adv
২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফরমালিন বিক্রেতারা এবার যাবেন কোথায়?

Food-Adulterationনিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীতে ভেজালবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে ফরমালিন বিক্রেতাদের তালিকা সংগ্রহ করা শুরু করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এরই মধ্যে গোয়েন্দারা তথ্য সংগ্রহ করছেন বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম।
বাংলাদেশে চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি ফরমালিন আমদানি করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, বিক্রেতারা ফরমালিন কিভাবে আমদানি করছেন, কার কাছে বিক্রি করছেন তা খুঁজে বের করা হবে। কেন বেশি আমদানি হচ্ছে জানতে ফরমালিন ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশ আলাপ করবে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে দেশের বিভিন্ন খাদ্যপণ্যে ফরমালিনের মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া যায়। খাদ্যে পচন রোধে এই রাসায়নিকের অতিরিক্ত ব্যবহার মানবস্ব্স্থ্যা ঝুঁকিতে ঠেলে দিচ্ছে বলে চিকিতসকরা বলছেন। ফরমালিনের উতস নিয়ে প্রশ্ন তুলে ২০১৩ সালে তৎকালীন বাণিজ্যমন্ত্রী জি এম কাদের জানিয়েছিলেন ২০১২ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৩ সালের আগস্ট পর্যন্ত কোনো ফরমালিন আমদানি হয়নি।
ফরমালিনের অতিব্যবহার ঠেকাতে গত বুধবার অভিযানে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বেনজীর আহমেদ বলেন, দেশে যে পরিমাণ ফরমালিন আমদানি করা হচ্ছে, সে পরিমাণ প্রতিষ্ঠান নেই। বেশি আমদানির কারণ বের করতে হবে। এদিকে ঢাকায় ফরমালিন মেশানো ফল জব্দের অংশ হিসেবে প্রথম দিনের অভিযানে প্রায় ৩ হাজার মণ আম, ২শ মণ জাম ও ১৫ লাখ ফরমালিনযুক্ত লিচু জব্দ করে ধ্বংস করা হয়েছে বলেও জানান যুগ্ম কমিশনার মনিরুল।
তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নষ্ট করে দেয়া ফলগুলোতে সহনীয় মাত্রার চেয়ে অনেক বেশি ফরমালিন মেশানো ছিল। লিচুতে ১.৪৯ থেকে ৩১ পিপিএম পর্যন্ত, আমে ২.৪৮ থেকে ১২৫ পিপিএম মাত্রায় ফরমালিন পাওয়া গেছে। অথচ ফলের ক্ষেত্রে ফরমালিনের গ্রহণযোগ্য মাত্রা ০.১৫ পিপিএম। গত বুধবার থেকে রাজধানীর ৮টি প্রবেশ মুখে চেকপোস্ট বসিয়ে শুর“ হওয়া এ অভিযানে তিন জনকে কারাদ- দেয়ার পাশাপাশি ১২ জনকে ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
ফরমালিন আমদানি নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন : এদিকে, মানুষের দেহের জন্য ক্ষতিকর দ্রব্য ফরমালিন আমদানি নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা করার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে সম্পূরক একটি আবেদন দায়ের করা হয়েছে। ফরমালিন নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা প্রণয়ন এবং ফরমালিন ব্যবহারের ক্ষেত্রে লাইসেন্স কর্তৃপক্ষ গঠনের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবকে কেন নির্দেশ দেয়া হবে নাÑ তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে। মানবাধিকার সংগঠন লিগ্যাল একশন বাংলাদেশের পক্ষে এডভোকেট সৈয়দ মহিদুল কবির হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদনটি করেন।
আবেদনে বাণিজ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, খাদ্য সচিব, স্বাস্থ্য সচিব, শিল্প সচিব, আইন সচিব, বিএসটিআইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও পরিচালক, পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক এবং ডিএমপির পুলিশ কমিশনারকে বিবাদী করা হয়েছে। একই সঙ্গে ফরমালিন নিয়ন্ত্রণে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তার অগ্রগতি প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করার জন্যও আবেদনে জানানো হয়েছে।
নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ বাস্তবায়নে নির্দেশনা চেয়ে করা একটি রিট আবেদনের সম্পূরক হিসেবে আবেদনটি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী মাহিদুল ইসলাম। সেই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৬ মে বিচারপতি রেজা-উল হক ও বিচারপতি এ বি এম আলতাফ হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল জারি করেন।
উল্লেখ্য, সম্প্রতি পবার এক জরিপে প্রকাশ হয় রাজধানীতে ৯৫ ভাগ লিচুতে এবং জামে ১০০ ভাগ ফরমালিন ব্যবহার করা হয়। এছাড়া প্রতিটি ফলেই কমবেশি ফরমালিনের ব্যবহার করা হচ্ছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া