adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পদ ছাড়লেও সরকারি গাড়ি ছাড়ছেনই না সাংসদ

52f638d9d3af5-kushtia-কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ ছেড়ে কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন আবদুর রউফ। কিন্তু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের জন্য বরাদ্দ করা সরকারি গাড়ি তিনি ব্যবহার করেই যাচ্ছেন।

আজ শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে তিনি এই গাড়ি ব্যবহার করে খোকসার জানিপুর পাইলট হাইস্কুল মাঠে খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত গণসংবর্ধনা সভায় যোগ দেন।

কুষ্টিয়া-৪ আসনের (খোকসা-কুমারখালী) সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার জন্য তাঁকে ওই গণসংবর্ধনা দেওয়া হয়। এর আগে তিনি গাড়িটি নিয়ে ঢাকায় গিয়েছিলেন। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার প্রথম আলোতে ‘সাংসদের কবজায় উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

আজ বিকেল পাঁচটার দিকে উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি চড়ে সাংসদ আবদুর রউফ সংবর্ধনা সভায় যোগ দেন। তিনি গাড়ি থেকে নেমে মঞ্চে ওঠেন। খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল আকতারের সভাপতিত্বে সভায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা বক্তব্য দেন। এদিকে গাড়ি থেকে সাংসদ নামার পর গাড়িটি নিয়ে চালক দ্রুত সভা থেকে দূরে চলে যান। এ সময় গাড়ির সামনে লাগানো জাতীয় সংসদের লোগো খুলে ফেলা হয়। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে সভা শেষে সাংসদ অন্য একটি গাড়িতে চড়ে ফিরে যান।

এ ব্যাপারে কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা সাহেলা আক্তারের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। পরিচয় শোনার পর তিনি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। তিনি বলেন, ‘আপনি (এই প্রতিবেদক) তো আমার চাকরি যাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন, আপনার সাথে কী কথা বলব।’ পরে একপর্যায়ে তিনি জানতে চান কেন ফোন দিয়েছি। বর্তমান সাংসদ উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি ব্যবহার করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না, গাড়ি আমার হেফাজতে আছে। গাড়ি আমার কাছে জমা দিয়ে গেছে। গাড়ি থানায় আছে। চাবি আছে এসিল্যান্ডের কাছে।’ কখন জমা দিয়েছে জানতে চাইলে ইউএনও বলেন, ‘দুপুর বেলায়।’ তবে তিনি সুনির্দিষ্ট সময় জানাতে পারেননি।

কুমারখালি উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম প্রথম আলোকে বলেন, ‘গাড়ির চাবি আমার কাছে দেওয়া নাই। কে বলল আপনাকে? এটা ভুল ইনফরমেশন (তথ্য)।’

কুমারখালী থানায় যোগাযোগ করা হলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খালেকুজ্জামান বলেন, ‘উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি আমাদের হেফাজতে থাকবে কেন। না না নাই।’

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের গাড়ি ব্যবহার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মুজিব উল ফেরদৌস বলেন, ‘আপনার কাছ থেকে গাড়ি ব্যবহারের বিষয়টি জানলাম। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2014
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া