adv
৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টিভি মিডিয়ায় আগ্রহ থাকলেও বাজে প্রস্তাব পেয়েছি

Bg_plz_477211949বিনোদন ডেস্ক : যারা রাজধানী ঢাকার ফ্যাশন শো বা এ ধরনের অনুষ্ঠান নিয়মিত উপভোগ করেন তাদের কাছে নতুন করে পরিচয় করে দেওয়ার কিছু নেই লিনা খানকে। ২০০৩ সাল থেকে তিনি এই পেশায় জড়িত। পাশাপাশি বিভিন্ন টিভি অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা ও ফ্যাশন শোর কোরিওগ্রাফার হিসেবে কাজ করছেন। 
এ পেশায় আসার আগ্রহ নিয়ে জানতে চাইলে লিনা খান বলেন,‘ আমার জন্মস্থান চট্টগ্রামে, তা ২০০৩ সালের কথা। মহসিন কলেজে পড়ার সময় এক কাজিনের মাধ্যমে চট্টগ্রামের কোরিওগ্রাফার বাপ্পীর সঙ্গে পরিচয়। তিনিই প্রথম ক্যাফেক্সপো শোতে কাজ করার প্রস্তাব দেন। বন্ধুদের অনুপ্রেরণায় রাজি হয়ে যাই। রিহার্সাল করার সময় না পেলেও আমি স্টেজে খুব ভালো পারফর্ম করি। এভাবেই শুরু।’
টানা ১১ বছর মডেলিংয়ের সঙ্গে আছেন তিনি। ২০০৪-এর দিকে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা আসেন, কাজ করেছেন বিবি রাসেল, লুনা, তুপা, সুমন, আজরা, টুম্পাসহ আরো অনেকের সঙ্গেই।
এ বিষয়ে লিনা বলেন, ‘আমি ভালো কিছু কোরিওগ্রাফারের সঙ্গে মডেল হিসেবে শুরুতেই কাজের সুযোগ পাই। পাশাপাশি ঢাকার ৪০০ বছর, বাটেক্সপো, ক্যাপেক্সপো, ঢাকা ফ্যাশন উইক, মিরর ফ্যাশন উইক, ডায়মন্ড ওয়াল্ড শো, শপার্স ওয়াল্ড, জারা , ব্রাইডাল শো, ল্যাকমি ফ্যাশন উইকসহ বিভিন্ন শোতে টানা কয়েক বছর ধরে মডেল হিসেবে কাজ করছি।’
র‌্যাম্প মডেলদের ইদানিং টিভি নাটকে বা চলচিত্রে অভিনয় করতে দেখা যায়। কিন্তু তেমনভাবে লিনাকে দেখা যায়নি। এ বিষয়ে লিনা বলেন, টিভি মিডিয়ায় কাজের আগ্রহ থাকলেও নানা রকমের সমস্যায় পড়তে হয়েছে। কাজের জন্য বাজে প্রস্তাব পেয়েছি। তবে জাহিদ হাসানের পরিচালনায় ‘লাল নীল বেগুনী’, ‘একা’, ‘তৃতীয় মানুষ’ এবং মোস্তফা কামাল রাজের ‘উইকেট কনফিউসন’ টেলিছবিসহ বেশকিছু নাটকে কাজ করেছি।’
লিনা চ্যানেল সিক্সটিন এ প্রচারিত ‘ঁটপ টেন’ এবং চ্যানেল নাইন-এ ‘টেকগ্যারেজ’ নামে দুটি অনুষ্ঠানে উপ¯’াপিকা হিসেবে কাজ করছেন। এর বাইরে ‘হুয়াই সেলিব্রেশন শো, চাইনিজ নিউ ইয়ার শো, টিম, জিপি সেলিব্রেশন, ক্ল্যাসিক অ্যাওয়ার্ড ফ্যাশন শো, শার্প, গ্রামীণ হুয়াই থ্রিজি সেলিব্রেশনসহ বেশ কিছু শোতে কোরিওগ্রাফার হিসেবে কাজ করছেন।
পাশাপাশি ঢাকাসহ সারাদেশে ডিজুস, ক্রেডিট কার্ড (ফ্যামিলি নিডস), নাবিলা, চৈতীসহ বেশকিছু কাজের জন্য বিলবোর্ডও হয়েছে তার।
মডেলিংয়ের পাশাপাশি কোরিওগ্রাফারের কাজে আগ্রহী হলেন কেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অনেক বেশি ভালোবাসি এ পেশাকে। কষ্ট হলেও মানুষের ভালোবাসা ও সন্মান পেয়েছি। আর আমি নিজে যখন বিভিন্ন শোতে মডেল হিসেবে কাজ করেছি। তখন দেখেছি মডেলদের খাবার-দাবার, রিহার্সালসহ নানা জায়গায় অনেক কষ্ট করতে হয়। আমার শোতে যেন মডেলরা এ ধরনের কষ্ট না পায় তার জন্যই মুলত আমি কোরিওগ্রাফি করছি।
পাঁচ ফুট ৯ ইঞ্চি উ”চতার এই মেয়েটি ইন্ডাস্ট্রিতে প্রিয় বন্ধু হিসেবে পেয়েছে লুনা, টুম্পা, ইমিসহ আরো অনেককে। নিজের মতো করে কাজ করতে পছন্দ তাঁর। এই পেশাকে এমনভাবে পরিচিত করতে চান, যেন ভবিষৎতে যারা কাজ করবেÑ তারা যেন এটাকে পেশা হিসেবে নিতে পারে।
চট্রগ্রামে বেড়ে ওঠা লিনার বাবা লিয়াকত আলী খান বেঁচে নেই। দুই বোন তিন ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার বড়। ছোট বোন সোমাও মডেলিংয়ের সঙ্গে জড়িত। মা নার্গিস আকতার, স্বামী জুবায়ের ইমন ও আড়াই বছর বয়সী সন্তান রিদান আলী খানকে নিয়ে তার পরিবার। বাংলানিউজ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া