adv
২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভর্তুকি নিয়ন্ত্রণে লোডশেডিং!

ডেস্ক রিপোর্ট : বাংলাদেশে আবারও বিদ্যুতের লোডশেডিং শুরু হয়েছে বলে কতপক্ষ স্বীকার করেছে তবে পরিস্থিতিকে সাময়িক হিসেবে বর্ণনা করে তারা বলেছে তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সার্বক্ষণিক চালাতে না পারা এবং গ্যাসের অভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের অনেকে মনে করেন গ্যাসের অভাবের পাশাপাশি তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভর্তুকির পরিমাণ কমানোর লক্ষ্যে সেগুলো সার্বক্ষণিক চালানো হচ্ছে না। আর সে কারণে ৬০০ মেগাওয়াটের মত ঘাটতি থেকে আবার লোডশেডিংয়ে যেতে হচ্ছে। বিবিসি
১০ হাজার মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতায় পৌঁছানোর পর গতবছর নভেম্বরে বাংলাদেশ সরকার ঢাকায় এক উৎসবের আয়োজন করেছিল। তখন সারকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল দেশে বিদ্যুতের লোডশেডিং আর থাকবে না। কিন্তু এখন আবার লোডশেডিং শুরু হয়েছে।
কয়েকদিন ধরেই সারা দেশে যে তাপদাহ চলছিল এমন সময়  রাজধানী ঢাকাতেই অনেক জায়গায় ২-৩ ঘন্টা করে বিদ্যুতের লোডশেডিং হচ্ছে। ঢাকার বাইরে অনেক জেলা উপজেলায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা লোডশেডিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘ সময় লোডশেডিংয়ের অভিযোগ কর্তৃপক্ষ মানতে রাজী নয় তবে লোডশেডিং যে হচ্ছে সেটি কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছে।
বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের সচিব মনোয়ার ইসলাম বলেন, সাময়িক সময়ের জন্য কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। আমাদের ২ থেকে আড়াই হাজার মেগাওয়াটের তেলের পাওয়ার প্ল্যান্ট রয়েছে। এই পাওয়ার প্ল্যান্টগুলো সারাক্ষণ চালানো সম্ভব হয় না। এগুলো যদি ২৪ ঘণ্টাই চালানো সম্ভব হত তবে হয়ত এর থেকে অধিক বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হত। এগুলো আমরা নিয়েছিলাম বিশেষ মুহূর্তে চালানোর জন্য। গ্যাসের সমস্যার কারণেও আমাদের ৮০০-৯০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি হচ্ছে। এসব সীমাবদ্ধতা রয়েছে তবে এটি সাময়িক।
মনোয়ার ইসলাম তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সার্বক্ষণিক চালাতে না পারার ক্ষেত্রে কয়েকদিনের তাপদাহের বিষয়কেও কারণ হিসেবে ধরেছেন। তবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত বিশেষজ্ঞ এবং প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইজাজ হোসেন বলেছেন সরকার এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর জন্য বিলের ক্ষেত্রে ভর্তুকি কমিয়ে আনতে চাইছে। সে কারণে সেগুলোর একটি নির্ধারিত সময় পর্যন্ত চালু রাখায় বিদ্যুৎ উৎপাদন কম হচ্ছে বলে তার ধারণা।
তিনি বলেন, সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে একটি পরিমাণের উপরে তারা ভর্তুকি দেবে না। এখন গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ তো চালানোই হচ্ছে যেটি সর্বোচ্ছ ৪ হাজার মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারে, এর উপরে পারে না। এর ফলে তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালাতে হয়। এই তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র যত চালাবে ততই ভর্তুকি, ততই ক্ষতি। তাই সরকার এটিকে সহনীয় পর্যায়ে রাখার জন্য লোডশেডিংটা করছে। এটি যদি না করে তাহলে বছরের শেষে ভর্তুকিটা অত্যন্ত বড় হয়ে যাবে। আরেকটি বিষয় হল রমযান মাসে তারা জানে যে বিদ্যুৎ দিতেই হবে। সে কারণে এটার জন্যও তারা এখন কিছুটা সেভিংস করছে।
তবে বিদ্যুৎ সচিব মনোয়ার ইসলাম বিদ্যুৎ সরবরাহের পুরোনো ব্যবস্থাকেও সমস্যা হিসেবে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ সরবরাহের পুরোনো ব্যবস্থায় সমস্যার কারণে উৎপাদন বেশি হলেও অনেক ক্ষেত্রেই সরবরাহের লাইন তা ধারণ করতে না পারায় বিদ্যুৎ বিভ্রাট হচ্ছে। সরকারের পক্ষে ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমগুলো আপগ্রেড করতে হবে। এর জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা দরকার। এজন্য আমরা ক্রমান্বয়ে প্রকল্প হাতে নিচ্ছি।
যদিও বিদ্যুৎ সচিবের দেয়া তথ্য অনুযায়ী এখন সাড়ে ৭ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদার বিপরীতে সর্বোচ্চ ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘঅটতি থাকছে। তবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের হিসেবে দেখা যায় এখন বিদ্যুৎ ঘাটতি থাকছে ৬০০ মেগাওয়াটের মত।
বিশেষজ্ঞ ইজাজ হোসেন বলেন, তেলভিত্তিক কেন্দ্রে ভর্তুকি কমাতে গিয়ে সর্বোচ্চ চাহিদা সীমার বাইরে অন্যসময়ও লোডশেডিং করা হচ্ছে। এ কারণে দীর্ঘ সময় লোডশেডিংয়ে পড়তে হচ্ছে।
সরকারের পক্ষ থেকে অবশ্য বলা হচ্ছে এখন মূলত কয়লঅভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ব্যাপারেই সরকার গুরুত্ব দিচ্ছে। বিবিসি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া