adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাতের মুনিয়া-শিউলিমালাদের গল্প

ছবি:প্রতীকীনিজস্ব প্রতিবেদক : ঘঁড়ির কাটায় রাত প্রায় তিনটা। রাজধানীর বাংলামোটরে দাঁড়িয়ে আছেন এক নারী। গ্রামে নাম ছিলো তার শিউলিমালা। ভালবাসার গাঁটছড়া ছিড়ে যাওয়ায় আজ সে যৌনকর্মী  সেলিনা। জীবনের সুখ দু:খ কথা জানালেন তিনি।বয়স তখন ২২। ভালবেসে বাবা-মার সংসার ত্যাগ করে ঘর বেঁধে ছিলেন আলী হোসেনের সঙ্গে। সম্পর্ক শেষ হয়ে যায় বাবা-মার সঙ্গে। ভালোই সুখে ছিলেন শিউলিমালা। স্বামীর গ্রামে ছোট সবজির ব্যবসায়। আয় রোজগারও খুব একটা খারাপ ছিলো না। পড়ালেখা খুব একটা করেননি শিউলিমালা। বছরখানেক পরই শিউলিমালার সংসারে সুখের পালে হাওয়া থেমে  গেল।মাঝে মধ্যেই স্বামী নেশা করে বাড়ি ফিরত। কখনোবা বাড়ি ফিরেনও না। শিউলিমালা বুঝতে পারেন, স্বামী বিপথে চলছেন। চলে দাম্পত্য কলহ।দাম্পত্য কলহে যোগ হয় শারীরিক নির্যাতন। বিভৎস নির্যাতনের চিহ্ন দেখান শিউলি মালা। ব্লেড দিয়ে কাটা কাটা দাগ পুরো হাত, শরীরে। তারপরও সংসার ছাড়তে চাননি শিউলি মালা।এভাবেই  কেটে যায় পাঁচটি বছর। এরই মধ্যে শিউলি মালার কোল জুড়ে আসে ফুঁটফুঁটে ছেলে। নাম রবিন। ছেলের মুখের দিকে তাকিয়ে হয়তো নতুন করে স্বপ্ন দেখতে থাকে শিউলি মালা। ভাবেন স্বামী এবার হয়তো সুপথে ফিরে আসবে।কিন্তু না। কোনো কিছুতেই কিছু হলো না। বরং এর সঙ্গে  যোগ হয়েছে যৌতুক নামে আরো একটি নতুন যন্ত্রণা। যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে আলী হোসেন। একদিন নেশাগ্রস্থ অবস্থায় শিউলিমালার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে পাষণ্ড স্বামী। কোনোভাবে জীবন নিয়ে বেঁচে যায় শিউলি মালা। ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে ফের আশ্রয় নেয় মায়ের কাছে।এবার সন্তানকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা। এদিকে খুব বেশি  লেখাপড়া করেননি শিউলি মালা। অনেক চেষ্টা করেও তাই চাকরি হলো না। একপর্যায়ে ছেলেকে গ্রামে রেখেই ঢাকায় চলে আসা। অগত্যা বাধ্য হয়েই এ পেশায় চলে আসতে হলো তাকে। শিউলিমালা হয়ে যায়  সেলিনা। কিন্তু এখনো গ্রামে বাবা-মা জানে শিউলিমালা ঢাকায় চাকরি করেই সংসার চালাচ্ছে।  নিজের স্বামীর সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন, এরশাদ শিকদারের নাম শুনেছেন? সে তার চেয়ে অনেক বেশি জঘন্য ছিলো। কোনো দিন মাফ করবো না। মরে গেলেও না।অন্যদিকে প্রথম স্বামীর নিরুদ্দেশ হওয়া ও দ্বিতীয় স্বামীর অলসতাই দেহ ব্যবসায় নিজেকে আনতে বাধ্য করেছে মুনিয়াকে। রাজধানীর সোনারগা মোড়ে কাস্টমার এর জন্য অপেক্ষমান মুনিয়া জানান, বাবা-মা বিয়ে দিয়েছিলেন, ভালো ঘর দেখে। ঘর ভালোই ছিলো। ছিলো না কেবল সংসার। ১৪ বছরের সংসার জীবনের চার বাচ্চা হয়েছে। কিন্তু স্বামী তারপরও কাউকে কিছু না বলেই চলে গিয়েছে ভারতে। নিরুদ্দেশ হওয়ার দুই বছর পর চিঠি দিয়েছিলো সে ভারতে আছে। দেশে আসবে না। আমি যেন ভালো থাকি।মুনিয়া যেন আর বলতে পারেন না। গলা ধরে আসে। দ্বিতীয় জীবনের বিয়ে করেন নাজির নামের একজনকে। নাজির তার স্ত্রীকে অত্যাচার করেন না ঠিকই কিন্তু কাজও করতে চান না। মুনিয়াকে সরাসরি বলেন, কাজ কইরা সংসার চালাইতে পারলে চালাও, নয়তো না। উপায়ান্তর না দেখে হয়ে যান নিশিকন্যা।মুনিয়া এখন থাকেন টঙ্গীতে। সপ্তাহে দুই দিন বা তিন দিন সে ঢাকায় আসেন। দেহ ব্যবসা করেন। স্বামী সব জানেন কিন্তু তার টাকা চাই। স্ত্রী কিভাবে টাকা আনছেন এটা তার কাছে বড় বিষয় না । এলাকার মানুষ কিছুই জানে না বলে জানান মুনিয়া।এসব কথা কেবল শিউলিমালা বা মুনিয়াদেরই না দেশের হাজারো নারীর।  শত শত শিউলিমালারা জীবনের বাকে ঢাক্কা খেয়ে হয়ে যান পতিতা। পেটের দায়ে রাত বিক্রি করে জীবন চালায় মুনিয়ারা।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া