adv
২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জবানবন্দিতে রানা – না’গঞ্জে সাতজনকে হত্যা করা হয় কর্নেল জিয়ার নির্দেশে

Colonel-Ziaul-Ahsan,-Additional-Director-General-(Operations)-of-RABডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জে প্যানেল মেয়র নজরুলসহ সাতজনকে হত্যা করা হয়েছে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি) কর্নেল জিয়াউল আহসানের নির্দেশে। আর এই হত্যাকাণ্ডের সময় সরাসরি উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-১১ এর ততকালীন সিও তারেক সাঈদ মোহাম্মদ।
স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ কথা বলেছেন র‌্যাব-১১ এর সাবেক কর্মকর্তা লে. কমান্ডার (অব.) এমএম রানা। ওই ঘটনায় নিজে জড়িত থাকার কথাও স্বীকার করেছেন রানা। ঘটনার সময় রানা র‌্যাব-১১-এর স্পেশাল ক্রাইম প্রিভেনশন কম্পানির ক্যাম্প কমান্ডারের দায়িত্বে ছিলেন। আদালত সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।
জবানবন্দিতে রানা বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনায় ছিলেন তারেক সাঈদ ও আরিফ হোসেন। অর্থায়নে ছিলেন কাউন্সিলর নূর হোসেন। আর আমি (রানা) ছিলাম অপহরণের মিশনে। কিš‘ ওই দিন নজরুলের সঙ্গে লোকজন বেশি হওয়ায় অপহরণে মেজর আরিফও এসে যোগ দেন’।
রানা জানান, ‘তারেক সাঈদের নির্দেশে পরে তিনি হত্যা ও লাশ নদীতে ফেলার কাজেও অংশ নেন। কিলিং মিশনে তিন
ধাপে তারা তিন র‌্যাব কর্মকর্তা সহ (তারেক, রানা, আরিফ) অংশ নেন ৩০ জন র‌্যাব সদস্য’।
জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন জানান, জবানবন্দিতে রানা স্বীকার করেছেন, হত্যাকা-ে র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জড়িত ছিলেন। জিয়া নামে র‌্যাবের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে ও নূর হোসেনের অর্থায়নে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। হত্যাকাণ্ডে যাদের সম্পৃক্ততা ছিল রানা তাদের বিস্তারিত পরিচয়ও প্রকাশ করেছেন। কিন্তু তা এখনই প্রকাশ করা যৌক্তিক হবে না বলে জানান সাখাওয়াত।
আদালত সূত্র জানায়, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে রানা বলেন, তিনি শুধু নির্দেশ পালন করেছেন। তার দায়িত্ব ছিল প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামকে অপহরণের পর সিও তারেক সাঈদের হাতে তুলে দেওয়া। শুধু নজরুলকে অপহরণের পরিকল্পনা থাকলেও তার সঙ্গে আরো চারজন থাকায় তাদের এবং ঘটনা প্রত্যক্ষ করায় চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালককেও অপহরণ ও হত্যা করা হয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আদালতে জবানবন্দি দেওয়ার আগে তদন্ত টিমের কাছে রানা যা বলেছিলেন, জবানবন্দিতে তার প্রায় সব বক্তব্য ঠিক রেখে বিশদ বর্ণনা করেছেন। ওই কর্মকর্তা আরো জানান, তদন্ত টিম ও আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে এম এম রানা বলেন, নূর হোসেনের সঙ্গে তার তেমন কোনো সম্পর্ক ছিল না। কারণ সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকাটি র‌্যাব-১১-এর স্পেশাল ক্রাইম প্রিভেনশন কম্পানির আওতায় ছিল না। র‌্যাব-১১-এর প্রধান কার্যালয়ের আরিফের সঙ্গে ছিল নূর হোসেনের ভালো সম্পর্ক। আরিফের মাধ্যমেই কয়েকবার নূর হোসেনের সঙ্গে দেখা হয় রানার। সেই সুবাদে পরিচয় ছিল; কিš‘ সেটা দৃঢ় নয়। এর মধ্যে মেজর আরিফ নিজেই রানাকে ফোন করে নজরুলকে অপহরণের বিষয়টি জানান।
