adv
২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জগন্নাথের হল উদ্ধার আন্দোলনের নেপথ্যে

ঢাকা: প্রায় দুই যুগ ধরে বেদখলে থাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ১০টি হল উদ্ধারের আন্দোলন এবার রক্তক্ষয়ী সংঘাতে রূপ নিয়েছে। চলমান আন্দোলনে রোববার বড় ধরনের সংঘাত হয়েছে। এ ধরনের আরও সংঘাতের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বাংলামেইলের অনুসন্ধানে জানা গেছে, সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সক্রিয় অংশগ্রহণে আন্দোলন বেগবান হয়েছে। তবে এ সক্রিয়তার নেপথ্যে আছে রাজনৈতিক বিরোধ। বিশ্ববিদ্যালয়ের তিব্বত হল দখলে অভিযুক্ত ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিম ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে বিষোদগার করার পরই হল আন্দোলনে সক্রিয় হয় জগন্নাথ ছাত্রলীগ। আর ‘দখলদার’ হাজী সেলিমের বিষোদগারের নেপথ্যেও ছিল রাজনৈতিক বিরোধ। তিব্বত হলের দখলদারিত্ব থেকে হাজী সেলিমকে হটানোর দাবির সঙ্গে অপর হলগুলো উদ্ধারের দাবিও সামনে চলে এসেছে।

এদিকে পুলিশের কিছু পরিবারসহ প্রভাবশালী দখলদারদের শক্ত অবস্থানও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে বাধ্য করেছে। প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে এ আন্দোলনে পুলিশ সরাসরি বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় উসকানিতে রক্তপাতের ঘটনা ঘটেছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দ্রুত কোনো সমাধান না হলে জগন্নাথের হল উদ্ধারের আন্দোলনে আরও রক্তপাতের ঘটনা ঘটতে পারে।

জানা গেছে, বুড়িগঙ্গার তীরে পাটুয়াটুলী-ওয়াইজঘাট এলাকায় ৮ ও ৯ জিল পার্থ লেনে (কুমারটুলীতে) অবস্থিত তিব্বত হল। হলটি ৮.৮৯ কাঠা জায়গার ওপর নির্মিত। বর্তমানে এর কিছু অংশ পুলিশ এবং কিছু অংশ ঢাকা-৭ আসনের স্বতন্ত্র সাংসদ হাজী মোহাম্মদ সেলিম দখল করে রেখেছেন। হাজী সেলিম ওই জায়গায় গড়ে তুলেছেন নিজের স্ত্রীর নামে গুলশান আরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স। এই হল উদ্ধারের দাবিতেই জগন্নাথের ছাত্ররা এখন বেশি সক্রিয়। নির্ভরযোগ্য সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা -৭ আসন থেকে পুরান ঢাকার প্রভাবশালী নেতা হাজী সেলিম নিজ দল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি। স্বতন্ত্রপ্রার্থী হয়ে নির্বাচনে জয়ী হতে তাকে ভীষণ বেকায়দায় পড়তে হয়েছে। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন। লালবাগ ও আশপাশের এলাকার ভোট কেন্দ্রগুলোতে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে হাজী সেলিম ও তার কর্মীরা। তবে সূত্রাপুর ও কেতোয়ালী এলাকার কেন্দোগুলোতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কারণে হিমশিম খেতে হয় তাকে। কারণ দলীয় সিদ্ধান্তে ছাত্রলীগ মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের পক্ষে নির্বাচনে ভূমিকা পালন করে। এ কারণে ছাত্রলীগৈর ওপরে চরম ক্ষুব্ধ হাজী সেলিম। এ ছাড়া তিব্বত হলটি দখলের আন্দোলনে ‘সমঝোতার’ প্রস্তাবেও ছাত্রলীগের সঙ্গে হাজী সেলিমের মতবিরোধ হয় বলে জানায় সূত্র। এরপর গত ১০ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেন হাজী সেলিম। তিনি ছাত্রশিবিরের সঙ্গে ছাত্রলীগের তুলনা করে বলেন, ‘শিবির রগ কাটে, ছাত্রলীগ মাথা কাটে।’

হাজী সেলিমের এ বক্তব্যের পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। এরপর গত ১২ ফেব্রয়ারি থেকে তিব্বত হল উদ্ধারে ছাত্রদের আন্দোলনে সক্রিয় হয়ে ওঠে ছাত্রলীগ। পক্ষে-বিপক্ষে বক্তব্যও পাওয়া যায়।

