adv
২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আমিনুল হত্যার সঠিক তদন্ত চায় বহির্বিশ্ব

নিজস্ব প্রতিবেদক : আন্তর্জাতিকভাবে আলোচিত চাঞ্চল্যকর শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত ও বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দিয়েছে ৫টি আন্তর্জাতিক সংগঠন।
বৃহস্পতিবার ইমেইলের মাধ্যমে ৫টি সংগঠনের পক্ষ থেকে মোট ৩টি  চিঠি পাঠানো হয়। এর মধ্যে ৩টি সংগঠন যৌথভাবে একটি চিঠি পাঠায়।
কমিটি ফর জাস্টিস ফর আমিনুল ইসলাম’ এর কো অর্ডিনেটর কল্পনা আক্তার এসব চিঠি পাঠানোর কথা নিশ্চিত করেছেন। সংগঠনগুলো হলো ইন্ডাস্ট্রি অল গ্লোবাল ইউনিয়ন, ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কনফেডারেশন (আইটিইউসি), ইউনি গ্লোবাল ইউনিয়ন, ওয়ার্কার্স রাইটস কনসোর্টিয়াম (ডব্লিউআরসি), ইন্টারন্যাশনাল লেবার রাইটস ফোরাম (আইএলআরএফ)।
ওয়াসিংটনস্থ সংগঠন আইএলআরএফ-এর চিঠিতে বলা হয়, ‘শ্রমিক সংগঠক ও শ্রমিক অধিকার কর্মী আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের দুবছর হলেও কোনো অপরাধী দোষী সাব্যস্ত হয়নি। দুই বছর আগে আমরা আমিনুল ইসলামকে নির্যাতন ও হত্যার বিষয়ে একটি নিরপেক্ষ ও পূর্ণাঙ্গ তদন্তের জন্য আপনাকে চিঠি দিয়েছিলাম। গত বছর পুনরায় চিঠি পাঠানো হয়।
এবার চিঠিতে একটি স্বাধীন তদন্তের জন্য শেখ হাসিনার সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
ইন্ডাস্ট্রি অল গ্লোবাল ইউনিয়ন, ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কনফেডারেশন (আইটিইউসি), ইউনি গ্লোবাল ইউনিয়নের যৌথ চিঠিতে বলা হয়, আমিনুল হত্যাকাণ্ডের তদন্তে সরকারের জোরালো হস্তক্ষেপ চেয়ে বলা হয়, আমরা চরমভাবে হতাশ হচ্ছি যে, দুবছর পরও এ বিষয়ে নগণ্য অগ্রগতি হয়েছে এবং এখন পর্যন্ত কেউ দোষী গণ্য হয়নি।
এতে আরো বলা হয়, ‘বাংলাদেশ যখন তৈরি পোশাক ব্যতিত অন্যান্য পণ্যে (নন আরএমজি) যুক্তরাষ্ট্রে কাছে ডিউটি ফ্রি সুবিধা চাচ্ছে, যখন ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছ থেকে ডিউটি ফ্রি সুবিধা পাচ্ছে তখন আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের পূর্ণাঙ্গ তদন্ত এবং হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে মৌলিক মানবাধিকার এবং গার্মেন্টস শিল্পের প্রতি প্রতিশ্র“তি ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারকে ভালভাবে সাড়া দিতে হবে।
উল্লেখ্য, আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ড দেশে বিদেশে একটি আলোচিত হত্যাকাণ্ড। অভিযোগ রয়েছে, এ মামলার অভিযোগপত্রে হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টদের অভিযুক্ত করা হয়নি। এছাড়া এ হত্যাকাণ্ডে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জড়িত বলেও অভিযোগ উঠেছে আন্তর্জাতিক মহলে।
আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র বেশ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। গত ২০১২ সালের ১৭ মে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজীনা তৎকালীন শ্রম, কর্মসংস্থান ও প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে তার কার্যালয়ে দেখা করতে গিয়ে বিষয়টি উত্থাপন করেন। এছাড়া এ হত্যাকণ্ডের এক সপ্তাহ পর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইট্স ওয়াচ হথ্যার তদন্তে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠি দেয় ।
চিঠিতে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের দক্ষিন এশিয়া বিভাগের পরিচালক মীনাক্ষী গাঙ্গুলী বলেন, এর আগেও আমিনুল ইসলামকে ন্যাশনাল সিকিউরিটি ইন্টালিজেন্স আটক করেছিল। তখনো তিনি জানিয়েছিলেন যে তাকে নির্যাতন করা হয়। তাই আমরা চাই এবার যেন ভালোভাবে বিষয়টি তদন্ত করা হয়।
বৈঠকের একপর্যায়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলামের হত্যাকাণ্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। এ সময় মন্ত্রী তাকে বলেন, শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলাম কখনোই সরকারবিরোধী কোনো আন্দোলনে জড়িত ছিলেন না। তার সঙ্গে সরকারের কোনো সমস্যা নেই। কেন, কীভাবে তাকে হত্যা করা হলো, সে বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তদন্ত করছে। তদন্তেই এ বিষয়ে বিস্তারিত বেরিয়ে আসবে।
এর পর গত বছরের জুন মাসে আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডে জড়িত এক সন্দেহভাজনের সন্ধান চেয়ে এক লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করে সরকার।
২০১২ সালের ১০ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্ক টাইমসের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকারের নিরাপত্তা বাহিনীই গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলামকে হত্যা করেছে। আমিনুল হত্যাকাণ্ড নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়ে দৈনিকটির প্রিন্ট সংস্করণে প্রধান প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, সরকারের নিরাপত্তা বাহিনী বিশেষ করে এনএসআই আমিনুল হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারে। হত্যার আগে একাধিকবার তাকে অপহরণ, গ্রেপ্তার ও নির্যাতন করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। তাকে হত্যারও হুমকি দেয়া হয়েছিল।
গত ৩০ মার্চ  আমিনুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত করে হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে গ্রেপ্তার ও বিচারের মাধ্যমের ফাঁসির দাবি জানায় ‘কমিটি ফর জাস্টিস ফর আমিনুল ইসলাম’ নামের একটি সংগঠন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া