adv
২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আশা জাগিয়ে সেই হতাশাই সঙ্গী বাংলাদেশের

বোলারদের সৌজন্যে মাঝে মধ্যেই হাসি ফিরেছে বাংলাদেশ দলের মুখে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত উবে গেছে সেই হাসি।  ছবি: শামসুল হকআবারও সেই ‘ইশ্’-টাই সঙ্গী হলো। আবারও সেই ‘এটা যদি হতো, ওটা যদি হতো’র না মেলা সমীকরণ মেলানোর বৃথা চেষ্টাই। ব্যর্থতার বৃত্তবন্দী বাংলাদেশ দলের সঙ্গী হলো আরেকটি পরাজয়। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কঠিন পরীক্ষায় নামার আগে আত্মবিশ্বাসের জ্বালানিটুকু মিলল না। এশিয়া কাপে গতবার মাত্র ২ রানের জন্য ফাইনালে হেরে যাওয়া বাংলাদেশ দল এবার সবগুলো ম্যাচেই হেরে গেল।

ব্যর্থতার সেই জ্বালায় সর্বশেষ নুন ছিটিয়ে দিল শ্রীলঙ্কা। শনিবারের ফাইনালের জন্য স্নায়ুর অনুশীলন করে কঠিন পরিস্থিতি থেকে ম্যাচ বের করে তিন উইকেটে জিতল শ্রীলঙ্কা। অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস অপরাজিত ৭৪ রানের ইনিংস খেলে সামনে থেকে দিলেন জয়ের নেতৃত্ব।

শ্রীলঙ্কার জয়ের নায়ক নিঃসন্দেহে ম্যাথুসই। যখন ব্যাট হাতে নেমেছিলেন, ২০৫ রানের মামুলি লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়েই শ্রীলঙ্কা রীতিমতো কাঁপছে। ৪৭ রানে হারিয়ে ফেলেছে ৪ উইকেট। লাহিরু থিরিমান্নের সঙ্গে সেই বিপর্যয় সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেন ২৮ রানের জুটিতে। কিন্তু থিরিমান্নে ডিপে রুবেলের দারুণ ক্যাচের শিকার হয়ে ফিরলে শ্রীলঙ্কা খাদের কিনারে। ৭৫ রানে নেই ৫ উইকেট।

শ্রীলঙ্কার সেরা জুটিটা হলো এর পরই। ষষ্ঠ উইকেটে চতুরঙ্গ ডি সিলভার সঙ্গে ৮২ রানের জুটিতেই বাংলাদেশের মুখের গ্রাস থেকে ম্যাচ বের করে আনলেন ম্যাথুস। এর পরও আশা ফিরে পেয়েছিল বাংলাদেশ। ৩৯তম ওভারের শেষ বলে ডিপ ফাইন লেগে আল আমিন ডি সিলভার সহজ ক্যাচ ফেলেছিলেন। কিন্তু জীবন ফিরে পাওয়া ডি সিলভাকে তিন বল পরেই ফিরিয়ে দিয়ে গলার কাঁটা হয়ে দেখা দেওয়া জুটিটা ভাঙলেন মাহমুদউল্লাহ। তখনো শেষ ৯ ওভারে ৪৬ রান চাই শ্রীলঙ্কার। হাতে চার উইকেট। পরের ওভারেই মাহমুদউল্লাহ ফেরাতে পারতেন ম্যাথুসকেই। কিন্তু কঠিন ক্যাচটি নিতে পারেননি উইকেটরক্ষক এনামুল।

রুবেলের সরাসরি থ্রোতে থিসারা পেরেরা রানআউট হয়ে গ্যালারিকে আরেকবার উল্লাসে ভাসালেও সে ছিল নিছকই আশার ছলনা। শেষ পর্যন্ত ৬ বল বাকি থাকতেই ম্যাচটা জিতে যায় বাংলাদেশে এই দীর্ঘ সফরে একটা ম্যাচেও না-হারা শ্রীলঙ্কা।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই বাংলাদেশের দুটো তিক্ত অভিজ্ঞতা আছে। ৬ রানে শ্রীলঙ্কার ৫ উইকেট ফেলে দেওয়া অবিশ্বাস্য সেই ম্যাচটিতেও হেরেছিল বাংলাদেশ। কদিন আগেই ৬৭ রানে রানে শ্রীলঙ্কার ৮ উইকেট ফেলে দিয়েও ম্যাচটা জিততে পারেনি মুশফিকের দল। এবারও তারই পুনরাবৃত্তি যেন।