সূত্র জানায়, সাবেক এমপি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও স্থানীয় আওয়ামী লীগৈর একটি গ্রুপও এ ছাত্রলীগের সঙ্গে ছাত্র আন্দোলনে সমর্থন জোগাচ্ছে। তবে কোনো কিছুতেই টলছে না প্রভাবশালী হাজী সেলিম ও তার সহযোগীরা। ছাত্ররা জানান, হাজী সেলিমসহ অন্য দখলদাররা আন্দোলন বন্ধ করতে উল্টো তাদের হুমকি দিচ্ছে। এ কারণে আান্দোলন আরও বেগবান হচ্ছে।

পুরান ঢাকার তাঁতীবাজারে ৮২, রাধিকা মোহন বসাক লেনে অবস্থিত শহীদ সাহাবউদ্দিন হল। এর জমির পরিমাণ ৪.০৯ কাঠা। ২০১০ সালের ২১ জানুয়ারি জেলা প্রশাসক এক চিঠিতে উল্লেখ করেছেন- ফারহানা নামের এক মহিলা হলটি দখলে রেখেছেন।

জানা যায়, ১৯৮৫ সালে স্থানীয় বাসিন্দাদের হামলার ভয়ে ছাত্ররা হল থেকে বেরিয়ে যান। শিক্ষার্থীশূন্য হলটি পাহারার দায়িত্ব দেয়া হয় আনসার সদস্যদের। ১৯৯১ সালে আনসার বিদ্রোহ দেখা দিলে সেখান থেকে আনসার প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। এরপর পুলিশকে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেয়া হয়। পুলিশের কিছু সদস্য হলটির দখল নিয়ে পরিবারসহ থাকতে শুরু করেন। পরে ২০০৯ সালে দখলে নেন কোতেয়ালী থানা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আমিনুল হক বিপ্লব। সেখানে তিনি গড়ে তোলেন পাঁচতলা ভবন। ইতিমধ্যে তিনি কয়েকটি ফ্ল্যাট বিক্রি করে দিয়েছেন। এই সাবাউদ্দিন হল উদ্ধারের দাবিও জানাচ্ছে আন্দোলনকারীরা। ছাত্রলীগও কৌশলগত কারণে এ হলটি উদ্ধারের পক্ষে রয়েছে।

হল দখল ও আন্দোলনের ব্যাপারে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী সেলিম বলেন, ‘সংসদে ছাত্রলীগ নিয়ে মন্তব্য করার কারণে ছাত্রলীগ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমার বিরুদ্ধে আন্দোলন উস্কে দিচ্ছে। ২০০২ সালে মদিনা ডেভেলপমেন্টস লিমিটেডের সঙ্গে ওই ট্রাস্টের বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ চুক্তি হওয়ার পর এখানে মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যদি তাদের সম্পদ হিসেবে প্রমাণ করতে পারেন তা হলে আমি নিজের জায়গা ছেড়ে তাদের দিয়ে দেব।’

তবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এসএম সিরাজুল ইসলাম বাংলামেইলকে বলেন, ‘কোনো বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হয়ে নয়, ছাত্র সংগঠন হিসেবে সাধারণ ছাত্রদের যৌক্তিক দাবিতে একাত্ম হয়ে আন্দোলন করছে ছাত্রলীগ। এখানে সাধারণ ছাত্রসহ সব ধরনের ছাত্র সংগঠন অংশ নিচ্ছে।’

শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘যারা দখলদার তাদের মধ্যে হাজী সেলিম সবচেয়ে ক্ষমতাধর। তাই আমরা মনে করি, তিব্বত হল উদ্ধার করা গেলে অন্য হলগুলোও উদ্ধার করা সম্ভব হবে। এ কারণে আগেই আসছে এ হলের নাম। আমরা তো কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুল হক বিপ্লবের দখলে থাকা হলটি উদ্ধারেরও দাবি জানাচ্ছি।’

এদিকে পুলিশের লালবাগ বিভাগের উপ-কমিশনার হারুন উর রশিদ বলেন, ‘হল উদ্ধার, দখল এগুলো আইনগত ব্যাপার। আদালতের মাধ্যমেই তা সমাধান হবে। আমরা কারো পক্ষ নিচ্ছি না। কয়েকদিন শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলছিল। আমরা বাধা দেইনি। এখন আমাদের ওপর, মার্কেটে হামলার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, আশির দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের ছাদ ধসে পড়লে অনেক শিক্ষার্থী মারা যান। তখন এরশাদ সরকার জগন্নাথ কলেজের হলগুলোকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ করে। আর এ সুযোগে স্থানীয় জালিয়াত চক্র হলগুলো দখলে নেয়ার জন্য ১৯৮৫ সালে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধিয়ে জোর করে বের দেয়। ১৯৮৬ সাল থেকে হাজার কোটি টাকার ১০টি হলের জায়গা দখল করে রেখেছে প্রভাবশালীরা।

বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার নয় বছরে চার উপাচার্য দায়িত্বে এলেও কোন বড় ধরনের সুফল বয়ে আনতে পারেনি হল উদ্ধারে।

