adv
১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জাপানকে ছাড় দিচ্ছে বাংলাদেশ

download (16)নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র থেকে : জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য পদে লড়তে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে বাংলাদেশ সমর্থন দিতে যাচ্ছে জাপানকে। 
এখন এই পদ পাওয়ার জন্য লড়াইয়ের পথে বাংলাদেশ এবং জাপান দুই দেশই রয়েছে। জাপানকে বাংলাদেশ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য পদে নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে জানিয়ে জাতিসংঘে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোমেন বলেছেন, দুই দেশের পক্ষে জয়ী হওয়া সম্ভব হবে না। প্রার্থী হওয়াও সম্ভব নয়। নিরাপত্তা পরিষদেরও সদস্য হওয়ার জন্য বাংলাদেশ একমাত্র প্রার্থী। পরে জাপনও আগ্রহ প্রকাশ করে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে এশিয়া প্যাসিফিক থেকে একটি দেশ এই পদ পাবে। এই পদের জন্য বাংলাদেশ ২০০১ সালে প্রথম ফ্লোর তৈরি করে। বাংলাদেশ ২০১৬-২০১৭ সালের জন্য এই পদ চাইছে। দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে এই পদের জন্য বাংলাদেশ লবিং করছে। বাংলাদেশ এই পদের জন্য অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের ভাগ্যে সেটা নাও জুটতে পারে। কারণ এতে বাঁধ সেধেছে জাপান। ২০১১ সালে জাপানও একই পদে নির্বাচন করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে। সেটা প্রকাশ করার পর তারা চেষ্টা করে যাচ্ছে। তবে এই ক্ষেত্রে জাপানকে ওই পদ পেতে হলে বাংলাদেশের ভোট অবশ্যই লাগবে। আর ওই ভোট না হলে জাপান ওই পদে নির্বাচিত হতে পারবে না। কারণ ওই পদে জাপানের আগে বাংলাদেশ প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে। এই জন্য বাংলাদেশকে বাদ দিয়ে কেবল জাপানকে দিতে পারে না।
তিনি বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশের ভোটের জন্য জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী বাংলাদেশ সফর করেন। বাংলাদেশ সফর করে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের পদ পাওয়ার জন্য ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন। 
তিনি বিভিন্ন ভাবে প্রধানমন্ত্রীকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন জাপানকে ওই পদ ছেড়ে দিলে ও ভোট দিলে এতে বাংলাদেশের জন্য ভাল হবে। জাপান বাংলাদেশকে আরো বেশি সহায়তা করবে। জাপান আগা গোড়াই বাংলাদেশের ভাল বন্ধু এবং সেই বন্ধুত্ব থাকবে এবং তা আরো বাড়বে। বাংলাদেশের বেলায় সহযোগিতাও আরো বাড়বে। এই ব্যাপারে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জাপান সফরের জন্য আমন্ত্রন জানান। জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী জাপান প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রন জানানোর পর শেখ হাসিনা জাপান সফর করার বিষয়ে সম্মতি দেন।
জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ওই পদটি পাওয়া জাপানের জন্য ইমেজের ব্যাপার। এর আগে ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ একবার সিকিউরিটি কাউন্সিলের একটি পদে নির্বাচিত হয়। ওই সময়ে জাপান বাংলাদেশর কাছে হেরে গেলে এটা জাপানের ইগোতে লাগে। ওই সময়ে ওই ঘটনার পর জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রীকেও সরিয়ে দেয়া হয়। পরে জাপানের নতুন পররাষ্ট্র মন্ত্রী হন বর্তমান জাপানের প্রধানমন্ত্রীর বাবা। 
তার বাবা যখন পররাষ্ট্র মন্ত্রী হন তখন তিনি অনেককেই চাকরি থেকে অবসরে পাঠান। ওই সময়ে ওই সব ঘটনাগুলো দেখেছেন আবে। আর তখন থেকেই তার মনে বিষয়টি গেঁথে যায়। আর এখন তিনি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সিদ্ধান্ত নেন যে ৩৪ বছর আগে যে বাংলাদেশের সঙ্গে নির্বাচন করে তারা পরাজিত হয়েছে। এবারও তারা নির্বাচন করতে গেলে পরাাজিত হবে। সেই পরাজয় বরণ করা ঠিক হবে না। বরং পরাজিত না হয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে এই ব্যাপারে সমঝোতা করাটা ঠিক হবে। আর সমঝোতা করেই জাপানের জয় আনতে হবে। সেই জন্য তিনি তার পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে বাংলাদেশ সফরে পাঠান। এবং তার প্রস্তাব দিয়ে পাঠান। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও দেখছেন যে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে যে ক’টি দেশ ওই নির্বাচনের বিরোধিতা করেছে ও সব দলের অংশগ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করার জন্য তাকে চাপ দিয়েছে তার মধ্যে জাপান ছিল। ওই নির্বাচন যাতে না হয় সেই জন্য তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জার্মান, চীন, জাতিসংঘ সবার মতোই চায় সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন। এখনও সেই অবস্থানেই রয়েছে।
তবে তা হলেও তারা বর্তমান সরকারকে আগের সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে। শেখ হাসিনা মনে করছেন সমঝোতা হলে তার সরকারের পাঁচ বছর মেয়াদ পূরণ করার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে বিরোধী একটি শক্তি কমবে। এটাও একটা বড় সুযোগ। জাপানের সঙ্গে আমরা কোন বিরোধ চাই না। সমঝোতার মাধ্যমে যা হবার তা হবে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া