adv
১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চার বন্ধুকে সাগরে রেখে ফিরে গেলেন ২৪ বন্ধু

ডেস্ক রিপোর্ট : কক্সবাজারের টেকনাফের সেন্টমার্টিন সাগরে ৪ বন্ধুকে রেখে ঢাকা উদ্দেশে চলে গেলেন আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪ ছাত্র। চার বন্ধুর সাগরে রাখা এবং দুই বন্ধুর মৃতদেহ দেখা কতটাই বেদনাময় এবং বিষন্নতার তার প্রকাশ ছিল সবার চেহেরায়। 
মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় তারা যখন দল বেঁধে টেকনাফের দমদমিয়া জাহাজ ঘাটে পৌঁছালেন তখন তারা অনেকেই কান্না করছিলেন। ওদের মধ্যে থাকা মাইনুল হাসান, বদিউরজ্জামান, রেজাউল ইসলাম ও মোহাম্মদ আরকানের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, তারা ৩৪ জন ১৩ এপ্রিল রোববার ঢাকা থেকে রেলে করে চট্টগ্রাম আসেন। ওখান থেকে সোমবার সকালে বাসে করে টেকনাফ পৌঁছে ‘কুতুবদিয়া জাহাজ’ যোগে সেন্টমার্টিনে রওয়ানা হন। 
তারা সেন্টমার্টিন দ্বীপে গিয়ে পৌঁছে দুপুর ১২টার দিকে। সেখানে আবাসিক হোটেল সেনজুর এ অবস্থান নিয়ে ছিলেন। বেলা ২টায় দ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব পাশে সুমদ্র গোসল করতে নেমে ঘটে যায় ভয়াবহ ঘটনা। 
এক সঙ্গে তারা অনেকেই নেমেছিলেন সাগরে। এক পর্যায়ে শুরু হয় হৈচৈ ও চিৎকার। তারা দেখতে পান সাগরে স্রোতের টানে ভেসে যাচ্ছেন অনেকেই। তার মধ্যে অনেকেই নিজকে কুলে ফিরে আনার চেষ্টাও চালিয়েছে ব্যাপক। অনেকেই কুল ফিরলেও ফিরতে বিলম্ব হন ১০ জনের। এদের মধ্যে ৬ জনকে নানাভাবে উদ্ধার করে আনা হয় কুলে। কিন্তু ফিরতে পারেননি ৪ জন। আর যে ৬ জনকে উদ্ধার করা হয় তাদের মধ্যে মারা যান ২ জন। 
উদ্ধার হওয়া ফারহানুল হক, আসিফ মোস্তফা, ইফতেখার মাহমুদ ও ফয়সাল এখন আশঙ্কামুক্ত। তারা চিকিৎসা শেষে ঢাকায় ফিরে গেছেন সোমবার রাতে। আর ওই সোমবার রাতে লাশ হয়ে ফিরেছেন তাদের বন্ধু মোনফেরুল ইসলাম ও সাদ্দাম হোসেন। 
সাগরে নিখোঁজ রয়েছেন সাব্বির হাসান, শাহারিয়ার রহমান, উদয় মাহমুদ ও গোলাম রহিম বাপ্পী। মঙ্গলবার ফেরার আগপর্যন্তও সাগরের নৌ-বাহিনী, কোস্টগার্ড সদস্যরা ব্যাপক অনুসন্ধান চালালেও তাদের পাওয়া যায়নি। 
ফলে সাগরে ৪ বন্ধুকে রেখে, ২ জনের মৃতদেহ পাঠিয়ে ২৪ বন্ধুর ফিরে যাওয়ার মর্মান্তিক বিষয়টি প্রকাশ করতে গিয়ে কান্নার শব্দে ভারি হয়ে উঠে পরিবেশ।  
আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, সাঁতার না জানা এবং সেন্টমার্টিন দ্বীপের প্রশাসনিকভাবে কোনো সর্তকতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে তাদের এ ভয়াবহতা দেখতে হয়েছে। 
কোস্টগার্ড টেকনাফ স্টেশনের কমান্ডার লে. কাজী হারুন-অর-রশিদ বাংলানিউজকে জানান, নিখোঁজ ৪ ছাত্রকে যতক্ষণ না উদ্ধার করা হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকবে। কোস্টগার্ডের পাশাপাশি নৌ-বাহিনীর একটি দল বিশেষ জাহাজ নিয়ে এ উদ্ধার অভিযানের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।
সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের সাবেক ফিরোজ আহমদ জানান, এ ঘটনাটি অত্যন্ত ভয়াবহ। তবে ৪ জনের মৃতদেহ পাওয়ার বিষয়টি সন্দেহজনক। তারা বাংলাদেশে ভেতরে কোনো উপকূলে ভেসে এলে পাওয়া যেতে পারে। যদি স্রোতের টানে মিয়ানমারের দিকে চলে যায় তবে এ মৃতদেহ নাও পেতে পারে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া