এদিকে ২০০৮ সাল থেকেই আন্দোলন শুরু হয় হল উদ্ধারের। রোববারের আগে বড় সংঘাত হয় ২০০৯ সালের ২৭ জানুয়ারি। প্রতি বছর ২৭ জানুয়ারি হল উদ্ধার আন্দোলন দিবস হিসেবে পালন করে আসছে শিক্ষার্থীরা। সাড়ে ১৭ হাজার শিক্ষার্থীর এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় অনেক মেধাবী শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার সুযোগ পেলেও এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চান না।

সূত্র জানায়, জগন্নাথের হল উদ্ধারের আন্দোলনে কিছুই হয়নি দখলদারদের। বেদখল হওয়া হলের মধ্যে আবদুর রহমান হলের অবস্থান ৬,৬/১, এসি রায় রোড, বটতলা, আরমানিটোলায়। এর জমির পরিমাণ ২৫.৭৭ কাঠা। নব্বইয়ের দশক থেকে ১৭ পুলিশ পরিবার এখানে থাকছে। শহীদ আনোয়ার শফিক হলটি ১ শরৎচন্দ্র চক্রবর্তী রোডে অবস্থিত। এ হলের জমির পরিমাণ ৪০ কাঠা। এর দখলদার হিসেবে সামসী ওয়েলফেয়ার সোসাইটিকে চিহ্নিত করেছে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়। হলটির পুরনো ভবন ভেঙে নতুন বিল্ডিং তৈরি করে স্থানীয় টিন ব্যবসায়ী মোক্তার আলী গোডাউন তৈরি করেছেন। একাংশের ওপর ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক (বাবুবাজার শাখা) গড়ে উঠেছে। তা ছাড়া বেশ কয়েকটি ওষুধের দোকানও রয়েছে। সাইদুর রহমান হল ও রউফ মজুমদার হল ১৬, ১৭, ২৩ যদুনাথ বসাক লেনে অবস্থিত। সেখানে হলের কোনো অস্তিত্বই নেই। হল দুটির জমির পরিমাণ ২২.৯৭ কাঠা। ওই জমিতে একটি রিকশার গ্যারেজ, কিছু দোকানপাট, একটি ব্যাংকের গোডাউন রয়েছে। শহীদ আজমল হোসেন হল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম গেটে পাটুয়াটুলীর ১৬ ও ১৭ নম্বর রমাকান্ত নন্দী লেনে অবস্থিত। এর জমি ৫.০৫ কাঠা। ১৬ নম্বরের অংশটি এখন একটি শহীদ পরিবার পরিচয়ে দখলে রেখেছে ভূমি জালিয়াত চক্র। ১৭ নম্বরের কিছু অংশ দখল করেছে একটি সমিতি। এর একটি অংশে পাঁচতলা মার্কেটও করেছে দখলদাররা। বজলুর রহমান হল বংশালের ২৬ মালিটোলাতে অবস্থিত। ওই জয়গায় দখল টিকিয়ে রাখতে ‘শহীদ জিয়াউর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়’ নামে একটি বিদ্যালয়ও প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল বাণী ভবন ৩৫-৩৬ প্যারিদাস রোডে অবস্থিত। এরই মধ্যে এ হলের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ বেদখল হয়েছে। পূর্বপাশের সাতটি দোকান, একটি প্রেস ও বাইন্ডিং কারখানা ভাড়া দিয়ে ভোগ করছেন জনৈক জাহানারা বেগম নামের এক দখলকারী।

শহীদ নজরুল ইসলাম হলটি গোপীমোহন বসাক লেনের ৫/১, ২, ৩, ৪ ও ৬নং টিপু সুলতান রোডে হলের জায়গায় গড়ে উঠেছে মাদ্রাসা। হলের জমি ছিল এক বিঘা। এ হলের দখল করে নিয়েছেন গোলাম নবী নামের এক প্রভাবশালী। কর্মচারী আবাস নামের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের ভবনটি পাটুয়াটুলীর ২৬ নম্বর হোল্ডিংয়ে ছিল। সেখানে এখন সাততলা ক্রাউন মার্কেট তৈরি হয়েছে। জনৈক হাজী ওয়ালীউল্লাহর ছেলে মো. ওবায়দুল্লাহ খরিদসূত্রে ক্যানন বিল্ডিংয়ের মালিক হয়েছেন। এ ভবনটি ছাত্রদলের সাবেক নেতা সাগীর আহমদ (মৃত) জাল দলিল করে বিক্রি করেছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বাংলামেইলকে বলেন, ‘বেদখল হয়ে যাওয়া সব কটি হল উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। এখনকার পরিস্থিতিতে নতুনভাবে ভাবতে হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে সরকারকেই মুখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2014
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া