adv
১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মার্কিন সহায়তা অব্যাহত থাকবে: ইউএসএইড

মার্কিন সহায়তা অব্যাহত থাকবে: ইউএসএইডচট্টগ্রাম: ২৪ ঘণ্টা আগে ঢাকায় পা রেখেছেন। আর সেদিনই চট্টগ্রামে এসেছেন। সোমবার দলের সঙ্গে দুপুর থেকে বিকেল অবদি অনুশীলনে ছিলেন। ৮৭ টেস্ট, ২৭৫ ওডিআই আর ৫৩টি টি২০ খেলার অভিজ্ঞতা দিলশান এখন প্রস্তুত বাংলাদেশের বিপক্ষে টি২০ সিরিজে অংশ নিতে। জহুর আহমেদ চৌধুরী বিভাগীয় স্টেডিয়ামে ঠিক ১২টায় প্রবেশ করে লঙ্কান দল। এরপর তাদের কারও সঙ্গে কথা বলার জন্য মিডিয়ার দিনভর অপেক্ষার পালা। অবশেষে শেষ বিকেলে লঙ্কান টিম ম্যানেজম্যান্ট দিলশানকে পাঠায় কথা বলতে।



মাঠে দাঁড়িয়ে অনেক কথা বললেন  টেস্টে ১৬টি, ওয়ানডেতে ১৭টি এবং টি২০কে ও ১টি সেঞ্চুরি হাঁকানো দিলশান। অধিনায়ক হিসেবে দলে চান্দিমাল। মন্তব্য জানতে চাইলে বলেন, “আমি মনে করি অধিনায়ক হিসেবে চান্দিমাল খুবই ভালো। গত কয়েক সিরিজ ধরেই সে ভালো অধিনায়কত্ব করেছে। দেশের হয়ে সে দারুণ ক্রিকেট খেলছে। তরুণদের এমন সুযোগ করে দেওয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সব মিলিয়ে অধিনায়ক হিসেবে সে ভালোই।”

 

সিনিয়র-জুনিয়র মিলিয়ে দল করা হয়েছে। ওয়ার্ল্ড টি-২০ আগে এটি কতোটা কাজে দিবে? জবাবে দিলশান বলেন, “দলের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ। বিশেষ করে তরুণদের জন্য খুবই ভালো পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। কারণ সাঙ্গাকারা-মাহেলা দলে আছে, যাদের থেকে তরুণরা অনেক কিছু শিখতে পারবে। বাংলাদেশের সাথে সীমিত ওভারের খেলাগুলো আসন্ন এশিয়া কাপ ও ওয়ার্ল্ড টি-২০’র আগে আমাদের অনেক কাজে দিবে। তাই দলের প্রতিটি খেলোয়াড়ের জন্যই এ সিরিজটি গুরুত্বপূর্ণ। বড় দু’টি আসরের আগে প্রতিটি খেলোয়াড় এ সুযোগটি লুফে নিবে।”

 

কুশল সিলভা এবং সুচিত্রা সেনানায়েকে লঙ্কানদের হয়ে সম্প্রতি ভালো করছে। তারা দলের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ? বলেন, “আসলে স্কোয়াডের ১৫ জনই দলের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আলাদা করে গুরুত্ব দেওয়ার মতো কিছু নেই। কুশল সিলভা শ্রীলঙ্কার উঠতি তারকার একজন। সে গত কয়েকটি সিরিজে আমার সাথে ব্যাটিং করেছে। বোলারদের উপর প্রেসার তৈরি করার সক্ষমতা আছে তার। সুচিত্রাও অনেক ভালো স্পিনার। সব মিলিয়ে তরুণ ও অভিজ্ঞদের সমন্বয়ে শ্রীলঙ্কা খুবই ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল। প্রত্যাশা করছি, আগামী কয়েকটা দিন সেরা ক্রিকেটই খেলবো আমরা।

 

টি২০-এর সীমিত ওভারে বাংলাদেশকে কিভাবে দেখছেন? দিলশানের জবাব ছিল-“সীমিত ওভারের খেলায় বাংলাদেশ শক্তিশালী দল। গত দুই তিন বছর ধরেই তারা ভালো ক্রিকেট খেলেছে। এ ছাড়া তারা এখানে হোম গ্রাউন্ডে খেলবে। আশা করি বাংলাদেশকে আমরা সহজে হারাতে পারবো না। বাংলাদেশ দল সম্প্রতি দারুণ ক্রিকেট খেলছে।”

 

