকার লেনদেন করেন নুর হোসেন। এরপরও তিনি রয়ে গেছেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে।
র‌্যাবের একটি সূত্র জানায়, ঘটনার পরের দিন দুপুরের দিকে যখন র‌্যাব-১১ এর সিও লে. কর্নেল তারেকের সাথে যোগাযোগ করা হয় তখন তিনি বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করেন। এর পর থেকে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে আসছিলেন। এর মধ্যেই বিষয়টি নিয়ে র‌্যাব সদর দফতরের সন্দেহ হলে ওই ব্যাটালিয়নের কর্মকর্তাদের মোবাইল ফোন ট্র্যাক করা হয়। রাতের দিকে এ সন্দেহ আরো ঘনীভূত হয়। গভীর রাতে তারেক টিঅ্যান্ডটি ফোন দিয়ে মেজর আরিফের মোবাইলে কথা বলেন একাধিকবার। সেই ফোনালাপ থেকেই র‌্যাব সদর দফতর নিশ্চিত হয় এই অপহরণের সাথে তারেক, আরিফ ও এম এম রানা জড়িত। ভোর রাতে আরিফ সদর দফতরে এলে তিনি জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হন।
প্রথমে তিনি কোনোভাবেই সাতজনকে অপহরণ ও হত্যার কথা স্বীকার করতে চাইছিলেন না। বারবার রেফারেন্স দিচ্ছিলেন তার কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল তারেকের। তখন ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তারেকের মোবাইলে ফোন দিয়ে বিষয়টি তাকে অবহিত করেন এবং বলেন, আরিফ তার রেফারেন্স দিচ্ছেন। তারেক তখন আরিফের মোবাইলে ফোন দেন এবং জানতে চান ওই কর্মকর্তা কী জানতে চাইছেন। আরিফ তখন বলেন, সব তথ্য নিয়েই ওই কর্মকর্তা কথা বলছেন। একপর্যায়ে আরিফ সব কিছু বলে ফেলেন। তারেকও সেখানে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হন। তারা কিভাবে হত্যা করেছেন সব কিছু ওই রাতেই বলে দেন। তাদের কথোপকথন, জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তিÑসব কিছুই রেকর্ড করা হয় এবং পরে বিষয়টি সরকারের সর্বোচ্চ মহলকে অবহিত করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া