adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে ফেঁসে যাচ্ছেন ৬ সচিব!

বাংলাদেশ সচিবালয়নিজস্ব প্রতিবেদক : চাকরির মেয়াদ বাড়াতে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদ নেওয়ার অভিযোগে চার সচিব, এক যুগ্মসচিব ও এক সাবেক সচিবের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যে বেশকিছু নথিপত্র সংগ্রহ করেছে রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি বিরোধী সংস্থাটি।  দুদকের দায়িত্বশীল সূত্রে এ সব তথ্য জানা গেছে।
সূত্রটি জানায়, দুদকের নোটিশের পর মন্ত্রণালয় দুটি গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র পাঠিয়েছে। এছাড়া দুদক তাদের নিজস্ব সূত্রেও অনুসন্ধানে অগ্রগতিমূলক তথ্য পেয়েছে। এ পর্যন্ত যেসব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে, তাতে দুদকের মামলার বেড়াজালে পড়তে পারেন প্রভাবশালী এ সব আমলা।
দুদকের অনুসন্ধানে উঠে আসে, চাকরিতে যোগদানের সময় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে এসব সচিব উল্লেখ না করলেও অবসরের আগে আর্থিকভাবে লাভবান এবং বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার জন্য মুক্তিযোদ্ধার সনদ নিয়েছেন।
অনুসন্ধানের অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, আমরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছি। কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। অনুসন্ধান প্রক্রিয়া যেহেতু চলছে, তাই এ বিষয়ে আর মন্তব্য না করাই ভালো। দুদকের উচ্চ পর্যায়ের আরেক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ইতোমধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য আমাদের হাতে এসেছে। দুদক চেষ্টা করছে এ অনুসন্ধানে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে; যার বিরুদ্ধে অপরাধের সত্যতা পাওয়া যাবে, তার বিরুদ্ধে আইনুনাগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
দুদক সূত্র জানায়, যাদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে, তারা হলেন- মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সচিব কেএইচ মাসুদ সিদ্দিকী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সচিব একেএম আমির হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ও বর্তমান বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান, স্বাস্থ্য সচিব নিয়াজউদ্দিন মিঞা, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. খোন্দকার শওকত হোসেন এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আবুল কাসেম তালুকদার।
দুদকের উপপরিচালক জুলফিকার আলী এ বিষয়ে অনুসন্ধান করছেন। অনুসন্ধান সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শিগগিরই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের কাছে নোটিশ পাঠানো হবে। জিজ্ঞাসাবাদ প্রক্রিয়া শেষ হলেই অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা কমিশনে প্রতিবেদন দাখিল করবেন।
দুদকের কাছে অভিযোগ আছে, অবসর গ্রহণের সময় ঘনিয়ে আসায় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের বেশ কয়েকজন সচিব মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের সনদ গ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে অংশ না নিয়েও অতিরিক্ত এক বছর চাকরি করার উদ্দেশ্যে তারা এ সনদ সংগ্রহ করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। চাকরির সময় বৃদ্ধি এবং মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সুবিধা নিতে গত পাঁচ বছরে অন্তত ১১ হাজার ১৫০ জনের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার সনদ গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি প্রজ্ঞাপনে এ বিষয়ে বলা আছে, কেউ মুক্তিযোদ্ধা হলে চাকরিতে যোগদানের সময়ই এ বিষয়ে তাকে ঘোষণা দিতে হবে। পরে বললে তাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গণ্য করা হবে না।
সূত্র জানায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় এ ছয় সচিবের চাকরির মেয়াদ এক বছর বৃদ্ধির আবেদন ও মুক্তিযোদ্ধা সনদের সত্যায়িত কপি জমা দিতে গতমাসের প্রথম সপ্তাহে নোটিশ পাঠায় দুদক। নোটিশে আরো বলা হয়, ১৯৮০, ২০০১, ২০০৬ ও ২০০৯ সালে তৈরি মুক্তিযোদ্ধাদের চারটি তালিকা, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের ‘রেড বুক’ এবং এসব চাকরির বিজ্ঞপ্তি পাঠাতে। সূত্রটি জানায়, দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বেশির ভাগ তথ্য পাঠিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া