ঢাকায় খেলা প্রসঙ্গে কি বলবেন? বলেন, “বাংলাদেশে আমি এবং আরো কয়েকজন লঙ্কান ক্রিকেটার খেলেছেন। একাধিক তরুণ এখানে ভালো খেলে জাতীয় দলে ঢুকেছেন। তবে এটা বিষয় নয়; টি-টোয়েন্টিতে ২০ ওভারে কোনো ভুল করার সুযোগ নেই। সেরা খেলতে হবে সবাইকে। আর দু’টি বড় আসর আছে সামনে, তাই শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশ, দু’দলের জন্যই সিরিজটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ।” কোন ফরম্যাটে শ্রীলঙ্কা বেশি শক্তিশালী? বলেন, “টেস্ট-ওয়ানডে বা টি-টোয়েনটি, তিন ফরম্যাটেই শ্রীলঙ্কা শক্তিশালী দল। নির্দিষ্ট কোনো ফরম্যাটের কথা আমি বলবো না। প্রায় সব দেশেই আমরা ভালো ক্রিকেট খেলছি।বাংলাদেশের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বার্ষিক উন্নয়ন সহায়তা অতীতের মতো অব্যাহত থাকবে। তবে চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে গণতন্ত্র ও সুশাসন কর্মসূচির অর্থ অন্য কর্মসূচিতে সমন্বয়ের পরিকল্পনা রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের।

যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (ইউএসএইড) মিশন ডিরেক্টর ইয়ানিনা ইয়ারুজেলস্কি আজ সোমবার এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। ইউএসএইডের নতুন প্রধান হিসেবে ইয়ারুজেলস্কি গত ২ জানুয়ারি ঢাকায় আসেন।

এদিকে ইউএসএইড ও যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (ইউকেএইড) অর্থায়নে পরিচালিত এক জনমত জরিপ সম্পর্কে ইয়ানিনা ইয়ারুজেলস্কি বলেন, জরিপে দুই দলের জন্য বার্তা রয়েছে। জরিপে ৫৭ শতাংশ মানুষ নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। আবার ৭৯ শতাংশ মানুষ মনে সহিংসতার বিপক্ষে মত দিয়েছেন। আর বেশির ভাগ মানুষ মত দিয়েছেন পাঁচ বছরের আগেই নির্বাচন হওয়া উচিত।

প্রসঙ্গত, ২ ফেব্রুয়ারি ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল (ডিআই) পরিচালিত এক জরিপে বলা হয়েছে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সব দল অংশ নিলে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হতো।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে মার্কিন সহায়তা অব্যাহত থাকবে কি না এবং গণতন্ত্র ও সুশাসনের কর্মসূচিতে মার্কিন পরিকল্পনার বিষয়ে ইয়ানিনা ইয়ারুজেলস্কির কাছে জানতে চাওয়া হয়। ইউএসএইড প্রধান বলেন, দরিদ্র ও সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা মানুষের জীবনে পরিবর্তন আনা তাঁদের কর্মসূচির মূল লক্ষ্য। এখানকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি যাই থাকুক না কেনো, এই লক্ষ্য অব্যাহত থাকবে। তবে তিনি গণতন্ত্র ও সুশাসন কর্মসূচির আওতায় সংসদের জন্য নির্ধারিত কর্মসূচিতে সহায়তা কমানোর কথা উল্লেখ করেন।

ইউএসএইড প্রতিবছর কী পরিমাণ সহায়তা দেয় ও সুশাসন কর্মসূচিতে অর্থায়ন কতটা কমবে জানতে চাইলে ইয়ানিনা ইয়ারুজেলস্কি বলেন, ২০১৩ সালে বাংলাদেশকে প্রায় ২০০ মিলিয়ন ডলার দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। এ বছরও তা অব্যাহত থাকবে। সুশাসন ও গণতন্ত্র কর্মসূচির অর্থ কমানোর কোনো পরিকল্পনা নেই তবে তা অন্য কর্মসূচির সঙ্গে সমন্বয়ের পরিকল্পনা রয়েছে। বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এটা কার্যকর হবে।

গত সংসদের প্রধান বিরোধী দলকে ছাড়াই ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় এর গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশ্ন রয়েছে। তাই এ নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত বাংলাদেশ সরকারকে যুক্তরাষ্ট্র স্বীকৃতি দেয় কি না। এ প্রশ্নের উত্তর দেন ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা। তিনি বলেন, সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রশ্ন আসে না। প্রশ্ন হচ্ছে রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দেওয়া। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে। বাংলাদেশের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের এ অবস্থান ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

শিগগিরই বাংলাদেশের নির্বাচনের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের সময়সীমা প্রসঙ্গে সাংবাদিকেরা জানতে চাইলে মজীনা বলেন, ‘৬ জানুয়ারি মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রকাশিত বিবৃতিতে বাংলাদেশের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে। ওই অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি। আমরা যত শিগগির সম্ভব নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য অবিলম্বে সংলাপ শুরুর আহ্বান জানিয়েছি। আর সময়সীমা ঠিক করে দেওয়াটা যুক্তরাষ্ট্রের কাজ নয়।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2014
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া