adv
২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বমন্দায়ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি অব্যাহত: আমু

ঢাকা: বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা এবং দেশে বিরোধীদলের হরতাল ও অবরোধের নামে ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি অব্যাহত রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তিনি বলেন, “মন্দার ফলে উন্নত দেশে যেখানে লাখ লাখ শ্রমিক ছাঁটাইয়ের ঘটনা ঘটেছে, সেখানে বাংলাদেশে একজন শ্রমিকও চাকুরিচ্যুত হয়নি।”

মঙ্গলবার রাজধানীর বিয়াম মিলনায়তনে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বা সিআইপি (শিল্প)-২০১৩ হিসেবে নির্বাচিত উদ্যোক্তাদের মধ্যে কার্ড বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিল্প সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. ফরহাদ উদ্দিন, সিআইপি (শিল্প) কার্ডপ্রাপ্ত উদ্যোক্তা ও এফবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ এবং এ এস এম মঈনউদ্দিন মোনেম বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী সাত ক্যাটাগরিতে ৫৪ জন শিল্প উদ্যোক্তার মধ্যে সিআইপি (শিল্প) পরিচয়পত্র বিতরণ করেন।

এ সময় শিল্পমন্ত্রী বলেন, “সমুদ্র জয়ের ফলে অর্জিত সম্পদ কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিণত হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গৃহিত কর্মসূচির ফলে দেশের অর্থনৈতিক বুনিয়াদ শক্তিশালী হচ্ছে।”

তিনি বলেন, “শিল্পায়নের চলমান ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।”

সরকার জাতীয় স্বার্থে শিল্প ও ব্যবসা সম্পর্কিত যেকোনো সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে আলোচনা করে গ্রহণ করবে বলে তিনি উদ্যোক্তাদের আশস্ত করেন।  

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, শিল্পখাতে বিপ্লব ঘটানো ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। পৃথিবীর প্রায় সকল উন্নত দেশেই কৃষির পাশাপাশি শিল্পখাতের বিকাশ ঘটিয়ে অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা অর্জন করেছে। তারা সিআইপি (শিল্প) কার্ডধারীদের অনুকূলে সরকার প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে শিল্পমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তারা সফল উদ্যোক্তাকে লাল পাসপোর্ট দেয়ারও দাবি জানান।  

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী সাত ক্যাটাগরিতে ৫৪ জন শিল্প উদ্যোক্তার মধ্যে সিআইপি (শিল্প) পরিচয়পত্র বিতরণ করেন। এর মধ্যে পদাধিকার বলে ১১ জন, বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ২১ জন, মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ১০ জন, ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে পাঁচজন, মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে একজন, কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে একজন এবং সেবা শিল্প ক্যাটাগরিতে পাঁচজন সিআইপি নির্বাচিত হয়েছেন।

বেসরকারি খাতে শিল্প স্থাপন, পণ্য উৎপাদন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং জাতীয় আয় বৃদ্ধিসহ সামগ্রিক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তারা নির্বাচিত হয়েছেন।

সিআইপি (শিল্প) পরিচয়পত্রধারীদের অনুকূলে সরকার প্রদত্ত বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা আজ থেকে আগামী এক বছরের জন্য বহাল থাকবে। এটি বাংলাদেশ সচিবালয়ে প্রবেশের ক্ষেত্রে প্রবেশপত্র হিসেবে গণ্য হবে। কার্ডধারীরা বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান এবং সিটি করপোরেশন আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ পাবেন। তাদের ব্যবসা সংক্রান্ত ভ্রমণের সময় বিমান, রেলপথ, সড়ক ও জলপথে সরকারি যানবাহনে আসন সংরক্ষণে অগ্রাধিকার থাকবে। ব্যবসার কাজে বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে ভিসা প্রাপ্তির জন্য তাদের অনুকূলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্ট দূতাবাসে ‘লেটার অব ইনট্রুডাকশন’ দেয়া হবে। তাদের স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে ও নিজের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালের কেবিন সুবিধার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার থাকবে। কার্ডধারীরা বিমান বন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ-২ ব্যবহারের সুবিধাও পাবেন

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2014
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া