adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাকি উপজেলা নির্বাচনে জয়ী হতে মরিয়া আ.লীগ

ঢাকা: বিগত দুই দফা উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি ৯৭টিতে বিজয়ী হওয়ায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড ক্ষুব্ধ হয়েছে। তারা বাকি তিন দফা উপজেলা নির্বাচনে যেকোনো মূল্যে জয়ী হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে দলের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

গত ১৯ ও ২৭ ফেব্রুয়ারি দুই দফায় উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি ৯৭ টি, আওয়ামী লীগ ৭৭টি, জামায়াত ২১ টি ও অন্যান্য দলগুলো ২২টিতে বিজয়ী হয়।

গত ৫ জানুয়ারির বিতর্কিত জাতীয় নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর উপজেলা নির্বাচনে এমন হারে মাথায় হাত পড়েছে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডের। এখন তারা যেকোনো মূল্যে বাকি তিন দফা উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ের মালা পড়তে চান।

সূত্রে জানায়, বাকি তিন দফা নির্বাচনে জয়লাভ করতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডের নির্দেশনা এখন কেন্দ্রীয় নেতাদের ঘাড়ে। এখন শুধু তৃণমূল পর্যায়েই নয়, দলটির কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে বাকি তিন দফা নির্বাচনে প্রার্থী দেয়া হবে। আর এতে কোনো ব্যত্তয় ঘটলে কেন্দ্রীয় নেতাসহ তৃণমূল নেতাদেরও জবাবদিহি করতে হবে। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে এই গুরু দায়িত্ব রয়েছে।

জানা যায়, আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকদের তার নিজ নিজ এলাকায় পাঠানো হয়েছে। হাইকমান্ডের পক্ষ থেকে তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে- যেকোনো মূল্যে স্থানীয় পর্যায়ের প্রশাসন ও তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে সব অসঙ্গতি দূর, স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক জনসংযোগ, সাধারণ মানুষ ও গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে দলকে জয়ী করতে হবে।

প্রয়োজনে নির্বাচনী কেন্দ্রগুলোতে পাহাড়া বসানোরও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়াও তৃণমূলের কোনো নেতা বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম ধাপের ৯৭টি উপজেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৪৪ টি, আওয়ামী লীগ ৩৩টি, জামায়াত ১৩টি ও স্বতন্ত্রসহ অন্যান্য দল থেকে ১২ জন জয়ী হয়।

অন্যদিকে ২৭ ফেব্রুয়ারি দ্বতীয় ধাপে ১১৫টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৫৩ টি, আওয়ামী লীগ ৪৪ টি, জামায়াত ৮ টি ও অন্যান্য ৮টিতে  জয়লাভ করে (বাকি দুইটি স্থগিত)।

এদিকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় কোনো প্রভাব পড়ে না। স্থানীয় নেতাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা বেশি থাকার কারণেই এই পরাজয়। এতে দলে কোনো প্রভাব পড়বে না।

কিন্তু এসব কথা মুখে বললেও আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড থেকে কেন্দ্রীয়  ও তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের সতর্ক করে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিকে গত ৪ মার্চ রাজধানীর রমনা ও শাহবাগ থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে দলটির উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, ‘গত দুই দফা উপজেলা নির্বাচনে হেরেছি তাতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। স্থানীয় নেতাদের মধ্যে মনমালিন্যের কারণে এমন পরাজয় হয়েছে। বাকি তিন দফা উপজেলা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় পেতে আমরা কাজ করছি। জেলা-উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের মধ্যে যেসব দ্বন্দ্ব রয়েছে তা অচীরেই দুর হয়ে যাবে। ভয় পাবার কিছু নেই।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহু-উল আলম লেনিন বলেন, ‘গত দুই দফা নির্বাচনে যে সমস্যা ছিল। সেই সমস্যা মোকাবেলায় আমরা কাজ করছি।’

তিন এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘বাকি তিন দফা নির্বাচন নিয়ে কোনো কিছু ভাবছি না। নির্বাচনের পরেই দেখতে পারবেন। তবে এক কথায় বলতে পারি, বাকি নির্বাচনে আমরা জনগণের ব্যাপক জনসমর্থন পাবো।’

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘১৯ ও ২৭ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনে আমাদের হেরে যাওয়ার মূল কারণ ছিল খুব বেশি বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল। বাকি তিন দফা নির্বাচনে কোনো ব্রিদ্রোহী প্রার্থী যাতে না থাকে সে জন্য দল কঠোর হয়েছে। তাই আশা করছি আগামী নির্বাচনে আমরাই জয় লাভ করবো।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হাইকমান্ড থেকে কেন্দ্রীয় ও তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তা কানো লিখিত কিছু নয়, এটা মৌখিক।’

এ সম্পর্কে আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক সরদার এম আনোয়ার হোসেন জানান, দলের হাইকমান্ড থেকে আমাদের নির্দেশনা রয়েছে। আগামী তিন দফা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করতে হবে। এ কারণে উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকদের যার যার এলাকাতে যেতে বলা হয়েছে।’

তিনি জানান, উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকরা ইতোমধ্যে অনেকেই যার যার এলাকায় গেছেন। তাদের কাজ হলো প্রার্থীর সঙ্গে গণসংযোগ। এছাড়াও স্থানীয় নেতাদের কোনো দ্বন্দ্ব থাকলে তা দূর করতে কাজ করা।’

তিনি আরো জানান, স্থানীয়ভাবে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যেই স্থানীয় নির্বাচনগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণে আওয়ামী লীগ গুরুত্ব সঙ্গে এই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে।’

উল্লেখ্য, গত ১৯ ও ২৭ ফেব্রুয়ারি দুই দফায় উপজেলা নির্বাচন হয়েছে। বাকি তিন দফায় উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৫, ২৩ ও ৩১ মার্চ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া