adv
৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৭৮টিতে আগুন, মোট কেন্দ্র ১৮২০৮

vote-0220140104144759ঢাকা: ভোটকেন্দ্রে আগুন দিয়ে নির্বাচন ঠেকাতে পারছে না বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। নির্বাচন বানচালে টানা হরতাল, লাগাতার অবরোধ আর মার্চ ফর ডেমোক্রেসির মতো বিরোধী দলের ভোটকেন্দ্রে আগুন দেওয়ার কৌশলও ব্যর্থ হতে বসেছে।

সারাদেশে ১৪৭ আসনে ভোটের জন্য প্রস্তুত ১৮ হাজার ২০৮ ভোট কেন্দ্রের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় সাকুল্যে ৭৮টি কেন্দ্রে আগুন দিয়েছে তারা। ভোটকেন্দ্রের হিসেবে এ কৌশলে তাদের নাশকতার সফলতা কিছুতেই দশমিক ৪২ শতাংশের বেশি নয়।

উপরন্তু আগুন দিতে গিয়ে ধরা খাওয়ার ভয়ে দ্রুত সটকে পড়‍ার চিন্তা থাকায় আগুন লাগিয়েও খুব একটা সুবিধা করতে পারে নি তারা। আবার তাড়হুড়ায় ভুল করে ভোটকক্ষের বদলে হয়তো শিক্ষকের কক্ষে আগুন দিয়ে তারা পুড়িয়েছে বই-খাতা, চেয়ার-টেবিল, এমনকি পরীক্ষার রেজাল্ট শিটও। 

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই স্থানীয়রা এসে দ্রুত নিভিয়ে ফেলেছে আগুন। কোন কোন ক্ষেত্রে দ্রুত ছুটে এসেছে স্থানীয় দমকলের ইউনিট। এভাবে বিএনপি-জামায়াতের আগুনে কোন কোন কেন্দ্রের দু’একটি কক্ষের দরোজা-জানালা, চেয়ার-টেবিল পুড়লেও নির্বাচন ঠেকানোর জন্য এসবকে কিছুতেই ফলপ্রসু বলা ‍যাবে না।

তাছাড়া ভোট কেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা পৌছে যাওয়ার পর শনিবার দুপুরের পর থেকে দেশের আর কোন কেন্দ্রেই আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটছে না। 

এদিকে এখন পর্যন্ত একটি কেন্দ্রেও নিরাপত্তাজনিত কারণে ভোট স্থগিতের খবর পাওয়া ‍যায়নি। নির্বাচন কমিশন সূত্র বলছে, যে কয়টি কেন্দ্রে আগুন দেওয়া হয়েছে বা দেওয়ার চেষ্টা চালানো হয়েছে, সব ক’টিতেই রোববার ভোট গ্রহণ হবে।  

এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার এসব ঘটনায় সংশ্লিষ্ট মহলগুলোতে মামলা দায়েরের চিন্তা চলছে বলেও আভাস মিলছে বিভিন্ন সূত্রে।

সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, শুক্রবার রাত ৮টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে নীলফামারীতে ২টি, রাত ৮টা থেকে ১০টার মধ্যে খুলনায় ৪টি, রাত ১০টার দিকে নাটোরে ১টি,  বরিশালে ১টি, ময়মনসিংহে ২টি, ফেনীতে ১টি ও  নেত্রকোনায় ৩টি ভোট কেন্দ্রে আগুন দেয় নির্বাচন বিরোধীরা। 

মাঝরাতে আগুন দেয় ঝিনাইদহের ২টি, সুনামগঞ্জের ১টি, গাইবান্ধার ৩টি, বগুড়ার ৪টি,  নারায়ণগঞ্জের ১টি,  দিনাজপুরের ৩টি, কুষ্টিয়ার ১টি, রংপুরের ৬টি, ভোলার ৪টি, লক্ষ্মীপুরের ৪টি, রাজশাহীর ৪টি, সুনামগঞ্জের ১টি ও মানিকগঞ্জের ১টি ভোটকেন্দ্রে।

শনিবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত তারা আগুন দেয় ফেনীর ২টি, ঝিনাইদহের ২টি, সিলেটের ১টি, পিরোজপুরের ১টি, লক্ষ্মীপুরের ১টি, বরগুনার ৭টি, বাগেরহাটের ১টি, টাঙ্গাইলের ৪টি, ঢাকার আব্দুল্লাহপুরের ১টি, দিনাজপুরের ১টি, সুনামগঞ্জে ১টি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২টি, যশোরের ২টি, সাতক্ষীরার ১টি, মেহেরপুরের ১টি ও যশোরের ১টি কেন্দ্রে।

এছাড়া শুক্রবার গভীর রাতে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের টেংরা-বাদিয়াখালী সড়ক কেটে ৩টি ভোটকেন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ বিছিন্ন করে দেয় জামায়াত-বিএনপির কর্মীরা।  

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলায় একটি ভোট কেন্দ্রেও রাস্তা কাটার ঘটনা ঘটে।  

এর বাইরে রাজধানীর উত্তরার আজমপুর এলাকার দু’টি ভোট কেন্দ্রে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এক সঙ্গে ছয়টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এছাড়া শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর কদমতলী থানার একটি ভোট কেন্দ্র থেকে ছয়টি হাতবোমা উদ্ধার করে পুলিশ। 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2014
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া