adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রাকের হেলপার থেকে শিল্পপতি- রাতারাতি ধনী হওয়ার ‘মডেল’ নূর হোসেন

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ আলোচিত সাত হত্যাকাণ্ডের প্রধান সন্দেহভাজন আসামি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেন। সাতজনকে অপহরণের তিন-চারদিন পরে একে একে তাদের মৃতদেহগুলো নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে ভেসে উঠতে থাকলে দেশব্যাপী এ নিয়ে ওঠে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। এই ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত নূর হোসেন বর্তমানে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা হলেও এক সময় তিনি পেশায় ছিলেন ট্রাকচালকের সহযোগী। কিন্তু ৮০’র দশকের পর থেকে দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর আশীর্বাদে বর্তমানে দেশে ও বিদেশে অঢেল সম্পত্তির মালিক হয়েছেন পেশায় সাবেক এই ট্রাকের হেলপার।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নূর হোসেন তার ব্যবসা ও সম্পত্তি ভারত ও মালয়েশিয়া পর্যন্তও সম্প্রসারণ করেছেন। এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন খোদ নূর হোসেনের অনুসারীরাও।
অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের জন্য যা কিছু করা যায়, তার কিছুই করতে বাদ রাখেননি এই নূর হোসেন। ট্রাকচালকের সহযোগী থেকে আজ শিল্পপতিতে পরিণত হওয়া নূর হোসেন ধনী হওয়ার সহজ উপায় হিসেবে অপরাধজগতকে ধন্যবাদ দিতেই পারেন!
সড়ক ও যোগাযোগ খাতে, মাদক ব্যবসায়, দরপত্রের কাজ কৌশলে হাতিয়ে নেয়া, নদী দখল তো আছেই, এমনকি নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লায় অবৈধ বালু ব্যবসা করতেও ছাড়েননি তিনি। অপরাধজগতের প্রায় সবগুলো ক্ষেত্রেই অবাধে অনুপ্রবেশ করেছেন নূর হোসেন।
এসব অবৈধ ব্যবসা নিয়েই নজরুল ইসলামের সঙ্গে কোন্দলে জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি। আর তাদের এই কোন্দল তখনই শত্রুতার সর্বোচ্চ সীমায় গিয়ে পৌঁছায় যখন প্যানেল মেয়র নির্বাচনে মাত্র একটি ভোটের ব্যবধানে নূর হোসেনকে হারিয়ে দিয়ে জয়লাভ করেন নজরুল।
দেশীয় থিয়েটারের একটি ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠান হলো যাত্রা। স্থানীয়রা জানান, গত বছর সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল ট্রাক টার্মিনালে নূর হোসেন এই যাত্রার নাম করে অশ্লীল অনুষ্ঠান মঞ্চস্থ করেছিলেন। এই ঘটনায় স্থানীয়দের প্রবল তোপের মুখে পড়েন নূর হোসেন। তার বিরুদ্ধে নানা রকম বিক্ষোভ ও সমালোচনা হয়। কিন্তু তারপরেও পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসনের নাকের ডগায় থেকেই যাত্রার নামে এই অশ্লীল প্রদর্শনী অব্যাহতভাবে চালিয়ে গিয়েছিলেন তিনি।
অসামাজিক এসব কার্যকলাপ বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে গত ১৬ এপ্রিল নূর হোসেনকে নোটিশ দিয়ে চিঠি পাঠান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। ওই চিঠিটির একাধিক অনুলিপি পাঠানো হয়েছিল নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার এবং জেলা প্রশাসকের কাছে তো বটেই, এমনকি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও।
গত বছরের এপ্রিল মাসে দায়ের করা একটি আবেদনের ভিত্তিতে ট্রাক টার্মিনালে সংঘটিত এসব অসামাজিক ও অবৈধ কীর্তিকলাপ অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন উচ্চ আদালত। কিন্তু স্থানীয়রা জানান, কোনোকিছুই নূর হোসেনকে এসব অপরাধ থেকে নিবৃত্ত করতে পারেনি। কারণ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা শামীম ওসমানের আশীর্বাদপুষ্ট ছিলেন নূর হোসেন।