অথচ ২০৪ রানের স্বল্প পুঁজি নিয়ে যেমন শুরু দরকার ছিল, ঠিক তেমন শুরুই পেয়েছিল বাংলাদেশ। শুরুতে আল আমিনের জোড়া আঘাতের ধাক্কায় ‘ডমিনো ইফেক্ট’ চলেছে লঙ্কান ইনিংসে। ৭৫ রান তুলতেই শ্রীলঙ্কার পাঁচ ব্যাটসম্যান ফিরে গেছে সাজঘরে। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই কুশল পেরেরাকে ফেরানোর পর নিজের দ্বিতীয় ওভারে আল আমিন ফেরালেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা কুমার সাঙ্গাকারাকে (২)। ৬ রানে দুই উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কা যখন কাঁপছে, সেই সময় চতুর্থ ওভারে রানের খাতা খোলার আগেই রানআউটের শিকার মাহেলা জয়াবর্ধনেও। ৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ব্যাক ফুটে শ্রীলঙ্কা।

চতুর্থ উইকেটে ৩৯ রানের জুটি গড়ে বিপর্যয় সামলে নেওয়ার চেষ্টা করছিলেন লাহিরু থিরিমান্নে ও আশান প্রিয়াঞ্জন। নিজের দ্বিতীয় ওভারেই প্রিয়াঞ্জনকে উইকেটরক্ষকের ক্যাচ বানিয়ে আবার ব্রেক থ্রু এনে দেন জিয়াউর রহমান। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের সঙ্গে থিরিমান্নের ২৮ রানের জুটিটা এরপর ভাঙেন সানি। এর পরই ম্যাথুস-ডি সিলভার সেই জুটি।

গত ম্যাচে ব্যাটসম্যানরা লড়াই করেছিলেন, পারেননি বোলাররা। এবার হলো উল্টোটা। ব্যাটসম্যানরা লড়াইয়ের পুঁজিটাই এনে দিতে পারলেন না। বাংলাদেশের সংগ্রহটা আরও বেশি হতেই পারত। ৭৪ রানের উদ্বোধনী জুটি আর এনামুল-শামসুরের আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিং বড় সংগ্রহেরই ভিত্তি গড়ে দিয়েছিল। কিন্তু পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা শেষ পর্যন্ত স্কোরবোর্ডে ২০৪-এর বেশি তুলতে দেয়নি বাংলাদেশকে।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা একেবারে নিজেদের করে নিয়েছিলেন দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শামসুর রহমান আর এনামুল হক। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরিয়ান এনামুল আজও খুব খারাপ করেননি। বরং বারবারই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন লাকমাল, থিসারা পেরেরা কিংবা সেনানায়েকে-মেন্ডিসদের ওপর আধিপত্য বিস্তারের। কিন্তু ৪৯ রানেই থেমে যায় তাঁর ইনিংস। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে ফিফটি পাওয়া ইমরুল কায়েসের চোটের সুযোগে দলে ঢোকা শামসুর রহমানও ব্যাট চালাচ্ছিলেন অনবদ্য। তাঁর ইনিংস শেষ হয় ৩৯ রানে। অবশ্য তাঁর এলবিডব্লুর সিদ্ধান্ত যে কিছুটা ক্ষুব্ধ হওয়ার মতো, এ কথা বলে দেওয়াই যায়।

৭৪ রানের উদ্বোধনী জুটির পর হঠাত্ই অজন্তা মেন্ডিসের ঘূর্ণিঝড়। শামসুরের পর তিনি মুমিনুল হককে সাজঘরে ফেরান সরাসরি বোল্ড করে। মুশফিক এসেও বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি। ডি সিলভার বলে এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়তে হয় তাঁকে। সাকিব-এনামুল ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেছিলেন। সাকিব ছিলেন সাবলীল। কিন্তু বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে তাঁর বিদায়ও ছিল দলকে বিপদে ফেলেই। এনামুল ফেরেন মিড উইকেটে আশান প্রিয়াঞ্জনের বলে থিরামান্নের অসাধারণ এক ক্যাচের শিকার হয়ে।

দলের দুই ফর্মহীন সদস্য নাসির হোসেন আর মাহমুদউল্লাহই বরং কিছুটা ভালো খেলেছেন। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে নিজেদের মধ্যে ৬৬ রানের জুটি গড়ে তাঁর জ্বেলেছিলেন আশার বাতি। কিন্তু দুজনই ৩০ রান করে বিদায় নিলে শ্রীলঙ্কাকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো স্কোরের আশা মোটামুটি দূরের আকাশেই মিলিয়ে যায়।

জিয়াউর রহমান তাঁর স্বভাব-বিরুদ্ধ একটা ইনিংস খেলে দলের সংগ্রহটাকে কেবল দুই শর কোটা পেরোতেই সাহায্য করতে পেরেছেন। শ্রীলঙ্কান বোলারদের মধ্যে ২টি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন সুরাঙ্গা লাকমাল, অজন্তা মেন্ডিস আর আশান প্রিয়াঞ্জন। চতুরঙ্গা ডি সিলভার ঝুলিতে গেছে ১টি উইকেট।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া