adv
৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘২১ দিনের আগে ফাঁসি কার্যকর করা যাবে না’

Xnqre-zbyyn20131205151041ঢাকা: জেল কোড অনুযায়ী কারা কর্তৃপক্ষ রায়ের কপি হাতে পাওয়ার পর ২১দিন পার না হলে কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন ডিফেন্স টিমের প্রধান আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক।

বৃহস্পতিবার বিকেলে আব্দুল কাদের মোল্লার পূর্নাঙ্গ রায় প্রকাশ হওয়ার পর ধানমণ্ডির নিজ বাসায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আজ আপিল বিভাগের পূর্নাঙ্গ রায় স্বাক্ষরিত হয়েছে। আমরা রায়ের সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার জন্য আবেদন করেছি। সুপ্রিম কোর্টের বিধি অনুযায়ী রায়ের সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার ত্রিশ দিনের মধ্যে মাত্র আমরা সংবিধানের ১০৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী এই রায়ের বিরুদ্ধে আমরা রিভিউ পিটিশন দাখিল করবো।’

ব্যারিস্টার রাজ্জাক বলেন, ‘আপিল বিভাগ কর্তৃক প্রদত্ত মৃত্যুদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে সংবিধান অনুযায়ী রিভিউ পিটিশন দাখিল করার অধিকার জনাব আব্দুল কাদের মোল্লার রয়েছে। আব্দুল কাদের মোল্লার দাখিলকৃত রিভিউ পিটিশন শুনানির জন্য আপিল বিভাগের যে সংবিধানিক এখতিয়ার রয়েছে তা অন্য কোন আইন বলে কেড়ে নেওয়া যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে আব্দুল কাদের মোল্লার সাজা বাড়িয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে মৃত্যুদণ্ডে রাপান্তরের জন্য সরকারের দাখিলকৃত আপিল চলবে কি চলবে না সে প্রশ্ন উঠেছিল। আপিল বিভাগ এ ব্যাপারে দীর্ঘ শুনানি গ্রহণ করেছিলেন এবং এমনকি এ ব্যাপারে মতামত নেয়ার জন্য এমিকাস কিউরি নিয়োগ করেছিলেন। জনাব আব্দুল কাদের মোল্লার মামলা এর চেয়েও অধিকতর ভালো অবস্থানে রয়েছে। কারণ আমরা মনে করি তার রিভিউ পিটিশন দাখিলের অধিকারকে সংবিধান কর্তৃক নিশ্চয়তা (গ্যারান্টি) দেয়া হয়েছে।’

ডিফেন্স টিমের এ প্রধান আইনজীবী বলেন, ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইনের অধীনে এটি আপিল বিভাগের প্রথম রায় যেখানে রিভিউ এর প্রশ্ন উঠেছে। রিভিউ চলবে কি চলবেনা সেটি একটি আইনগত প্রশ্ন। এটি সম্পূর্ণভাবে আপিল বিভাগের এখতিয়ার।’

তিনি বলেন, ‘যদি আবদুল কাদের মোল্লার রিভিউ পিটিশন মেরিটে অথবা এখতিয়ারে প্রশ্নে খারিজ হয়ে যায় কেবলমাত্র তখনই তা কার্যকরের প্রশ্ন আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে কর্তপক্ষকে অবশ্যই জেল কোডের বিধান অনুসরণ করতে হবে। ১৭ সেপ্টেম্বর আপিল বিভাগের রায় ঘোষণার পর সংবাদ সম্মেলনে তদানীন্তন আইনমন্ত্রী স্বীকার করেছিলেন যে, এ ক্ষেত্রে জেল কোডের বিধান অনুসরন করতে হবে।’

ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘অ্যাটর্নী জেনারেলের কার্যালয় মনে করে যে যেহেতু এটি আই.সি.টি অ্যাক্ট এর অধীনে একটি রায়, সরকার তার ইচ্ছা অনুযায়ী রায় কার্যকর করবে। জেল কোডের বিধান অনুসরণের প্রয়োজন নেই। এই বক্তব্যটি সম্পূর্ণ ভুল। কারণ আই.সি.টি অ্যাক্টের কোথাও এই আইনের অধীনে প্রদত্ত মৃত্যুদণ্ডাদেশ কিভাবে কার্যকর করা হবে তা বলা হয়নি। এই কারণেই জেল কোডের বিধান অনুসরণ করা ছাড়া কর্তৃপক্ষের সামনে অন্য কোন বিকল্প নেই। জেল কোড অনুযায়ী কারা কর্তৃপক্ষ রায়ের কপি হাতে পাওয়ার ২১ দিনের আগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে পারবে না।’

একই সাথে এগুলো আইন ও সংবিধানের সুস্পষ্ট বিধান বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের সকল ব্যক্তি ও কর্তৃপক্ষকে এই বিধান মেনে চলতে হবে। আমরা আশাকরি প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োজিত সকল ব্যক্তি আইন অনুযায়ী কাজ করবেন। কারন কোন ব্যক্তিই আইনের ঊর্ধে নন।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2013
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া