adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

৫ জানুয়ারির নির্বাচনে হারবে বাংলাদেশ

image_60144_0নিউইয়র্ক: `ইকোনমিস্ট’ ম্যাগাজিন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আগামী ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়ী হলেও হারবে বাংলাদেশ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে প্রক্রিয়ায় তার ক্ষমতার মেয়াদ বাড়াতে চাইছেন, তাকে একজন ইউরোপীয় কূটনৈতিক ধাপে ধাপে সংগঠিত অভ্যুত্থান হিসেবে বর্ণনা করেছেন।”

ইকোনমিস্ট লিখেছে, “প্রধান বিরোধী দল ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বয়কট করছে। সুতরাং এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয় নিশ্চিত। তবে  বৈধতার প্রশ্ন থেকে যাবে।”

‘ইকোনমিস্ট’ পত্রিকার ২১ ডিসেম্বর প্রকাশিতব্য   সংখ্যার এই প্রতিবেদনটি এরই মধ্যে অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত হয়েছে। ‘দ্য ক্যাম্পেইন ট্রেইল: দ্য রুলিং পার্টি উইল উইন বাংলাদেশ ইলেকশন, দ্য ক্যান্ট্রি উইল লস’ শিরোনামে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “জামায়াতের সব নেতার ফাঁসি কার্যকর করতে শেখ হাসিনা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন ও আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি শেখ হাসিনাকে ফাঁসি কার্যকর না করতে অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু সমঝোতা তার (হাসিনা) স্টাইল নয়।”

তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রসঙ্গে বলা হয়, “শেখ হাসিনা পাঁচ বছর আগের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করেছিলেন। ২০১১ সালে সংবিধান সংশোধন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা সংবিধান থেকে ছেঁটে ফেলা হয়। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে অবিশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৬ সালে নির্বাচনকালীন সরকারের এ ব্যবস্থা সংবিধানে যুক্ত হয়েছিল। এই সরকারব্যবস্থা বাতিল করে সংবিধান সংশোধনী বাংলাদেশে একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন নির্বাচনের ব্যবস্থা করেছে। আগামী নির্বাচনের সবচেয়ে বড় অসুবিধার দিক হলো ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৪ আসনেই কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা নেই। বিএনপি ও তাদের জোটের ১৭টি দল নির্বাচন বয়কট করেছে। নির্বাচন বয়কট করায় দেশের তৃতীয় বৃহত্তম দল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হাসপাতালে বন্দি করে রাখা হয়েছে। দেশের এরপরের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল জামায়াতের নির্বাচনে অংশ নেয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। দলটির গঠনতন্ত্রের ধর্মীয় বিধান বাংলাদেশের ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক উল্লেখ করে দলটির ওপর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।”

“আওয়ামী লীগ হয়তো নির্বাচনে জিতবে। ৫ জানুয়ারি যা-ই হোক না কেন, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাকে বরণ করার সংসদ সদস্যের অভাব হবে না। দেশে-বিদেশে এ নির্বাচন বৈধতার সংকটে পড়বে। বাংলাদেশের বৃহৎ প্রতিবেশী ভারতই একমাত্র বিদেশি শক্তি, যারা একদলীয় নির্বাচন সমর্থন করছে। নির্বাচনের আগেই ফল নিশ্চিতের (হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ ধরনের ব্যবস্থা চালু করেন) নির্বাচনী ব্যবস্থার পৃষ্ঠপোষকতার ভারতীয় সিদ্ধান্ত অপরিণামদর্শী প্রমাণিত হতে পারে। বাংলাদেশে এরই মধ্যে ভারতবিরোধী সেন্টিমেন্ট জোরদার হয়েছে। শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা দখলে ভারতীয় পৃষ্ঠপোষকতা ভারত বিরোধীরা যা চায় সে সুযোগ করে দিতে পারে। এতে কট্টোর এবং কম ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের উদ্ভব হতে পারে। বাংলাদেশের সেনাবাহিনী কোনো পদক্ষেপ নিতে ইচ্ছুক না। ভোট নিয়ে সাম্প্রতিক সহিংসতায় এক শর বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।”

পত্রিকাটি লিখেছে, ১২ ডিসেম্বর ইসলামপন্থী দল জামায়াতে ইসলামীর নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর সর্বশেষ সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। শেখ হাসিনার প্রতিদ্বন্দ্বী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপি রাজপথে তার রাজনীতি পরিচালনা করছে। তারা একের পর এক অবরোধ কর্মসূচি ডাকছে। এতে পরিবহণব্যবস্থা ও অর্থনীতি অকার্যকর হয়ে পড়েছে। বিএনপির জোটসঙ্গী জামায়াত তাদের অস্তিত্বের জন্য লড়াই করছে। রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদের রগকাটার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এখন হত্যাকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে দলটি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রকাশ্যে গুলি করে তাদের জবাব দিচ্ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৬ ডিসেম্বর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সাতক্ষীরায় গুলি করে জামায়াতের পাঁচ কর্মীকে হত্যা করেছে। যেসব জেলায় জামায়াতের শক্ত অবস্থান রয়েছে, তার মধ্যে সাতক্ষীরা অন্যতম। দেশের দক্ষিণাঞ্চলে জামায়াতের তরুণ কর্মীরা হিন্দুধর্মালম্বীদের বাড়ি ও দোকানে হামলা চালিয়েছেন। আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা প্রত্যন্ত অঞ্চল ছেড়ে রাজধারী ঢাকায় আশ্রয় নিয়েছেন

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2013
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া