adv
১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করতে চায় রাশিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বাংলাদেশের সঙ্গে পুরনো সম্পর্ককে নতুন করে শক্তিশালী করতে তৎপরতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে রাশিয়া।
দেশটির রাষ্ট্রদূত নিকোলায়েভ আলেকসান্দর শুক্রবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বলেন, দুই দেশের সম্পর্ক এ মুহূর্তে একটি ‘পুনর্জাগরণের’ মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। ঢাকায় রুশ বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ৪০তম বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশে রাশিয়ার এই ফেরা হবে সত্যিকার অর্থেই দীর্ঘ সময়ের জন্য। রুশ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের বর্ষপূতিতে যোগ দিতে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন রাশিয়ান ফেডারেল এজেন্সির উপপ্রধান আলেকসান্দর চেসনোকভ। তার সফরের মধ্যেই এ মন্তব্য করলেন রাষ্ট্রদূত।
অনুষ্ঠানের বাইরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, সংস্কৃতি এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কই রাশিয়ার মূল শক্তি। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের আগে থেকেই বাংলাদেশের ক্ষেত্রে রাশিয়ার অবস্থান বন্ধুভাবাপন্ন। যুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তখনকার সোভিয়েত ইউনিয়ন এ দেশের মুক্তিকামীদের পক্ষে দাঁড়ানোয় সেই সম্পর্ক আরো মজবুত হয়।
স্বাধীনতার পর জাতিসংঘেও বাংলাদেশের পক্ষে সোচ্চার ছিল রাশিয়া। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের পুনর্গঠনে পাশে ছিল রাশিয়া।
১৯৭৪ সালে ঢাকায় রুশ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনের পর অনেক বাংলাদেশি, বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের রাশিয়া সফরের পথ সুগম হয়। ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মধ্যে দিয়ে আলাদা রাষ্ট্র হিসাবে রাশিয়ার আত্মপ্রকাশের পর আধুনিকায়নের অভাবে রুশ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কার্যক্রমে ভাটা পড়লেও থেমে ছিল না এর কার্যক্রম। 
আমরা কখনো থেমে যাইনি। কিন্তু আমরো বেশি কার্যকরভাবে থাকতে চাই, বলেন চেসনোকভ। ঢাকার এই কেন্দ্রটির আধুনিকায়নের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, মস্কোর ন্যাশনাল লাইব্রেরি এবং জাদুঘরের সঙ্গে এ কেন্দ্রের লাইব্রেরির সংযোগ স্থাপন করা হবে। ফলে ঢাকায় বসেই রাশিয়া সম্পর্কে জানতে পারবে এখানকার নতুন প্রজন্ম।
তাদের (তরুণদের) রাশিয়া সফরের আগ্রহ বাড়াতেও কাজ করবে কেন্দ্র। আমাদের অ্যালামনাই অনেক শক্তিশালী। এখন আমরা তরুণ প্রজন্মের দিকে দৃষ্টি দিচ্ছি। সম্পর্ক জোরদারের এই প্রক্রিয়ায় গত বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি দল রাশিয়া সফর করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ বছর আরো বেশি বাংলাদেশি শিক্ষার্থী রাশিয়ায় যাবে।
গত বছর বাংলাদেশ থেকে ৪৭ জন শিক্ষার্থী রাশিয়ার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পায়। এ বছর এই সংখ্যা ৬০ ছাড়িয়ে যাবে বলে জানান রাষ্ট্রদূত। এটাই হবে দুই দেশের সম্পর্ক শক্তিশালী করার প্রথম পদক্ষেপ।
বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবর্তনের মধ্যেও দুই দেশের সম্পর্কে কোনো প্রভাব পড়বে না বলেও মন্তব্য করেন চেসনোকভ।
১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পর গতবছর জানুয়ারিতে প্রথম বাংলাদেশি সরকার প্রধান হিসাবে রাশিয়া সফর করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
মাঝের সময়টায় ‘কিছু ঘটনার কারণে’ দুই দেশের সম্পর্কে ‘এক ধরনের শীতলতা’ ছিল বলে মন্তব্য করেন রাষ্ট্রদূত।
তিনি বলেন, সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর রাশিয়ার উত্তরণের সময়টা ছিল কঠিন। এর ফলে দক্ষিণ এশিয়ায় আমাদের উপস্থিতি এখন আর ততোটা অনুভূত হয় না।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া