adv
২২শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সমঝোতা হলে দশম সংসদ ভেঙে নির্বাচন

image_68156_0ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়েই অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের পর বিরোধী দলের সঙ্গে সমঝোতা হলে সংসদ ভেঙে দিয়ে আবার নির্বাচন দেয়া হবে।’
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি ও কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনা চলছে, চলবে। আগামী সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়েই হবে। নির্বাচনের পরেও আলোচনা হবে। আলোচনা ফলপ্রসূ হলে সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন দেয়া হবে।’
তবে বিরোদী দলীয় নেত্রী বেগম জিয়াকে হরতাল অবরোধ নৈরাজ্যকর কর্মসূচি বর্জন এবং স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগের শর্ত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

দশম জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির অংশ নেয়ার সুযোগ নেই জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনের ট্রেন মিস করেছেন। এই নির্বাচনে তারা আসতে পারবেন না। তবে বিএনপি যদি মানুষ হত্যা বন্ধ করে সমঝোতায় আসে তবে দশম সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আলোচনা করছি। আলোচনা চলবে। নির্বাচন হওয়ার পর আলোচনা চলতে থাকবে। এখন খালেদা জিয়া যদি হরতাল বন্ধ করেন, অবরোধ বন্ধ করেন, মানুষ পুড়িয়ে মারা বন্ধ করেন, মানুষের ওপর অত্যাচার বন্ধ করেন তাহলে নির্বাচনের পর আলাপ-আলোচনার মধ্য দিয়ে আমরা যদি সমঝোতায় আসতে পারি তবে প্রয়োজনে আমরা পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে পুনরায় নির্বাচন দেব। সংবিধান মোতাবেক নির্বাচন হবে।’

বিরোধী দলের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের বিরদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে সরকার প্রধান বলেন, ‘খুঁজে খুঁজে আওয়ামী লীগ নেতাদের বাড়িঘর পোড়াচ্ছেন। মানুষের ধৈর্যেরও একটা সীমা আছে, সহ্যেরও একটা সীমা আছে। এসব কর্মকাণ্ড আর বরদাশত করা হবে না। মানুষ হত্যা বন্ধ না করলে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করার জন্য যতো কঠোর হওয়া দরকার ততো কঠোর হব।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিরোধী দল অবরোধ দিয়ে তো কিছুই করতে পারলো না। তিনি অবরোধ দিয়েছেন শুধু দিনমজুর আর খেটে খাওয়া মানুষের বিরুদ্ধে। আর ছেলে-মেয়েরা যেন ক্লাস পরীক্ষা দিতে না পারে তার জন্য।’

জামায়াত নির্বাচনে আসতে পারবে না বলেই বিএনপি নির্বাচনে আসছে না অভিযোগ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমরা চেয়েছি সুষ্ঠু নির্বাচন, গণতান্ত্রিক নির্বাচন। আমরা নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করেছি। এ সরকারের আমলে সব নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। তারপরও এ নির্বাচনে আসা নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকতে পারে না। অথচ বিএনপি নির্বাচনে আসলো না।’

এসময় প্রধানমন্ত্রী পরিবেশবাদীদের সমালোচনা করে বলেন, ‘এত হাজার হাজার গাছ কাটা হলো কোনো একজন পরিবেশবাদী এ নিয়ে কিছু বললো না। একটা প্রতিবাদ তাদের কাছ থেকে পাইনি। মানুষ হত্যার প্রতিবাদও পাইনি। কোনো সংগঠন একটা বিবৃতি দিল না। মানুষ পুড়িয়ে মারল। প্রতিদিনই কেউ না কেউ মারা যাচ্ছে- কিন্তু কেউ কোনো বিবৃতি দিচ্ছে না।’
 
পাকিস্তানের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হওয়ায় পাকিস্তানের দরদ উতলে উঠেছে। ইমরান খান নিয়াজীর দরদ উতলে উঠেছে। বাংলাদেশের একজন নাগরিকের বিচার হচ্ছে এটা নিয়ে তাদের এত মাথা ব্যাথা কেন? অবশ্য এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে বিএনপি-জামায়াত পাকিস্তানের দোসর।’

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৫৪ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের আশা ছিল, বিরোধী দল নির্বাচনে অংশ নেবে। এজন্য আমরা জোটগতভাবে ছাড় দিয়ে প্রার্থী ঠিক করেছি। যখন বিরোধী দল নির্বাচনে আসেনি, তখন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়াটা স্বাভাবিক। তারপরও নির্বাচনে ১২টি দল ও ৫৪০ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী অংশ নিচ্ছে।’
 
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, কাজী জাফর উল্লাহ, মোহাম্মদ নাসিম, নুহ উল আলম লেলিন, ড. এইচটি ইমাম, ড. মশিউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, অ্যাডভোকোটে জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুল মতিন খসরু, অ্যাডভোকেট রিয়াজুল কবির কাওছারসহ দলের ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রায় সব সদস্যই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, তফসিল অনুযায়ী আগামী ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু প্রধান বিরোধী দল নির্বাচন বর্জন করায় ইতিমধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ১৫৪ প্রার্থী। সুতরাং ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে মাত্র ১৪৬ আসনে। আর এসব আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের তেমন কোনো শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। এছাড়া সরকার গঠনের জন্য ন্যূনতম ১৫১ আসন লাগে। সে হিসাবে, নির্বাচনের আগেই প্রয়োজনীয় আসন পেয়ে গেছেন শেখ হাসিনা। আর একারণেই দেশে বিদেশে এ নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে এখনই প্রশ্ন উঠছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2013
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া