adv
১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চড় মারলে পাল্টা চড় হবে : গয়েশ্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক : দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের পর কোনো প্রতিবাদ সভা না করে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। এ সময় তিনি বলেন, কেউ চড় মারলে গাল পেতে দেওয়া যাবে না পাল্টা চড় দিতে হবে।সোমবার বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুল সালামের ওপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তির দাবি শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)।নেতাকর্মীদের উদ্দ্যেশে গয়েশ্বর বলেন, শেখ হাসিনা ভারতের ভালবাসার টানে সব কিছু শুধু দিয়েই যাচ্ছেন। কিন্তু ভালবাসার প্রতিদান স্বরুপ কিছুই পাচ্ছেন না। ভারত কিছু চাইলে তিনি না করতে পারেন না। কারণ ভারতের জন্য তিনি শুধু ইয়েস শব্দটি শিখেছেন আর নো শব্দটি কেবল বাংলাদেশের মানুষের জন্য। তিনি (শেখ হাসিনা) ভাবেন সকল ক্ষমতার উৎস ভারত, দেশের জনগণ নয়। ভারতের গুন্ডে ছবির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভারতীয় সরকারের  সেন্সর বোর্ড যখন ছবিটির সেন্সর করেছে তাতে বুঝা যায়, তারা বাংলাদেশে স্বাধীনতার প্রতি সহানুভূতিশীল না। ভারত বুঝাইতে  চেয়েছেন ৭১ সালে বাংলাদেশ-পাকিস্তান নয় যুদ্ধ হয়েছে ভারত-পাকিস্তান। এক সময় ভারত দাবি করবে ৭১র স্বাধীনতা বাংলাদেশের নয় এটা তাদের জয়।আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বিএনপি কোনো সংকটে নেই। সংকটে আছে  দেশে। আর মহাসংকটে আছে সরকার। কারণ শেখ হাসিনা জানেন ভারত ছাড়া কোনো গতি নেই। ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের এ সংকটের সূত্রপাত হয়েছে।বর্তমান সরকার পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর মতো গ্রেফতার নির্যাতন চালাচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর চরিত্র উত্তরাধিকার সূত্রে এ সরকার বহন করছে। সরকার জঙ্গিবাদকে উষ্কে দিচ্ছে। একদিকে মানুষ মরে, ঘরবাড়ি পুড়ে, নারী ধর্ষিত হয়, অন্যদিকে শেখ  হাসিনা গান শুনে পিঠা খান। এ পিঠা অবশ্য সাংবাদিকরাও খেয়েছেন। যারা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কথা বলে তারাই জঙ্গি তৈরি করে দাবি করে গয়েশ্বর আরো বলেন, রক্তের নেশা যাদের পেয়ে যায় তারা রক্ত ছাড়া চলতে পারে না। রক্ত নেশা মেটাতে গিয়ে তারা মানুষ গুম ও হত্যা করছে। প্রতিদিন খালে বিলে লাশ পাওয়া যাচ্ছে। আর এ জঙ্গিবাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন হাসানুল হক ইনু। গয়েশ্বর বলেন, চাকরির মায়া আর বদলির ভয়ে আদালতে বসে বিচারপতিরা সঠিক বিচারকাজ করতে পারছেন না। এমনকি সুপ্রীম  কোর্টের প্রধান বিচারপতি পর্যন্ত সরকারের আঙ্গুলের ইশারায় উঠছে এবং বসছে। কারা জামিন পাবে আর কারা পাবে না তা ফোন দিয়ে আগেই বলে দেওয়া হচ্ছে জুডিশিয়ারিং বোর্ডকে।দৈনিক প্রথম  আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তিন পত্রিকায় লিখেছেন মিটিটে একটি জামিন দেওয়া হয়। অবশ্য তিনি এখন খুশি হতে পারেন কারণ তিনি এখন একটি আর্টিক্যাল লিখতে পারেন যে, শুধু প্রতি মিনিটে একটি জামিন নয় এক মিনিটে এক থেকে পাঁচ হাজার হয়রানি মূলক মামলাও হচ্ছে।এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, কল্যাণ পার্টির  চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মো. ইব্রাহিম বীর প্রতীক, ইসলামিক পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল মবিন প্রমুখ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া