প্রথমে রানা কিছুটা আপত্তি করলেও সিও লে. কর্নেল তারেক সাঈদের নির্দেশে সংযত হন তিনি। তা ছাড়া র‌্যাবের একজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাও বিষয়টি অবগত আছেন বলে রানাকে জানান আরিফ। পরিকল্পনা মোতাবেক রানার ওপর দায়িত্ব পড়ে নজরুলকে অপহরণের। সেই পরিকল্পনায় নারায়ণগঞ্জ আদালতে ২৭ এপ্রিল সাদা পোশাকের লোক পাঠান রানা। কিন্তু সেখানে নজরুলকে অনুসরণ করতে গিয়ে ওই সাদা পোশাকধারী ব্যক্তি জনতার হাতে ধরা পড়ে এবং তাকে কোর্ট পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। 
এ ঘটনায় রানা কিছুটা বিচলিত হয়ে পড়েন। পরে ঘটনা সামাল দিয়ে রানা ও আরিফ হোসেন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ময়লাস্তূপের সামনে নজরুলকে বহন করা গাড়ি আটকে তাদের জোর করে নামিয়ে র‌্যাবের গাড়িতে তোলেন। ওই সময় চন্দন সরকারের গাড়িটি ছিল ঠিক পেছনে। তিনি মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় দৃশ্য ধারণ করছিলেন। এ সময় গাড়ি থেকে নেমে রানা বাধা দেন। তখন তাদের মধ্যে বাগিবত-া হয়। একপর্যায়ে চন্দন সরকারের মোবাইল ফোন হাতে নিয়ে ভিডিও রেকর্ড মুছে ফেলার চেষ্টা করেন রানা। বিষয়টি তিনি তারেক সাঈদকে ফোন করে জানান। বলেন, ‘একজন আইনজীবী ঝামেলা করছে,। উত্তরে তারেক সাঈদ বলেন, তাকেও পিকআপ করো। এর পরই সাতজনকে গাড়িতে তুলে নেয় র‌্যাবের টিম।
রানা আদালতে আরো জানান, অস্ত্র দেখিয়ে সাতজনকে র‌্যাবের গাড়িতে তুলে নেওয়া হয়। গাড়ি ছিল দুটি। গাড়িতে ওঠানোর পর তাদের প্রথমে চেতনানাশক স্প্রে করা হয়। সাতজনই জ্ঞান হারানোর পর গাড়ি দুটি র‌্যাবের সাদা পোশাকের লোকজন নিয়ে যায় অন্য গন্তব্যে। এর মধ্যে সাতজনকে বহন করা হাইএস গাড়ি নিয়ে যাওয়া হয় নরসিংদীতে। পথে তাদের শরীরে আবারও অচেতন হওয়ার ইনজেকশন পুশ করা হয়।
রানা বলেন, ‘মূলত আমার দায়িত্ব ছিল নজরুলকে অপহরণ করা। কিন্তু পরে তারেক সাঈদ আমাকে নির্দেশ দেন পুরো মিশনে থাকতে’। রানা জবানবন্দিতে হত্যার পর লাশ ইট দিয়ে বেঁধে নৌকায় তুলে নদীর মোহনায় ফেলে দেওয়ার ঘটনার বিশদ বর্ণনা দেন। রানা আরো জানান, সাতজনকে অপহরণ থেকে শুরু করে হত্যা পর্যন্ত নূর হোসেনের সঙ্গে কয়েক দফা কথা হয় আরিফের। 
তখন নূর হোসেন বারবার হত্যার বিষয়ে কথা বলেন ও চাপ দিতে থাকেন। পরে পরিকল্পনা হয় রাতে মানুষজন কম থাকলে হত্যা করা হবে। রাত ১০টার পর কাঁচপুর ব্রিজের পশ্চিম পাড়ে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরভূমিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বালু-পাথরের ব্যবসাস্থল জনমানুষশূন্য করার জন্য নূর হোসেনকে ফোন দেন মেজর আরিফ। তাদের বহন করা গাড়ি কাঁচপুর সেতুর নিচে আসার পথে অচেতন হওয়া সাতজনের মাথা শক্ত পলিথিন দিয়ে পেঁচানো হয়। পরে তিনি ও আরিফসহ র‌্যাব সদস্যরা মিলে সাতজনকে গলাটিপে শ্বাসরোধে হত্যা করে। লাশ কোথায় ফেলবে সেটা নিয়ে শুরু হয় নতুন চিন্তা। পরে পরিকল্পনা মোতাবেক কাঁচপুর সেতুর নিচে লাশগুলো ওঠানো হয় একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকায়। পুলিশ যাতে কোনো রকম সন্দেহ না করে সে জন্য ওই নৌকায় ছিলেন কয়েকজন র‌্যাব সদস্য।
নৌকায় করে লাশ শীতলক্ষ্যা ও ধলেশ্বরীর মোহনায় নেওয়ার পথে খুবই দক্ষ কায়দায় পেট ফুটো করে গ্যাস বের করে দেওয়া হয় এবং সবার শরীরে ইট বেঁধে ফেলা হয়। নদীতে লাশ ফেলার পর নূর হোসেনকে ফোন করে আরিফ বিষয়টি জানান। তখনই মূলত উত্তেজিত নূর হোসেন শান্ত হন এবং র‌্যাবকে ধন্যবাদ জানান।
 
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ শেষে লে. কমান্ডার (অব.) এম এম রানাকে নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি মামুনুর রশীদ মণ্ডল রানার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদানের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ঢাকা ট্রিবিউন

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া