adv
৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

৭ দিনের রিমান্ডে র‌্যাব কর্মকর্তা রানা

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় র‌্যাবের চাকরিচ্যুত অপর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার এম এম রানাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শনিবার বেলা পৌনে ৫টার দিকে তাকে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কে এম মহিউদ্দিনের আদালতে হাজির করা হয়।
এসএম রানাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। আদালত শুনানি শেষে ৭দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে রাত ২টার দিকে ঢাকা সেনানিবাস এলাকা থেকে লে. কমান্ডার এসএম রানাকে গ্রেপ্তার করা হয়। হাইকোর্টের আদেশের সাত দিন পর নৌবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হলো।
এর আগে শনিবার ভোরে র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক তারেক সাঈদ মোহাম্মদ ও আরিফ হোসেনকে একই এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নিয়েছে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ। গত ১১ মে র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। দণ্ডবিধি বা বিশেষ মতা আইনে তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ পাওয়া না গেলে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে বলেন আদালত।
উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল সাতজনের অপহরণের পর শীতল্যা নদী থেকে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠার পর র‌্যাব-১১ এর তৎকালীন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মাহমুদ ও মেজর আরিফ হোসেন ও নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট কমান্ডার এমএম রানাকে ২৮ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রত্যাহার করা হয়। গত ৩০ এপ্রিল তিন কর্মকর্তাকে বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া হয়। 
সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের দেয়া ৬ কোটি টাকার বিনিময়ে র‌্যাবের ওই তিন কর্মকর্তাসহ অন্যরা সাতজনকে হত্যা করেছেন, এমন অভিযোগ করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নিহত নজরুল ইসলামের পরিবার।
নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম ও তার বাবা (নজরুলের শ্বশুর) শহীদুল ইসলাম জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে র‌্যাবের বিরুদ্ধে পরে লিখিত অভিযোগ দেন। নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় ওই তিন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের আদেশ দেন হাইকোর্ট।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া