adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণের পর গাছে ঝুলিয়ে হত্যা : ক্ষোভে উত্তাল উত্তর প্রদেশ, গ্রেফতার ৩

ধর্ষণের পর গাছে ঝুলিয়ে হত্যা: ক্ষোভে উত্তাল উত্তর প্রদেশ, গ্রেফতার ৩আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের উত্তর প্রদেশের বদায়ূঁতে দুই দলিত কিশোরীকে গণধর্ষণের পর গাছে ঝুলিয়ে হত্যার ঘটনায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের প্রশাসন। কেন্দ্রীয় সরকারের চাপ ও বিভিন্ন মহলের সমালোচনার মুখে অবশেষে এক পুলিশসহ অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি চারজন এখনও পলাতক।
চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার তদন্তের অগ্রগতি জানতে লখনউয়ের সচিবালয়ে ফোন করে রিপোর্ট তলব করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং।  এরপর মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। সেইসঙ্গে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল গঠন করে অভিযুক্ত শাস্তি দেয়া হবে বলেও জানান। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর একটি বেফাঁস মন্তব্যের কারণে এসব উদ্যোগ বাস্তবায়ন নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।
গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে উত্তর প্রদেশে একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়েছিলেন এক মহিলা সাংবাদিক। অখিলেশ এ সময় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আপনার কোনো সমস্যা হয়েছে? আপনি তো সুরক্ষিত। কেন মাথা ঘামাচ্ছেন তা হলে? তার পরে সবার উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের রাজ্যের মতো পুলিশ কন্ট্রোল রুম আর কোথাও নেই। যদি কিছু ঘটে থাকে, আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেব।
বদায়ূঁর ঘটনায় ধর্ষিতা দলিত মেয়ে দু’টির পরিবারের অভিযোগ, তারা বলা সত্ত্বেও সঙ্গে সঙ্গে কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি পুলিশ। পরে  দু’জন কনস্টেবলকে বরখাস্ত করা হয়।    
গত বুধবার সকালে বদায়ূঁর কাটরা গ্রামে ১৪ এবং ১৫ বছরের দুই কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয় একটি আমগাছ থেকে। এক কিশোরীর বাবা বলছেন,  জাতিগত বিদ্বেষের কারণে ওই অঞ্চলের প্রভাবশালী যাদবরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। 
তিনি জানান, মঙ্গলবার রাত থেকেই মেয়েরা নিখোঁজ ছিল। পরে অপহরণকারী এক ব্যক্তির বাড়ি যান তারা। সেই ব্যক্তি অপহরণের কথা স্বীকার করলেও মেয়েদের ছাড়তে চায়নি। সেই সময়ে সেখানে হাজির ছিলেন এক কনস্টেবল। তিনি কোনও সাহায্য করেননি।
মেয়ে দু’টির পরিবার থানায় এফআইআর করতে গেলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের অভিযোগ গ্রহণ করা হয়নি। এ সময়ই তারা জানতে পারেন, মেয়ে দু’টির মৃতদেহ গাছে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে। ঘটনা জানাজানি হতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন গ্রামবাসীরা। এরপরই সক্রিয় হয় পুলিশ। ধর্ষণ এবং খুনের মামলা দায়ের করা হয় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে। কিন্তু সাত অভিযুক্তের মধ্যে মাত্র তিন জন এখন পর্যন্ত গ্রেফতার হয়েছে। এর মধ্যে একজন পুলিশকর্মী সর্বেশ যাদব। আর অন্য দু’জন ধর্ষণে অভিযুক্ত দুই ভাই পাপ্পু এবং অবধেশ যাদব। বাকি দু’জনের মধ্যে আছে পাপ্পুদের আর এক ভাই উর্বেশ যাদব এবং পুলিশকর্মী ছত্রপল যাদব। অন্য দু’জনের পরিচয় জানা যায়নি।
বদায়ূঁর ঘটনার পর পরই সমাজবাদী পার্টি প্রধান মুলায়ম সিং যাদবের নির্বাচনী কেন্দ্র আজমগড় থেকেও ধর্ষণের খবর আসে। আজমগড়ের সরাইমির এলাকায় ১৭ বছরের একটি দলিত মেয়েকে চারজন মিলে ধর্ষণ করে বলে পুলিশ জানায়।
এখানেই শেষ নয়। মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশের নিজের জেলা এটাওয়ায় এক নির্যাতিতার মাকে ধর্ষণে অভিযুক্ত ব্যক্তির বাবা নৃশংসভাবে পিটিয়েছে। পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করার পর থেকেই তাদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে অভিযুক্ত ব্যক্তির পরিবার।
এই তিন ঘটনায় বিএসপি নেত্রী মায়াবতী মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশের সমালোচনা করে রাজ্যে প্রেসিডেন্ট শাসন জারি ও সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন তিনি। নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী মেনকা গান্ধীও বলেছেন, প্রয়োজনে ওই ঘটনায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয়া যেতে পারে।  

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া