adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পালিয়ে যাওয়া ২ জঙ্গি এখন পশ্চিমবঙ্গে

ডেস্ক রিপোর্ট : নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান করছেন বলে ধারণা করছেন ডিবি পুলিশের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।আদালতে হাজিরা দেয়ার জন্য গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে ময়মনসিংহে নেয়া হচ্ছিল ওই জঙ্গিদের। এ সময় ত্রিশালে পুলিশের প্রিজন ভ্যানে হামলা চালিয়ে মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত দুই আসামি এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামিকে ছিনতাই করে নিয়ে যায় নিষিদ্ধঘোষিত সংগঠনটির কিছু সদস্য। পরে পুলিশের ব্যাপক তৎপরতার কারণে ছিনতাইকৃত এক আসামি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত রাকিব পরদিনই পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। কিন্তু সেদিনই রাকিবকে নিয়ে ছিনতাইকৃত বাকি দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের  গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালাতে গেলে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন রাকিব। এখন পর্যন্ত পলাতক বাকি দুই আসামির গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান এখনো চলছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে বেশ কয়েকজনকে ইতিমধ্যে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।ডিবি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রিজন ভ্যান থেকে পালিয়ে যাওয়ার পরপরই দেশের উত্তরাঞ্চলের সীমান্ত অতিক্রম করে প্রতিবেশী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে আশ্রয় নিয়েছেন পলাতক ওই দুই আসামি। দণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরে সন্দেহভাজন কয়েকজনকে গ্রেফতার করার পর জিজ্ঞাসাবাদের সময় এই আসামিরাই এমন তথ্য দিয়েছেন বলে দাবি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।ডিবি পুলিশের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সাজাপ্রাপ্ত তিন জঙ্গি ছিনতাইয়ের চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আটক হওয়া জঙ্গি সদস্যদের স্বীকারোক্তিতে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণের পরেই তারা এই সিদ্ধান্তে এসেছেন যে, পলাতক দুই জঙ্গি বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের কোথাও লুকিয়ে আছেন।ডিবির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ছিনতাইকৃত পলাতক দুই জঙ্গি সালাহউদ্দীন ওরফে সালেহীন ওরফে সজীব এবং জহিরুল ইসলাম ওরফে  বোমা মিজান পশ্চিমবঙ্গের  যে অঞ্চলে বর্তমানে লুকিয়ে আছেন সেই অঞ্চলে জেএমবির সহযোগী শক্তিশালী একটি নেটওয়ার্ক আছে।ডিবি পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সানোয়ার হোসেন বলেন, আমরা সন্দেহ করছি যে জেএমবি  নেতা সালেহীন আর মিজান পূর্বপরিকল্পনা অনুসারেই তাদের গাইড ফারুকের নির্দেশনা অনুযায়ী অবৈধভাবে সীমান্ত পার হওয়ার মাধ্যমে  দেশ  ছেড়েছে। জঙ্গি ছিনতাইয়ের পর ঘটনার সঙ্গে জড়িত  বেশ কয়েকজন জেএমবি সদস্যকে আটক করার পর থেকে ক্রমাগত তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছি আমরা। এছাড়া তাদের ব্যবহৃত ল্যাপটপ, কম্পিউটার এবং ডায়েরিও জব্দ করেছি আমরা। এসব সূত্র থেকে যে সমস্ত তথ্য ও ক্লু  পেয়েছি সেগুলো একাধিকবার অত্যন্ত সতর্কভাবে ও গভীরভাবে বিশ্লেষণ করে  দেখা হচ্ছে।পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, পলাতক জঙ্গিরা  দেশের উত্তরাঞ্চলে পৌঁছাতে ময়মনসিংহ-গাজীপুর-টাঙ্গাইল সড়ক ব্যবহার করেছে।এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রিজন ভ্যান থেকে ছিনতাইকৃত তিন জেএমবি সদস্যদের ব্যাপারে তদন্ত চললেও এখন পর্যন্ত যা তথ্য আমরা পেয়েছি সেগুলোকে জঙ্গিরা কিভাবে পালিয়ে গেছে সে সম্পর্কিত তথ্য হিসেবেই ধরে  নেয়া যায়। এর বেশি  তেমন কিছু এখনো আমরা জানতে পারিনি।