১৯৯২ সালে বিএনপিতে যোগদানের আগে নূর হোসেন ট্রাক চালাতেন এবং ট্রাকচালকের সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। একই সময় সাবেক স্বৈরাচারী শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির সঙ্গেও জড়িত ছিলেন তিনি। স্থানীয়দের অভিযোগ, সে সময় নারায়ণগঞ্জে যত যানবাহন চলাচল করতো সেগুলো থেকে পুলিশ প্রশাসনের হয়ে অবৈধ চাঁদাবাজি করতেন নূর হোসেন।
এরপর বিএনপিতে যোগদানের পর বিভিন্ন পরিবহণ মালিকদের কাছ থেকে স্ব-উদ্যোগেই চাঁদার টাকা সংগ্রহ করতেন তিনি। আর এভাবেই ধীরে ধীরে তিনি অন্যান্য অপরাধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন স্থানীয় বিএনপি নেতাদের সহায়তায়। পরবর্তী সময়ে তিনি সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
এরপর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে নূর হোসেন রাজনৈতিক অবস্থান বদলে ফেলেন এবং শামীম ওসমানের সহযোগিতায় ১৯৯৮ সালে তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। ফলে পরিবহণ মালিকদের কাছ থেকে জোরপূর্বক অর্থ আদায়, ভূমিদখল এবং অবৈধ বালু ব্যবসার মতো কোনো অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড থেকেই সরে আসতে হয়নি তাকে।
২০০১ সালে আবারো বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ক্ষমতায় এলে শামীম ওসমান এবং নূর হোসেন- দুজনেই দেশ থেকে পালিয়ে যান। ২০০৮ সাল পর্যন্ত তারা পলাতক ছিলেন। বিএনপি সরকার এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকার- দুই শাসনামলেই অপরাধী হিসেবে পুলিশের তালিকাভুক্ত ছিলেন নূর হোসেন।

২০০৭ সালে নূর হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে খোদ ইন্টারপোলও। কিন্তু পরবর্তী সময়ে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় এলে বেশ দর্পের সঙ্গেই দেশে ফিরে নূর হোসেন। শামীম ওসমানের সহযোগিতায় আবারো অবৈধ কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে থাকেন। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন স্থানীয়রা এবং আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্র।
সিদ্ধিরগঞ্জ এবং ফতুল্লা থানায় নূর হোসেনের বিরুদ্ধে ছয়টি হত্যা মামলাসহ মোট ২২টি মামলা বিভিন্ন সময় দায়ের করা হয়েছে। সবগুলো মামলা থেকেই জামিন পেয়ে পালিয়ে যেতেন তিনি।
গত ডিসেম্বরে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শামীম যেদিন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভ করেন এর একদিন পরেই নারায়ণগঞ্জ শহর এবং শিমরাইলের সবগুলো ফুটপাত দখল করেন নূর হোসেন। এরপর সেখানে তিনি অবৈধভাবে টিকেট কাউন্টার ও যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করেন এবং শিমরাইল-নারায়ণগঞ্জ রুটে এবিএস পরিবহণ নামে বাস সার্ভিস চালু করেন।
শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন এবং নদীতীরে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা থেকে নূর হোসেনকে বিরত রাখার জন্য ২২ বার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় চিঠি পাঠায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নদী যোগাযোগ কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।
২০০৭ সাল থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতির পদে আসীন নূর হোসেন ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হন।
গত ২৭ এপ্রিল নজরুলসহ মোট সাতজনকে অপহরণের পরেই শেষবার নূর হোসেনকে দেখা গিয়েছিল সিদ্ধিরগঞ্জে। এর দুদিন পর গত ২৯ এপ্রিল থেকে পলাতক রয়েছেন তিনি। শনিবার নূর হোসেনের সিদ্ধিরগঞ্জের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ১১জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সূত্র: ডেইলি স্টার।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া