adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পুলিশের আটক বানিজ্য রমরমা

cywj‡ki AvUK evwbR¨ igigvনিজস্ব প্রতিবেদক : আটক বাণিজ্যের মাধ্যমে বিপুল অর্থ অবৈধভাবে আয় করছে পুলিশ বাহিনীর বিভিন্ন স্তরের শতাধিক সদস্য। কনস্টেবল থেকে পুলিশ সুপার পর্যন্ত ওই টাকা ভাগ বাটোয়ারা হয়। সবচে বেশি অভিযোগ রয়েছে মেহেরপুর জেলা পুলিশ সুপার এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। সম্প্রতি সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা এসব বিষয়ে প্রতিবেদন দিলেও এখন পর্যন্ত কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
মেহেরপুরের পুলিশ সুপার নাহিদুল ইসলাম। সরকারের গোয়েন্দা রিপোর্টে তার বিরুদ্ধে অন্তত ২৯টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ। প্রতিটি ক্ষেত্রেই টাকার বিনিময়ে আটক ব্যক্তিকে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। ওই রিপোর্টে বিস্তারিত বলা হয়েছে, তিনি কবে কখন কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন। তাতে দেখা যায়, গত কয়েক মাসে তিনি আটক বাণিজ্যের মাধ্যমে আয় করেছেন ২ কোটি তিন লাখ ৬২ হাজার টাকা। টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া আটক ব্যক্তিদের অধিকাংশই জামাত বিএনপির নেতাকর্মী, এমনকি দাগী আসামী ছেড়ে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগের বিষয়ে টেলিফোনে কথা হয় পুলিশ সুপার নাহিদুল ইসলামের সঙ্গে।
ওই রিপোর্টে টাকার বিনিময়ে আটক ব্যক্তিকে ছেড়ে দেয়ার এরকম ১৯১টি ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এর প্রায় এক-চতুর্থাংশ অভিযোগ মেহেরপুরের বিভিন্ন পর্যায়ের পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে। এ এলাকায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের পুলিশ সদস্যরা ২৪টি ঘটনায় প্রায় এক কোটি ৭০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন।
গোয়েন্দা রিপোর্টে সারা দেশে এক শ পাঁচজন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত পুলিশ বাহিনী নিজেরাই করলে সেই তদন্তের পরিণতি নিয়ে সন্দেহ রয়েছে অনেকেরই। ইন্ডিপেনডেন্ট টিভি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া