adv
২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মীর কাশেম তোদের বাঁচতে দেবে না বন্দীকে বাঁচানোর চেষ্টা করে এক আলবদর সদস্য

ঢাকা: একাত্তরে মীর কাশেম আলীর নির্দেশে চট্টগ্রামের ডালিম হোটেলে ধরে নিয়ে টুনটু সেন ও রণজিত দাশসহ বেশ কয়েকজন বন্দীকে হত্যা করা হয় বলে রাষ্ট্রপক্ষের চতুর্থ সাক্ষী সুনীল কান্তি বর্ধন জানিয়েছেন। তিনি এও জানান কাশেম আলীর ক্যাম্পে এক আলবদর সদস্য তাকে বারবার বাঁচানোর চেষ্টা করেন।

সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এ বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও সদস্য বিচারপতি মুজিবুর রহমান মিয়ার আদালতে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের মামলায় দেয়া জবানবন্দিতে এ কথা বলেন ৭২ বছর বয়সের এ সাক্ষী।

এ সময় প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন।

জবানবন্দি শেষে সাক্ষীকে আংশিক জেরা করেন মীর কাশেমের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম। জেরা অসমাপ্ত অবস্থায় মামলার কার্যক্রম মঙ্গলবার পর্যন্ত মুলতিব করেছে ট্রাইব্যুনাল।

সুনীল কান্তি বর্ধন জবানবন্দিতে বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে চট্টগ্রাম শহরের খাতুনগঞ্জে চামড়ার গুদাম এলাকায় দোস্ত মোহাম্মদ পাঞ্জাবী নামে একটি বিল্ডিংয়ে আলবদরদের একটি ক্যাম্প ছিল। এই বিল্ডিংয়ের পাশে চাকতাই খালের পাড়ে কাঁচা লেট্রিনের পাশে দাঁড় করিয়ে অনেক বন্দীকে গুলি করে হত্যা করতে দেখেছি। আমাকেও দুইবার ওই লেট্রিনের পাশে দাঁড় করানো হয়েছিল। কিন্তু আলবদরদের মধ্যে আমাকে নিয়ে দ্বিধাবিভক্তির কারণে আর হত্যা করতে পারেনি।’

তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালের ১৩ ডিসেম্বর লক্ষ্য করলাম, দোস্ত মোহাম্মদ বিল্ডিংয়ের বাল্ব খুলে ফেলা হচ্ছে। সেদিন কামরুল নামের এক আলবদর সদস্য আমাকে বলে, তোকে তো বাঁচাতে পারলাম না, আজকে অথবা আগামীকাল তোদেরকে ডালিম হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে মীর কাশেম আলী আছে, সে তোদের বাঁচতে দেবে না।’

সাক্ষী আরো বলেন, ‘দোস্ত মোহাম্মদ বিল্ডিংয়ের ওই দিন রাতযাপনের পর আনুমানিক ভোর ৫টার দিকে বন্দীদের চোখ বেঁধে একটি ট্রাকে উঠিয়ে ডালিম হোটেলে নিয়ে আসা হয়। সেখানে বন্দীদের লাথি মেরে মেরে ট্রাক থেকে নামানো হয়। আলবদর কামরুল মাঝে মধ্যে খাবার ও পানি দিয়ে সাহায্য করত। কখনো কখনো সে চোখের বাঁধন খুলে দিত।’

এরপর সাক্ষী আরো বলেন, সেখানে (ডালিম হোটেলে) আমাদেরকে অন্য বন্দীদের সঙ্গে একটি কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে মীর কাশেম আলী ছিলেন। তিনি আমাদেরকে জিজ্ঞেস করেন, তোমরা কে কী জানো বলো। যখন কোনো তথ্যই দিচ্ছিলাম না তখন মীর কাশেম আলী আমাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, তোদের সবাইকে মেরে ফেলা হবে।’

সুনীল কান্তি জবানবন্দিতে বলেন, ‘ডালিম হোটেলের এই কক্ষটিতে আগে থেকেই আরো কয়েকজন বন্দী ছিলেন। বাইরে তালা দিয়ে সেদিন সকাল ১০টার দিকে আলবদররা বেড়িয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘এরপর ১৪ ডিসেম্বর কারো সাড়া শব্দ শুনতে পাইনি। আমরা নিজেরা নিজেদের চোখের বাঁধন খুলে ফেলে ঘুমানোর চেষ্টা করি। ১৫ ডিসেম্বর বেলা ২টার দিকে আমরা আমাদের কক্ষের একটি জানালা খুলি কিন্তু কারো কোনো সাড়া না পেয়ে জানালা আবার বন্ধ করে দেই। দিবাগত রাত ২টায় একজন জানালায় টোকা দিয়ে বলে, চিন্তা করোনা, দেশ স্বাধীন হয়ে যাচ্ছে, আমরা তোমাদের বের করে আনবো।’

১৬ ডিসেম্বর ভোরে স্থানীয় লোকজন ও আমার প্রতিবেশীরা কক্ষের দরজা কুড়াল দিয়ে ভেঙে আমাদের মুক্ত করে নিয়ে যায় বলে ট্রাইব্যুনালকে জানান সুনীল কান্তি। মুক্ত হয়ে আসার পর টুনটু সেন এবং রণজিত দাশের স্ত্রী সুনীল কান্তি বর্মনের কাছে এসে তাদের প্রত্যেকের স্বামীর খবরা খবর জানতে চান। এ সময় সুনীল বর্মন তাদের বলেন, ‘আলবদররা টুনটু সেন এবং রণজিত দাশকে মেরে ফেলেছে।’

জবানবন্দিতে সাক্ষী বলেন, ‘টুনটু সেন এবং রণজিত দাশের স্ত্রীর কাছ থেকেই তিনি জানতে পারেন মীর কাশেম আলীর নির্দেশে আলবদররা তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।’

সাক্ষী সুনীল কান্তি বর্ধন ১৯৭১ সালের নভেম্বরে চট্টগ্রাম শহরের পরিস্থিতি খারাপ হলে তিনি স্ত্রী, সন্তান এবং কাজের লোকসহ গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে চাকতাই খাল পাড় হওয়ার জন্য নৌকায় উঠছিলেন। সেখান থেকে স্বশস্ত্র আলবদররা তাকে আটক করে দোস্ত মোহাম্মদ পাঞ্জাবি বিল্ডিংয়ের আলবদর ক্যাম্পে নিয়ে যায় বলে জবানবন্দিতে জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এপ্রিল মাসের দিকে চট্টগ্রাম শহরের আন্দরকিল্লা এলাকার মিউনিসিপাল করপোরেশনের অফিসের সামনে থেকে ফজলুল কাদের চৌধুরীর আল শামস বাহিনীর লোকেরা বাবা বজেন্দ্র লাল বর্ধনকে (মৃত) ধরে গুডস হিলে নিয়ে যায়। পরে ফজলুল কাদের চৌধুরীর এক অনুসারীর মাধ্যমে তাকে ছাড়িয়ে আনা হয়।’

জবানবন্দি শেষে আসামির কাঠগড়ায় থাকা মীর কাশেম আলীকে সনাক্ত করে সাক্ষী।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৫ সেপ্টেম্বর মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে ১৪টি অভিযোগে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ গঠন করে ট্রাইব্যুনাল। এরপর ১৭ জুন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2014
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া