adv
১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ-শ্রীলংকা মুখোমুখি কাল

ঢাকা: ৬ মার্চ বৃহস্পতিবার এশিয়া কাপের ১২তম আসরের রাউন্ড রবিন লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কা ইতোমধ্যে তিন খেলার সবকটিতে জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে। অপরদিকে স্বাগতিক বাংলাদেশ তিন খেলার সবকটিতে হেরে পয়েন্ট তালিকার তলানিতে রয়েছে। এশিয়া কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানও ফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলেছে। ৮ মার্চ ফাইনালে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা।

সঙ্গত কারণেই ৬ মার্চ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার ম্যাচটি স্রেফ নিয়মরক্ষার ম্যাচ। তবে নিজ নিজ ইমেজের কথা চিন্তুা করে কোনো দলই এদিন চাইবেনা হার মেনে নিতে। শ্রীলংকা চায় এখনো পর্যন্ত অপরাজিত থাকার রেকর্ডটিকে সঙ্গী করেই ফাইনাল খেলতে। এতে করে তাদের ফুরফুরে মেজাজের সঙ্গে যুক্ত হবে আরো বেশি আত্মবিশ্বাস।

অপরদিকে ডিসেম্বরের শেষ ভাগের দিকে এই শ্রীলংকার সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ সফর সুচি শুরু হবার পর থেকেই পরাজয়ের গন্ডি থেকে বেরুতে পারছে না মুশফিকরা। ওই সিরিজ শেষ হবার পর এশিয়া কাপের শুরুটাও হার দিয়ে শুরু করেছে স্বাগতিক দল। যে কারণে মানসিকভাবে বেশ বিপর্যস্ত তারা। দলটির অবস্থা এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে নবাগত আফগানিস্তানের কাছেও হার স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে মুশফিকুর রহিমের দল।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মঙ্গলবার পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান দলে ফেরার পর ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছে টাইগাররা। সংগ্রহ করেছে ওডিআই ম্যাচের ইতিহাসে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৩২৬ রান। কিন্তু তারপরও জয়ের দেখা পায়নি তারা। আফ্রিদি ঝড়ে ইতিহাস গড়েই ম্যাচটি জিতে নিয়েছে পাকিস্তান। আফ্রিদির ঝড়ো গতির ২৫ বলে ৫৯ রান বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্নকে গুড়িয়ে দিয়েছে। ফলে বাংলাদেশ দলের এখন আর টুর্নামেন্ট থেকে চাওয়া পাওয়ার কিছু না থাকলেও এখন দরজায় কড়া নাড়ছে আইসিসি টি২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেট। ওই টুর্নামেন্টের আগে মনোবল চাঙ্গা করার জন্য অন্তত একটি জয় চায় টাইগার বাহিনী। তাই এই ম্যাচে মরন কামড় বসাতে চায় তারা। কারণ কথায় আছে শেষ ভালো যার সব ভালো তার। লংকানদের কাছে হারতে হারতে মানসিকভাবে একেবারেই নিচে নেমে আসা বাংলাদেশ দলকে একটি জয়ই দিতে পারে পরিপুর্ণ আত্মবিশ্বাস।

লংকানদের বিপক্ষে বৃহস্পতিবারের ম্যাচে টাইগারদের স্বপ্ন দেখাচ্ছে দলটির ব্যাটিং অর্ডার ছন্দে ফেরার। মঙ্গলবার মিরপুরে অনুষ্ঠিত ম্যাচে পাকিস্তানের মতো শক্তিশালী বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে হেসেছে টাইগার ব্যাটসম্যানদের ব্যাট। এদিন এনামুল হক বিজয়ের সেঞ্চুরির পাশাপাশি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তিন ম্যাচ নিষেধাজ্ঞা শেষে ফিরেই পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৬ বলে অপ: ৪৪ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেছেন সাকিব আল হাসান।

তারপরও চারবারের চ্যাম্পিয়ন শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ জয় করতে পারাটা বাংলাদেশ দলের জন্য যে যথেষ্ট কঠিনই হবে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ এই মুহূর্তে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে লংকান দলটি। একই সঙ্গে ধারাবাহিক পারফর্মের মাধ্যমে দলকে বার বার জয় এনে দিচ্ছেন ইনফর্ম ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা। যিনি টুর্নামেন্টের বিগত তিন ম্যাচে সংগ্রহ করেছেন যথাক্রমে ৬৭, ১০৩ ও ৭৬ রান। তাই এই ম্যাচে জয়ের ক্ষীণ স্বপ্ন লালন করতে চাইলেও বাংলাদেশকে প্রথমে লড়তে হবে বাঁহাতি ওই ব্যাটসম্যানের সঙ্গেই। এখনো পর্যন্ত টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীর তালিকার শীর্ষে রয়েছেন সাঙ্গাকারা। সতীর্থ লাহিরু থিরিমান্নে রয়েছেন দ্বিতীয় স্থানে। পাকিস্তানের বিপক্ষে সেঞ্চুরি হাঁকানো এই ব্যাটসম্যানের সংগৃহীত রান সংখ্যা ১৪৫। ছেড়ে কথা কইবে না কুশাল পেরেরা ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের ব্যাট। কারণ টুর্নামেন্টে দু’জনই হাঁকিয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি।

অবশ্য মুশফিকুর রহিম সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন বাংলাদেশকে। ভারতের বিপক্ষে ১১৭ রান সংগ্রহকারী ওই ব্যাটসম্যান টুর্নামেন্টে নিজের নামের পাশে যোগ করেছেন ১৯১ রান। এনামুলও টপ অর্ডারের ব্যাটিংয়ে দৃঢ়তা দেখিয়ে আসছেন। পাকিস্তানের বিপক্ষে মঙ্গলবারের ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানোর পাশাপাশি একটি হাফ সেঞ্চুরিও রয়েছে তার নামের পাশে। আর মুমিনুল হক ব্যাটিংয়ে পারফরমেন্স করার পাশাপাশি বল হাতেও দেখাচ্ছেন চমক। সিরিজে এখনো পর্যন্ত একটি হাফ সেঞ্চুরিসহ সর্বমোট ১২৪ রান সংগ্রহকারী মুমিনুল অনিয়মিত বোলার হিসেবে সংগ্রহ করেছেন তিন উইকেট।

তবে এই মুহূর্তে বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে দুর্বলতম দিকটি হচ্ছে তাদের বোলিং বিভাগ। গোটা টুর্নামেন্টে দলটির আক্রমণ বিভাগ প্রতিপক্ষের সমীহ আদায় করতে পারেনি। তাই লংকানদের জয়রথ থামাতে হলে সবার আগে টাইগারদের প্রয়োজন তাদের বোলিং আক্রমণকে আরো শানিত করা। অপরদিকে লংকান বোলিং আক্রমণ এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি ভয়ঙ্কর। ল্যাসিত মালিঙ্গা ও অজন্তা মেন্ডিসের সমন্বয়ে গড়া তাদের যথাক্রমে পেস ও স্পিন আক্রমণ দলকে বরাবরের মতোই ব্রেক থ্রো এনে দিচ্ছে বার বার।

বৃহস্পতিবার মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রাউন্ড রবিন লিগ পর্বের দিবা-রাত্রির শেষ ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর দুইটায়। সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলাদেশ টেলিভিশন, চ্যানেল নাইন ও স্টার স্পোর্টস।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া