গত ফেব্রুয়ারি মাসের ২৩ তারিখ সক্রিয়  জেমবি সদস্যদের একটি দল তিন তাদের শীর্ষ তিন  নেতা সালেহীন, মিজান এবং রাকিবকে পুলিশের প্রিজন ভ্যান  থেকে ছিনিয়ে  নেয়। এ সময় জেএমবি সদস্যদের হামলায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন একজন পুলিশ কর্মকর্তা। গাজীপুর থেকে ময়মনসিংহে পুলিশি প্রহরায় আসামিদের নিয়ে যাওয়ার পথেই এই ঘটনা ঘটে।পরে সেদিনই পালিয়ে যাওয়ার সময় পথিমধ্যে ছিনতাইকৃত তিন আসামির একজন রাকিব পৃথকভাবে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন এবং পরদিন পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।বর্তমানে সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তারা এই দলটির অর্থায়নের উৎস সম্পর্কেই জানার ব্যাপারে প্রাধান্য দিচ্ছেন। তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, বাংলাদেশের এই নিষিদ্ধঘোষিত সংগঠনটির সঙ্গে শুধু  যে পশ্চিমবঙ্গেরই যোগাযোগ আছে তাই নয়, বরং মধ্যপ্রাচ্য এবং ইউরোপেরও বেশ কয়েকটি দেশের সঙ্গে তাদের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে।পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে জেএমবির সম্পর্ক শুরু হয় ১৮ দলীয় জোট সরকারের আমলে। সে সময় সংগঠনটি পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ, মালদহ ও নদীয়ায় তাদের ঘাঁটি গড়ে তোলে। আর এই অঞ্চলগুলোতে জেএমবির অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত এবং সেখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেএমবি নেতা সোহেল মাহফুজ। ২০১০ সালে জেএমবির আরেক নেতা সাইদুর রহমানকে  গ্রেফতার করার পর তদন্ত কর্মকর্তারা এসব তথ্য জানতে পারেন।জঙ্গি এই সংগঠন জেএমবির প্রতিষ্ঠাতা শায়খ আব্দুর রহমান ২০০৬ সালে তৎকালীন ১৮ দলীয় জোট সরকারের আমলে ধরা পড়ার পর এই তথ্য দেন যে, পশ্চিমবঙ্গে সংগঠনটির ৬৫তম শাখা পরিচালিত হচ্ছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, জেএমবি নেতারা পশ্চিমবঙ্গে জাল ভারতীয় নোটের ব্যবসায় যুক্ত আছেন।ত্রিশালে প্রিজন ভ্যান থেকে তিন জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় অর্থের যোগান যারা দিয়েছেন তাদের মধ্যে দুজনের নাম জানতে পেরেছেন তদন্ত কর্মকর্তারা। সন্দেহভাজন এই দুই ব্যক্তির নাম হলো- মোহাম্মদ রাহাত এবং আজমীর শরীফ। তদন্ত সংস্থা সিআইডি’র কর্মকর্তারা এরই মধ্যে তাদের বেশ কয়েকটি মোবাইল নম্বর ট্র্যাক করে পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে সংগঠনটির যোগাযোগ করার বিষয়ে জানতে পেরেছেন।সিআইডি’র একটি বিশেষ দলের পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম জানিয়েছেন, র্যা ব ও পুলিশের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমেই তাদের এই ঘটনা সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।  জেএমবির  বেশ কয়েকজন সক্রিয় সদস্যের বিষয়ে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছেন বলেও দাবি করেন তিনি। তবে সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এসব তথ্য প্রকাশে অস্বীকৃতি জানান তিনি।এদিকে, জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনার পর বিভিন্ন সময়ে বেশ কয়েকজন ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার ত্রিশালের  সৌদকান্দি এলাকা থেকে আলামিন (২৫) ও টিটো (২৮) নামের দুই যুবককে জঙ্গি ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ আটক করে। তারা বর্তমানে ঢাকায় ডিবি পুলিশের  হেফাজতে আছেন।ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজেদুর রহমান জানান, ময়মনসিংহ ও ঢাকার গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের যৌথ প্রচেষ্টায় ময়নসিংহের ভালুকা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এই দুই যুবককে আটক করা হয়। 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া