adv
২৬শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এভারেস্ট জয় নিয়ে সন্দেহ থাকলে প্রমাণ দিন: মূসা

নিজস্ব প্রতিবেদক : এভারেস্ট জয় নিয়ে কিছু লোক বিতর্ক করে দেশের অর্জনকে খাটো করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন মূসা ইব্রাহীম। তিনি বলেছেন, তারা শুধু সন্দেহ করছে, কোনো তথ্য-প্রমাণ দিচ্ছে না। তার এভারেস্ট জয় নিয়ে কোনো সন্দেহের ক্ষেত্রে তথ্য-প্রমাণ থাকলে তা প্রকাশ করার আহ্বান জানান তিনি।
সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার এভারেস্ট-জয় নিয়ে ওঠা বিতর্কের প্রেক্ষাপটে শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি এই আহ্বান জানান। বিবৃতিতে মূসা নিজের এভারেস্ট-জয়ের পক্ষে বিভিন্ন যুক্তি এবং একই একই সঙ্গে ‘নেপাল পর্বত’ নামের প্রকাশনার কিছু ভুল তুলে ধরেন।
মুসা বলেন, ‘নেপাল পর্বত’ নামের প্রকাশনাটির ওই তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সেখানে এভারেস্টজয়ী প্রথম নারী পর্বতারোহী জুনকো তাবেইয়ের নাম নেই। ১৯৭৫ সালে এভারেস্ট জয় করা জাপানের এই পর্বতারোহী ৩৮তম এভারেস্টজয়ী।
মুসা বলেন, ২০১০ সালের ২৩ মে বাংলাদেশের পতাকা এভারেস্টের চূড়ায় উড়েছিল। সেদিন তার (মুসা ইব্রাহিম) সঙ্গে মন্টেনিগ্রোর তিন পর্বতারোহী ব্লেকা, স্ল্যাগি ও জোকো তাদের দেশ থেকে প্রথম পর্বতারোহী হিসেবে এভারেস্ট জয় করেন। ‘নেপাল পর্বত’ প্রকাশনায় তাদেরও নাম নেই। বাংলাদেশের এম এ মুহিত ২০১১ সালের ২১ মে এভারেস্ট জয় করেছিলেন। ‘নেপাল পর্বত’ স্মরণিকায় মুহিতের নামের পাশে লেখা আছে ২০১২ সাল। এ ধরনের আরও বেশ কিছু গুরুতর ভুল ওই প্রকাশনাটিতে রয়েছে।

মুসা ইব্রাহিম বলেন, ূএ বিতর্কের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২ এপ্রিল আমার সংগঠন নর্থ আলপাইন ক্লাব বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ওই স্মরণিকার প্রকাশক নেপাল মাউন্টেনিয়ারিং অ্যাসোসিয়েশনের বর্তমান সভাপতি আং শেরিং শেরপার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তিনি জানান, চায়না-তিব্বতের দিক দিয়ে যারা এভারেস্ট জয় করেছেন, তাদের নাম নেপালের তালিকায় রাখা হয় না।
মুসা জানান, নেপাল মাউন্টেনিয়ারিং অ্যাসোসিয়েশন ওই প্রকাশনাটি বের করেছিল গত বছর। তালিকায় মুসা ইব্রাহীমের নাম না থাকা প্রসঙ্গে তখনকার সভাপতি জিম্বা জাংবু শেরপার সঙ্গে মুসা যোগাযোগ করলে তিনি তাকে (মুসাকে) বলেন, ওই প্রকাশনায় অসাবধানতাবশত কিছু ভুল হয়ে গেছে। তারা শিগগিরই তা সংশোধনের উদ্যোগ নেবেন।
মুসা দাবি করেন, ২০১০ সালের ২৩ মে এভারেস্টের চূড়ায় বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়ে বাংলাদেশকে ৬৭তম এভারেস্টজয়ী দেশ হিসেবে খ্যাত করার পর থেকেই কিছু মানুষ এ অর্জনকে খাটো করার চেষ্টা করে আসছে। ২০১০ সালে অনলাইনে বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘ বিতর্ক ও গবেষণা হয়। যারা সন্দেহ প্রকাশ করছিলেন, তথ্যপ্রমাণ বিশ্লেষণের পর তারা স্বীকার করতে বাধ্য হন, ‘মুসা ইব্রাহীম সত্যি সত্যি এভারেস্ট জয় করেছেন।
মুসা বলেন, চার বছর পর আবারো একটি পক্ষ সন্দেহের আঙুল তুলেছেন। আমি বিস্মিত হয়ে লক্ষ করছি, তারা শুধু সন্দেহই প্রকাশ করেছেন। কোনো তথ্যপ্রমাণ হাজির করেননি।
অভিযোগকারীদের উদ্দেশে মুসা ইব্রাহিম বলেন, আপনাদের হাতে যদি কোনো তথ্যপ্রমাণ থাকে যে ২০১০ সালের ২৩ মে বাংলাদেশের পতাকা এভারেস্টের চূড়ায় ওড়েনি, তাহলে সেই প্রমাণ জাতির সামনে প্রকাশ করুন।
মুসা জানান, তার ‘পাহাড়-চূড়ায় হাতছানি: কেওক্রাডং থেকে এভারেস্ট’ শিরোনামের বইতে এভারেস্ট অভিযানের বিস্তারিত বর্ণনা রয়েছে। 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া